Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭ :: ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ :: সময়- ৭ : ৫৯ পুর্বাহ্ন
Home / ক্যাম্পাস / রোকেয়া বিশ্ববদ্যিালয়ের উপাচার্যের স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে মানববন্ধন

রোকেয়া বিশ্ববদ্যিালয়ের উপাচার্যের স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে মানববন্ধন

 প্রেস বিজ্ঞপ্তি: মুক্তিযুদ্ধ ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর চেতনা, আদর্শ ও মূল্যবোধে উজ্জীবিত শিক্ষকবৃন্দের সংগঠন নীল দল এর আয়োজনে বেগম রোকেয়া বিশ্ববদ্যিালয়ের উপাচার্য ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ’র স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে ১৪ নভেম্বর ২০১৭ বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ রাসেল চত্বরে দুপুর দেড়টায় মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। নীলদলের সভাপতি ও বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. শফিক আশরাফ এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. তুহিন ওয়াদুদ, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক, ইতিহাস ও প্রত্মতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক গোলাম রব্বানী, একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের বিভাগীয় প্রধান শাহীনুর রহমান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক এটিএম জিন্নাতুল বাসার।

মানববন্ধনটি সঞ্চালনা করেন নীল দলের সাধারণ সম্পাদক ও একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আপেল মাহমুদ। শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. তুহিন ওয়াদুদ বলেন, ‘উপাচার্য কাউকে দায়িত্ব না দিয়ে ব্যক্তিগত কাজে দিনের পর দিন বাইরে থাকা বন্ধ না করলে তার বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। তিনি আরও বলেন, ‘মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও আচার্য কর্তৃক তাকে দেওয়া নিয়োগপত্রের ১ (ঘ) ধারায় উল্লেখ করা হয়েছে- তিনি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে সার্বক্ষণিক ক্যাম্পাসে অবস্থান করবেন। তিনি রাষ্ট্রপতি ও আচার্যের দেওয়া চিঠির নিয়োগ শর্ত লঙ্ঘন করে চলেছেন। ’

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী বলেন, ‘উপাচার্য পদের চেয়ে তিনি অনারারি ক্যাপ্টেন পদের বেশি গুরুত্ব দেন। এর মধ্য দিয়ে তিনি উপাচার্য পদের অমর্যাদা করেন। গোলাম রব্বানী তার এহেন কাজের তীব্র নিন্দা জানান।

আপেল মাহমুদ বলেন, দায়িত্ব পালনের জন্য উপযুক্ত সংখ্যক যোগ্য শিক্ষক থাকা সত্বেও উপাচার্য একাই ১৩টি পদ কুক্ষিগত করে রেখেছেন। এর মধ্য দিয়ে শিক্ষার কার্যক্রম ভীষণভাবে ব্যহত হচ্ছে।

শাহীনুর রহমান বলেন, উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিল ব্যবহার করে নীতি বহির্ভূতভাবে সম্ভাব্য মেয়র পদে প্রার্থীর জন্য প্রচারণা চালিয়েছেন। তিনি পদ বহির্ভূত অনেককে বিভিন্ন প্রশাসনিক দায়িত্ব দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্গানোগ্রাম লঙ্ঘন করেছেন।
এটিএম জিন্নাতুল বাশার বলেন, উপাচার্য অন্যায়ভাবে ৫৪তম সিন্ডিকেট সভায় ৯জন শিক্ষককে আপগ্রেডেশন থেকে বঞ্চিত করেছেন এবং অস্থায়ীভিত্তিতে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের স্থায়ীকরণের কোন উদ্যোগ গ্রহণ করছেন না।

ড. শফিক আশরাফ বলেন, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক পদের জন্য যোগ্যতা অর্জনকারী ৪জন প্রভাষকের মধ্য থেকে অন্যায়ভাবে রিপুল কবিরকে সাক্ষাৎকারের জন্য চিঠি দেওয়া হয়নি। আজকের মধ্যে তাকে সাক্ষাৎকারপত্র না দিলে আগামী কাল উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হবে।

উল্লেখ্য, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক রিপুল কবিরকে সাক্ষাৎকার পত্র না দেওয়ার ঘটনাকে অমানবিক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে জঘন্যতম উল্লেখ করে নীল দলের পক্ষ থেকে রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে উপাচার্যকে ১৪ নভেম্বর সকালে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ পত্র দেওয়া হয়েছে।

 

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful