Today: 20 Jul 2017 - 10:33:52 pm

আর তোমাক গুলোক কষ্ট করা নাইগব্যার ন্যায়- প্রতিমন্ত্রী রাঙ্গা

Published on Sunday, July 16, 2017 at 5:39 pm

 বাবুল মিয়া, গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের গঙ্গাচড়ার ৭ ইউনিয়নে তিস্তা নদীর ভাঙ্গন ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ দুঃস্থ পরিবারের মাঝে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে।

রবিবার উপজেলার কোলকোন্দ, লক্ষ্মিটারী, গঙ্গাচড়া গজঘন্টা, মর্ণেয়া, আলমবিদিতর ও নোহালী ইউনিয়নে চাল বিতরণ উদ্ভোধন করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব মশিউর রহমান রাঙ্গা এম.পি। উপজেলা ৭টি ইউনিয়নে ৪ হাজার পরিবারের বিপরীতে ৪০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়।

চাল বিতরণ কালে প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব মশিউর রহমান রাঙ্গা এম.পি বলেন, এইবার একনা কষ্ট করো বাহে, আর তোমাক গুলাক কষ্ট করা নাইকব্যার ন্যায়, সামনে শুকনো মৌসুমে তিস্তা/নদী খনন করার জন্যে মুই মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর কাছে ১২৬ কোটি টাকা বরাদ্দ নিছুং, কাজ করতে আরো টাকা লাগবে সেটাও মুই প্রধান মন্ত্রীর কাছে নেম, তবু মুই তোমাক তিস্তার পারের লোকজনের কষ্ট দূর করিম, ইনশাআল্লাহ। আল্লাহ আর শংকরদহ স্কুল বন্যার ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করার জন্যে তোমরা আল্লাহর কাছে দোয়া করো মুই চেষ্টা করিম স্কুলটাক ভাঙ্গন থেকে বাঁচার।

চর শংকরদহ সপ্রাবি মাঠে ত্রাণের চাল বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছাঃ ইশরাত জাহান সুমি, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বাবুল চন্দ্র রায়, গঙ্গাচড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জিন্নাত আলী, উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ও রংপুর জেলা পরিষদ সদস্য আলহাজ্ব সামসুল আলম, ইউপি চেয়ারম্যান ডা. আজিজুল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল হাদীসহ জাপার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মর্ণেয়া, লক্ষ্মিটারী, গজঘন্টা, গঙ্গাচড়া ও পরে কোলকোন্দ, আলমবিদিতর নোহালী ইউনিয়নে ত্রাণের চাল বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন।