Templates by BIGtheme NET
আজ- সোমবার, ২৫ জুন, ২০১৮ :: ১১ আষাঢ় ১৪২৫ :: সময়- ৪ : ২১ অপরাহ্ন
Home / জাতীয় / বেসরকারি শিক্ষকরাও বদলি হতে পারবেন

বেসরকারি শিক্ষকরাও বদলি হতে পারবেন

 ডেস্ক: বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির নতুন নীতিমালা জারি করেছে সরকার। এতে বেসরকারি স্কুল পর্যায়ে চারু ও কারুকলা বিষয়ে এবং কলেজ পর্যায়ে আইসিটি ও উৎপাদন ব্যবস্থাপনা বিষয়ে শিক্ষকের নতুন পদ সৃষ্টি করা হয়েছে।

এর ফলে এসব বিষয়ের শিক্ষকরাও এমপিওভুক্ত হতে পারবেন। নীতিমালা ও জনবল কাঠামোতে না থাকার কারণে তারা বর্তমানে এমপিওভুক্ত হতে পারেন না।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব নুসরাত জাবীন বানু স্বাক্ষরিত এ নীতিমালা গত ১২ জুন প্রকাশ করা হলেও বৃহস্পতিবার তা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়।

‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮’ শীর্ষক এ নীতিমালা শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ অনুমোদন করার পর প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করা হয়।

নতুন নীতিমালায় বেসরকারি শিক্ষকদের অধ্যক্ষ পদে নিযুক্তি পাওয়ার অভিজ্ঞতা পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। বলা হয়েছে, সরকার প্রয়োজন মনে করলে বেসরকারি শিক্ষকদের বদলি করতে পারবে। বর্তমানে তাদের বদলির কোনো বিধান নেই।

নীতিমালায় বলা হয়েছে, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের বয়সসীমা হবে ৩৫ বছর। এতদিন শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রারম্ভিক পর্যায়ে কোনো বয়স নির্ধারণ করা ছিল না।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের যুগ্ম সচিব (মাধ্যমিক) সালমা জাহান বলেন, নতুন এমপিও নীতিমালায় বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের বয়সসীমা ৩৫ বছর নির্ধারণ করা হয়েছে। নীতিমালা অনুযায়ী, শিক্ষকদের অবসরের বয়স হবে ৬০ বছর। এর পর কাউকে প্রতিষ্ঠানের প্রধান, সহকারী প্রধান বা সাধারণ শিক্ষক পদে পুনঃনিয়োগ বা চুক্তিভিত্তিক নিয়োগও দেওয়া যাবে না।

নীতিমালায় শিক্ষকের এমপিওভুক্তির জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা, নিয়োগে স্বচ্ছতা, নিয়োগের প্রাথমিক বয়স, অবসরের বয়সসীমাসহ বিভিন্ন দিক তুলে ধরা হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হওয়ারও শর্ত রয়েছে এতে। বলা হয়েছে, প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত না হলে শিক্ষকও এমপিওর জন্য বিবেচিত হবেন না।

নীতিমালায় বলা হয়, এক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক অন্য প্রতিষ্ঠানে সমান বা উচ্চতর পদে আবেদন করতে পারবেন। কর্মরত প্রতিষ্ঠানপ্রধানের অনুমতি নিলে তিনি বিভাগীয় প্রার্থী হিসেবে গণ্য হবেন। যদি কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে কেউ চাকরি ছাড়েন, তা হলে সর্বোচ্চ দুই বছর তার ইনডেপ (বেতন পাওয়ার কোড) নম্বর বহাল থাকবে। এর বেশি হলে তা চাকরিতে বিরতি হিসেবে গণ্য হবে। ইনডেপ নম্বর বা নিবন্ধন সনদ ছাড়া কাউকে নিয়োগ দেওয়া যাবে না।

নীতিমালা অনুযায়ী, নিয়োগের ক্ষেত্রে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) মেধাক্রম/মনোনয়ন/নির্বাচন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। শুধু একটি মাত্র তৃতীয় বিভাগ বা সমমান গ্রহণযোগ্য হবে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful