Today: 23 May 2017 - 12:47:58 pm

রংপুরের আলেয়া পারভীন; ঢাকার রাজনীতিতে পরিচিত নাম (ভিডিও)

Published on Monday, May 8, 2017 at 11:38 am

স্টাফ রিপোর্টার: পুড়ান ঢাকার রাজনৈতিক অঙ্গনে পরিচিত মুখ হাজী আলেয়া পারভীন রনজু।

ঢাকার দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের লালবাগ এলাকার ২৪,২৫,২৬ (সংরক্ষিত ওয়ার্ড-৯) ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তিনি। একাধারে তিনি ২২ বছর ধরে ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। আলেয়া পারভীন রনজুর বাড়ি রংপুরের আলমনগরে।

তারা বাবা আব্দুস সালাম একাত্তরে মুক্তিযোদ্ধা কালীন সময়ে শহীদ হন। আব্দুস সালাম সে সময় রংপুর জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি ছিলেন।

আলেয়া পারভীন রনজু ১৯৭৪ সালে বৈবাহিক সূত্রে তিনি ঢাকায় বসবাস করা শুরু করেন। এসময় তিনি জড়িয়ে পরেন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে। ১৯৯৪ সালে তিনি প্রথমবারের মত ওয়ার্ড কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। এর পর থেকে দীর্ঘ ২২ বছর ধরে তিনি কাউন্সিলর হিসাবে জয় লাভ করে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

বিভিন্ন সময়ে আওয়ামীলীগের রাজনৈতিক আন্দোলন-সংগ্রামে রাজপথে যে ক’জন নারী নেতৃবৃন্দকে দেখা যায় তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন আলেয়া পারভীন রনজু। রাজনৈতিক জীবনে তিনি ১৮ বার গ্রেফতার হন।

আলেয়া পারভীন রনজু বর্তমানে ঢাকার লালবাগ থানা আ.লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, মহিলা আ.লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কর্যনির্বাহী সদস্য, প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি- সোনারতরী সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, সভাপতি (মহিলা কমান্ড)- বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পুনর্বাসন সোসাইটি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক- বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত।

সম্প্রতি পারিবারিক এক অনুষ্ঠান উপলক্ষে রংপুরে আসেন আলেয়া পারভীন রনজু। এসময় তিনি সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে চলে আসেন রংপুরের জনপ্রিয় অনলাইন উত্তরবাংলা ডটকম এর প্রধান কার্যালয়ে।

তিনি বলেন, রংপুর তথা উত্তরবঙ্গের সংবাদ জানতে আমি প্রতিনিয়ত উত্তরবাংলা ডটকম ভিজিট করি। এখানে আমার জন্মভূমির সংবাদ দেখে আমার খুবই ভালো লাগে। তাই আমি ঢাকা বসেই মনে মনে সিদ্ধান্ত নিয়েছি রংপুরে গিয়ে আমি উত্তরবাংলা ডটকম কর্তৃপক্ষের সাথে সাক্ষাৎ করবো।

আলেয়া পারভীন রনজু বলেন, আমি রংপুরের মানুষের জন্য কিছু করতে চাই। শেষ জীবনে যদি আমার জন্মস্থানের মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারি তাহলে সেটাই হবে আমার সবচেয়ে বড় পাওয়া।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উত্তরবাংলা ডটকম এর প্রকাশক মুরাদ মাহমুদ, বার্তা সম্পাদক সাঈদ আহমেদ নিশাদ, স্টাফ ফটোগ্রাফার রণজিত দাস সহ কর্মরত সংবাদকর্মীরা।

মতামত