Today: 30 Mar 2017 - 06:31:54 pm

আজ ৬ ডিসেম্বর কুড়িগ্রাম হানাদারমুক্ত দিবস

Published on Tuesday, December 6, 2016 at 2:07 pm
Print Friendly

kurigram-bijoy-stambo-photo-05-12-16সাইফুর রহমান শামীম, কুড়িগ্রাম: আজ ৬ ডিসেম্বর কুড়িগ্রাম হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১’র এই দিনে কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল হাই এর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা পাক সেনাদের হটিয়ে কুড়িগ্রামকে মুক্ত করে। স্বাধীনতা যুদ্ধের চুড়ান্ত বিজয় অর্জিত না হলেও এ অঞ্চলে সেদিন উদিত হয় স্বাধীন বাংলার পতাকা। স্বাধীনতার ৪৫ বছর পরে সেই বিজয়ের স্মৃতি চারন করতে যেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন সেদিনের বীর মুক্তিযোদ্ধারা।

মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে ৬ ও ১১ নম্বর সেক্টরের অধীনে ছিল গোটা কুড়িগ্রাম অঞ্চল। শুধুমাত্র ব্রহ্মপুত্র নদ দ্বারা বিচ্ছিন্ন রৌমারী ছিল মুক্তাঞ্চল। এখানেই ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষন ক্যাম্প। ৬ নং সেক্টরের কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল হাই এর নেতৃত্বে একে একে পতন হতে থাকে পাক সেনাদের শক্ত ঘাঁটিগুলো। মুক্ত হয় ভুরুঙ্গামারী, নাগেশ্বরী, চিলমারী, উলিপুরসহ বিভিন্ন এলাকা। এরপর পাক সেনারা শক্ত ঘাঁটি গড়ে তোলে কুড়িগ্রাম শহরে। হাই বাহিনী কুড়িগ্রাম শহরকে মুক্ত করতে ৫ডিসেম্বর পাক সেনাদের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে। মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমনের পাশাপাশি মিত্র বাহিনীর বিমান হামলায় বেসামাল হয়ে পালিয়ে যায় পাক সেনারা। মুক্ত হয় কুড়িগ্রাম। মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাগত জানাতে হাজারো মুক্তিকামী মানুষ সেদিন মিলিত হয় বিজয় মিছিলে।

তরুন বয়সে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েন আব্দুল হাই সরকার। বীরত্বপুর্ন সাহসিকতায় তার নেতৃত্বে গঠিত হয় হাই বাহিনী। রনাঙ্গনে একাধিক সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নিয়ে একে একে দখল করে নেয় পাক সেনার শক্ত ঘাটিগুলো।

আব্দুল হাই বীর প্রতিক জানান, জোড়ালো আক্রমনে পাক হানাদার বাহিনীকে পিছু হটাতে পারার আনন্দ ও মুক্তিকামী মানুষের বিজয় উল্ল্যাসের সে দিনটির কথা মনে পড়লে এখনো আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়ি।

এদিকে কুড়িগ্রাম মুক্ত দিবস পালন করতে মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক দলগুলো নানা কর্মসূচী গ্রহন করেছে।

Print Friendly

মতামত