Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ২১ অক্টোবর, ২০২০ :: ৬ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ৪ : ৪৮ অপরাহ্ন
Home / আলোচিত / বিএনপির শীর্ষ নেতারা ৮ দিনের রিমান্ডে, আইনজীবীদের বিক্ষোভ

বিএনপির শীর্ষ নেতারা ৮ দিনের রিমান্ডে, আইনজীবীদের বিক্ষোভ

5 lederডেস্ক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির তিন সদস্যসহ পাঁচ নেতার জামিন আবেদন বাতিল করে প্রত্যেককে আট দিনের রিমাণ্ডে দিয়েছে আদালত। বৃহস্পতিবার সকালে তাদেরকে আদালতে হাজির করা হয়। দীর্ঘ শুনানি শেষে তাদের প্রত্যেককে আট দিন করে রিমাণ্ডে পাঠায় আদালত।

দু’দফা শুনানি শেষে দুপুরে এ আদেশ দেন মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিম। রিমাণ্ডে নেয়ার পর পরই জাতীয়তাবাদী আইনজীবীরা আদালত প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ শুরু করে। তারা সরকার ও আদালতের বিরুদ্ধে নানা স্লোগান দেয়। আইনজীবীরা বলছেন, সিনিয়র রাজনৈতিক নেতাদের নির্যাচন করার জন্যই সরকার তাদেরকে রিমাণ্ডে নিল।

জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাদেরকে রিমা-ের আদেশ দেয়ার পর এখনই তাদেরকে রিমাণ্ডে নেয়া হবে কি না সে ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো কিছু জানা যায়নি।

বিএনপির এই পাঁচ নেতা হলেন, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, এম কে আনোয়ার ও ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া এবং বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টু ও  বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস।

বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে ঘণ্টাখানেক মূলতবি থাকার পর গাড়ি ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরণের মামলায় বিএনপি নেতাদের রিমান্ড ও জামিন শুনানি ফের শুরু হয়।

এর আগে গত ৯ নভেম্বর ওই দুই মামলায় প্রত্যেকের ১০ দিন করে মোট ২০ দিনের রিমান্ড আবেদন জানিয়ে আদালতে হাজির করা হলে বৃহস্পতিবার শুনানির দিন ধার্য করে আদালত তাদের জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ সময় আসামি পক্ষও তাদের জামিনের জন্যও আবেদন করে।

বৃহস্পতিবার সকালে তাদেরকে আদালতে হাজির করা হলে মহানগর পিপি আব্দুল্লাহ আবু আসামিদের রিমান্ড চেয়ে শুনানি করেন। এরপরে আসামি পক্ষের অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া আসামিদের পক্ষে রিমান্ড বাতিল করে জামিনের শুনানি শুরু করলে ম্যাজিস্ট্রেট তাদের জানান দু’টি মামলার একটির নথি তার হাতে নেই।

এটি মহানগর দায়রা জজ আদালতে অন্য একটি মামলার শুনানিতে আছে। এ সময় আসামি পক্ষ থেকে নথিটি মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে সিএমএম আদালতে আনার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

এরপর ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ আদালতের অনুমতি নিয়ে বক্তব্যের শুরুতেই তিনি বলেন, দু’টি মামলার শুনানি একসঙ্গে হবে। কারণ মামলা দু’টির অভিযোগ একই ধরনের।

তিনি আরও বলেন, এ মামলায় কিছু নেই। আমাদেরকে অপমান করার জন্য, রাজনীতিবিদদের অপমান করার জন্যই এ মামলা আনা হয়েছে। জেলা পিপি খন্দকার আব্দুল মান্নান মওদুদের এমন বক্তব্যের বিরোধীতা করলে আদালতে উপস্থিত বিএনপি পন্থী আইনজীবীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।

এ সময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরাও হট্টগোল শুরু করলে ম্যাজিস্ট্রেট নথিটি আনার অনুমিত দিয়ে বেলা পৌনে ১১টার সময় এজলাস থেকে নেমে যান। শুনানি বর্তমানে মুলতবি রয়েছে।

গত শুক্রবার রাতে সোনারগাঁও হোটেলের সামনে থেকে স্থায়ী কমিটির তিন সদস্যকে এবং বিএনপির চেয়ারপারসনের গুলশানের বাসা থেকে বেরোনোর পর অন্য দুজনকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তাদের মতিঝিল থানার ওই দুই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে রিমান্ড চাওয়া হয়।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful