Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৮ :: ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ :: সময়- ২ : ২৫ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / শোকস্তব্ধ রংপুর

শোকস্তব্ধ রংপুর

স্টাফ রিপোর্টার: রংপুরের রাজনৈতিক অঙ্গনের সুপরিচিত মুখ ও রংপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র, মুক্তিযোদ্ধা সরফুদ্দিন আহম্মেদ ঝন্টুর মৃত্যুতে কেবল রাজনৈতিক অঙ্গন নয়, গোটা রংপুরেই নেমে এসেছে শোকের ছায়া। স্থানীয় রাজনীতিবিদরা বলছেন, বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ঝন্টুর মৃত্যুতে রংপুরের রাজনৈতিক অঙ্গনে যে শূন্যতা তৈরি হয়েছে, তা পূরণ হওয়ার নয়। সাধারণ মানুষরাও বলছেন, ঝন্টু ছিলেন সাধারণ মানুষের নেতা।

আজ রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় শরফুদ্দিন আহামেদ ঝন্টুর। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। গত ৩১ জানুয়ারি স্ট্রোক করলে ঝন্টুকে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। পরদিন ঢাকায় ল্যাব এইড হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে চিকিৎসকরা বিএসএমএসইউ হাসপাতালে ভর্তি করার পরামর্শ দেন। এখানেই আইসিইউতে গত ১৫ দিন চিকিৎসায় থাকার পর আজ দুপুর সাড়ে ৩টায় মারা যান ঝন্টু।

সাবেক এই মেয়রের মৃত্যুকে গভীর শোক জানিয়েছেন সর্বশেষ রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ও নির্বাচিত মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। তিনি বলেন, ‘ঝন্টু ভাইয়ের মৃত্যুতে রংপুরবাসী একজন দক্ষ রাজনীতিবিদ ও মুক্তিযোদ্ধাকে হারালো। আমি তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।’
রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডল এক শোক বার্তায় মুক্তিযোদ্ধা ঝন্টুর মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘তার মৃত্যুতে একজন ত্যাগী নেতাকে হারালো রংপুর।’

রংপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফফর হোসেন বলেন, ‘সরফুদ্দিন ঝন্টুর মৃত্যুতে দেশ একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হারালো। রাজনৈতিক মতাদর্শের দিক থেকে আমরা এক দলে ছিলাম না। কিন্তু তার সঙ্গে আমার অনেক স্মৃতি রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়ের অনেক স্মৃতিও রয়েছে আমাদের।’

রংপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু বীর মুক্তিযোদ্ধা ঝন্টুর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখপ্রকাশ করে তার আত্মার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেছেন।

এ ছাড়া, রংপুরের বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকেও শোক জানানো হয়েছে সাবেক এই মেয়রের মৃত্যুতে। স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিরাও শোক প্রকাশ করেছেন। সাধারণ মানুষরাও তার এই মৃত্যুতে শোকাহত বলে জানিয়েছেন।

রংপুর সদরের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলমগীর বলেন, ‘ঝন্টু ভাই অনেক প্রবীণ রাজনীতিবিদ। উনি আশির দশক থেকে রাজনীতি করে আসছেন। এই নির্বাচনে (সর্বশেষ রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন) তিনি না জিতলেও জীবনে বহু নির্বাচনে তিনি জিতেছেন। সংসদ সদস্যও হয়েছে। এ থেকেই বোঝা যায়, তার জনপ্রিয়তা কত বেশি ছিল।’

স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক আব্দুল লতিফ বলেন, ‘তিনি ছিলেন রংপুরবাসীর অভিভাবকের মতো। রংপুরের মানুষের জন্য তিনি যা করেছেন, তার কোনও তুলনা হয় না।’

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful