Templates by BIGtheme NET
আজ- সোমবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৯ :: ৬ কার্তিক ১৪২৬ :: সময়- ৬ : ২৫ পুর্বাহ্ন
Home / ঠাঁকুরগাও / ঠাকুরগাঁওয়ে বিজিবি-গ্রামবাসী সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত শুরু

ঠাকুরগাঁওয়ে বিজিবি-গ্রামবাসী সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত শুরু

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার বহরমপুর গ্রামে গরু জব্দ করাকে কেন্দ্র করে বিজিবি-গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ও তিনজন নিহত সহ ১৬ জন আহতের সঠিক কারণ উৎঘাটনের জন্য ৭ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি কাজ শুরু করেছে।

এর আগে নিহতদের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্থান্তর করা হয়। পরে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তের জন্য ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেন। তদন্ত কমিটিকে ৩ দিনের মধ্য তদন্ত শেষ করে জেলা প্রশাসকের কাছে প্রতিবেদন জমা দিতে বলেন। পাশাপাশি নিহতদের লাশ দাফনের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে ২০ হাজার টাকা করে প্রতিটি নিহতের পরিবারকে প্রদান করা হয়।

শনিবার বিকাল ৫টার সময় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন তদন্ত কমিটির আহবায়ক অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্টেট নুর কুতুবুল আলম। তদন্ত কমিটির অন্য ৬ জন সদস্য হচ্ছেন: পীরগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, হরিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ঠাকুরগাঁও সেক্টর সদর দপ্তর বিজিবি’র সহকারী পরিচালক, ঠাকুরগাঁও পাবলিক প্রসিকিউটর, হরিপুর থানার ওসি, স্থানীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে তদন্ত কমিটির প্রধান জানান, বিজিবি-গ্রামবাসী সংঘর্ষে ৩ জন নিহত ও ১৫ জন আহতের ঘটনায় শনিবার আনুষ্ঠানিক ভাবে তদন্ত শুরু করা হলো। ঘটনাস্থলের চারপাশ পরিদর্শন করেছে তদন্ত কমিটি। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীদের স্বাক্ষ্য এক এক করে গ্রহণ করা হবে।

তিনি আরও বলেন, সংঘর্ষে নিহত ও আহতদের পরিবারের মধ্যে যারা ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী তাদের স্বাক্ষ্য প্রথমে এবং এলাকার লোকজন যারা ঘটনা দেখেছেন তাদের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করা হবে। ঘটনাস্থলে স্বাক্ষ্য প্রদানে আগ্রহীদেরকে তালিকায় নাম লেখানোর জন্য আহব্বান করেন তিনি।

তদন্ত কমিটি ঘটনাস্থলে পরিদর্শনের সময় তদন্ত কমিটির সদস্য হরিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এমজে আরিফ বেগ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাবিবুল আলম, হরিপুর থানার ওসি আমিরুজ্জামানসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

স্বাক্ষ্য গ্রহণের প্রথম দিনে প্রকাশ্যে স্বাক্ষ্য প্রদানের জন্য ঘটনাস্থলে ৮ জন স্বাক্ষ প্রদানে রাজি হয় এবং তারা স্বাক্ষ্য প্রদান করেন। যা কাগজে লিপিবদ্ধ করা হয়। এছাড়াও যারা গোপনে স্বাক্ষ্য প্রদানে ইচ্ছুক তাদের স্বাক্ষ্য গোপনে নেয়া হবে বলে আশ্বস্থ করা হয়।

এদিকে শনিবার সকাল ১১টার সময় বিজিবি’র প্রায় ১৫০ জন সদস্য মোটরসাইকেল ও গাড়ী নিয়ে এসে হরিপুরের বহরমপুর গ্রামের হবিবর রহমান ও জসিমকে ক্যাম্পে নিয়ে যায়। তাদের কে ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদের পর আবার পুনরায় গ্রামে দিয়ে যায় বিজিবি’র সদস্যরা।

হবিবর রহমান জানান, দুপুরে হটাৎ বিজিবি এলাকায় প্রবেশ করে আমাকে গাড়ীতে তুলে নিয়ে যায়। ক্যাম্পে ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা শেষে আমাকে আবার পুনরায় গ্রামে দিয়ে যায় বিজিবি’র সদস্যরা।

ঘটনার পর পুনরায় বিজিবি’র সদস্য মোটরসাইকেল ও গাড়ী নিয়ে প্রবেশ করে টহল দেয়ায় চরম আতঙ্কে রয়েছে এলাকার লোকজন। তাদের দাবী ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত না হতে দেয়ার জন্য বিজিবি’র সদস্য দলবেধে এসে এলাকার লোকজনকে ক্যাম্পে নিয়ে যাচ্ছে এবং জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গ্রামে দিয়ে যাচ্ছেন। বিজিবির লোকজন যেন ওই গ্রামে না প্রবেশ করে এবং এলাকার লোকজনকে বিনা কারণে ক্যাম্পে ধরে না নিয়ে যায় এ জন্য জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তিনি।

উল্লেখ যে, গত ১২ ফেব্রæয়ারি ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার বহরমপুর গ্রামে গরু জব্দ করাকে কেন্দ্র করে বিজিবি সদস্য এবং গ্রামবাসীর সংঘষে স্কুল পড়ুয়া ছাত্র, শিক্ষকসহ ৩ জন নিহত হয় এবং এ ঘটনায় আহত হন ১৫ জন। গত বৃহস্পতিবার এ ঘটনায় বিজিবি বাদী হয়ে নিহতরাসহ প্রায় ২৫০ জনের বেশি গ্রামবাসীকে আসামী করে হরিপুর থানায় একটি মামলা করেছেন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful