Today: 30 Mar 2017 - 06:43:57 pm

সিরাজগঞ্জে জেএমবির ৯ সদস্যের উপস্থিতিতে সাক্ষ্য গ্রহণ

Published on Wednesday, January 4, 2017 at 11:54 am
Print Friendly

 সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জে আটক নিষিদ্ধ ঘোষিত জামায়াতুল মুজাহিদীনের (জেএমবি) ৪ নারী সদস্য ও কেন্দ্রীয় শীর্ষ ৫ নেতার উপস্থিতিতে ৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ মো. জাফরোল হাসানের আদালতে ৪ নারী জেএমবি এবং অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ড. ইমান আলীর আদালতে জেএমবির শীর্ষ ৫ নেতাদের উপস্থিতিতে পৃথকভাবে এই সাক্ষ্য গ্রহণ করে আদালত।

সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট আব্দুর রহমান ও অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) সিরাজুল হক ও ইব্রাহিম খলিল ইমন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এরা হলেন, নিষিদ্ধ ঘোষিত জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের জেএমবির প্রধান সমন্বয়ক আব্দুল নুর, এহসার সদস্য নুরুজ্জামান আরিফ, গায়েবে এহসার সদস্য আবুল কালাম আজাদ, ফারুক আহম্মেদ ও নুর ইসলাম সাগর, (জেএমবি) নারী সদস্য নাদিরা খাতুন তাবাজ্জুম (৩০), হাবিবা আক্তার মিশু (১৮), রুনা বেগম (১৯) ও রোমানা আক্তার (২১)।

২০১৬ সালের ২৩ জুলাই রাতে সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার মাছুমপুর মহল্লা থেকে বিপুল পরিমাণ জিহাদী বই, ককটেল ও গ্রেনেড তৈরির সরঞ্জামাদিসহ জেএমবির এই ৪ নারী সদস্যকে আটক করে সিরাজগঞ্জ গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ।

অপরদিকে ২০১৪ সালের ৩১ অক্টোবর শুক্রবার রাতে বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু পশ্চিমপাড়ের সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদে শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশন থেকে জেএমবির এই ৫ শীর্ষ নেতাকে আটক করে র‌্যাব-১২ এর সদস্যরা। এসময় তাদের নিকট থেকে ৪৯টি প্রাইমারী ডেটোনেটর, ৪৫টি বোতাম টাইম সার্কিট, ১০ কেজি পাওয়ার জেল, বিভিন্ন প্রকার ১৫৫টি সার্কিটসহ বিপুল পরিমান জিহাদী বই ও বোমা তৈরির সরাঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় র‌্যাব-১২ ও সিরাজগঞ্জ গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) বাদী হয়ে সন্ত্রাসী বিরোধী ও বিষ্ফোরক দ্রব্য আইনে পৃথক দুইটি মামলা দায়ের করেন। এসব মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে।

Print Friendly

মতামত