Today: 26 Mar 2017 - 01:19:14 pm

সাঘাটায় আ’লীগ সভাপতির উপর হামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

Published on Sunday, March 19, 2017 at 4:37 pm

 খায়রুল ইসলাম গাইবান্ধা থেকে: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্ম বার্ষিকী ও শিশু দিবস উপলক্ষে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পনকালে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক সাঘাটা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ওয়ারেছ আলী প্রধানের উপর বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদ এবং প্রতিকার দাবিতে রোববার গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সাঘাটা-ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ যৌথভাবে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

সাঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. এস.এম সামশীল আরেফিন টিটু সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করেন, ১৭ মার্চ স্থানীয় সংসদ সদস্য ফজলে রাব্বী মিয়ার সমর্থকরা বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালকে ঘিরে মঞ্চ তৈরী করে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতির অবমাননা করেন। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পনের সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য ফজলে রাব্বি মিয়া ও সাঘাটা থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমানের উপস্থিতি ও তাদের নির্দেশে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উপর পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ধারাল অস্ত্র, বেকি, হকিষ্টিক ও লাঠিসোটা দিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে। গুরুতর আহত অবস্থায় প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা সাঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়ারেছ আলী প্রধানকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখন তিনি মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

আরও উল্লেখ করা হয়, উক্ত সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টি ছেড়ে ২০০৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে এমপি নির্বাচিত হয়। এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তার পুরাতন দলীয় সহযোগি ও আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে একটি সিন্ডিকেট গড়ে তুলে সরকারের সকল উন্নয়নমূলক প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ করে সরকারের ভাবমুর্তি চরমভাবে ক্ষুন্ন করছে। তদুপরি সাঘাটা-ফুলছড়ি উপজেলার ১৮৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সিন্ডিকেটের সদস্যদের সভাপতি বানিয়ে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে। টিআর, কাবিখা, কাবিটা, ভিজিএফ, ভিজিডি, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, স্বামী পরিত্যক্ত ভাতা, এমনকি মসজিদ-মন্দির, ঈদগাহ মাঠ, কবর স্থানের সংস্কার ও জেলা পরিষদ থেকে কোটি কোটি আত্মসাৎ করছেন।

এমনকি সদ্য সমাপ্ত জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগের জেলা সভাপতি অ্যাড. সৈয়দ-শামস-উল আলম হিরুর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে জাতীয় পার্টির প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতার পক্ষে প্রচারণা চালিয়ে তাকে বিজয়ী করতে সহায়তা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে এই সকল অপকর্ম দুর্নীতি দুঃশাসনের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রী এবং সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে প্রতিকার দাবি করে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ফুলছড়ি উপজেলা আ’লীগ সভাপতি জিএম সেলিম পারভেজ, সহ-সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, মোসলেম উদ্দিন বাবলু, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নুরুল আমিন, দপ্তর সম্পাদক সুমন মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম জাভেদ, মাহমুদ হাসান সুজা, মামুন মিয়া, সাঘাটা উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক খায়রুল বাশার, সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মশিউর রহমান, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মোকছেদুল ইসলাম প্রমুখ।

মতামত