Templates by BIGtheme NET
আজ- রবিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৯ :: ৫ কার্তিক ১৪২৬ :: সময়- ১১ : ১৪ অপরাহ্ন
Home / নীলফামারী / সুমনের লাশের অপেক্ষা॥ চারদিনেও মেলেনি সন্ধ্যান

সুমনের লাশের অপেক্ষা॥ চারদিনেও মেলেনি সন্ধ্যান

ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, নীলফামারী ৬ এপ্রিল॥ নীলফামারী জেলা সদরে বিন্যাবতীর বিরাট দিঘিতে সনাতন হিন্দু ধর্মের পূণ্য স্নানোৎসবে (বারুনীস্নান) নেমে দীঘিতে তলিয়ে যাওয়া সুমন চন্দ্র রায়(১৫) নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থীর সন্ধ্যান আজ শনিবার(৬ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত গত চারদিনও মেলেনি। গত বুধবার (৩ এপ্রিল) সকাল ৭টায় ওই দিঘিতে এ ঘটনা ঘটেছিল। ঘটনার দিন হতে চারদিন ধরে ফায়ার সার্ভিসের দুইজন ডুবুরি দিঘির ভেতর অনুসন্ধ্যান চালিয়ে সুমনকে উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করেছিল। কিন্তু সন্ধ্যান মেলাতে না পারায় উদ্ধার অভিযান বন্ধ করে দেয় তারা।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, প্রতিবছরের ন্যায় জেলা সদরের গোড়গাম ইউনিয়নের অবস্থিত বিন্যাবতীর বিরাট দিঘিতে (নীলসাগর) সনাতন হিন্দু ধর্মের তিনদিনব্যাপী পূণ্য স্নানোৎসব শুরু হয়েছিল গত বুধবার হতে। সেদিন ভোর থেকে দিঘি স্থানে হাজার হাজার সনাতন ধর্মের মানুষজন সমবেত হতে থাকে। এদের মধ্যে সুমন তিন বন্ধুকে নিয়ে দিঘিতে স্নান করতে নেমেছিল। তারা বিন্যাবতী দিঘির পশ্চিম পার্শ্বের ঘাটের ডাঙ্গায় পড়নের জামা-কাপড় রেখে পানিতে নেমে সাঁতার কেটে পূর্ব প্রান্তের ঘাটের দিকে যাওয়ার পথে দিঘির গভীর পানিতে তলিয়ে যায় সুমন। একই গ্রামের সম বয়সী সুমনের তিন বন্ধু বিপুল চন্দ্র রায়, অনুকুল চন্দ্র রায় ও উত্তম কুমার রায়ের চিৎকারে তারা সহ উপস্থিত মানুষজন তাৎক্ষনিকভাবে সুমনকে রক্ষা ও উদ্ধার করার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়।
সেদিন নীলফামারী ফায়ার সার্ভিসের সহায়তায় রংপুর হতে ডুবুরী দলের একটি ইউনিট বেলা ১১টার থেকে নিখোঁজ সুমনকে উদ্ধার অভিযান করে। পরেরদিনও দিন ভর ডুবুরি দল অনুসন্ধ্যান চালিয়ে সুমনকে উদ্ধার করতে পারেনি। ফলে ডুবুরি দল উদ্ধার অভিযান বন্ধ করে দেয়।
অপর দিকে স্থানীয় লোকজন জাল ও বড় বড় বরশী ফেলে সুমনকে উদ্ধারের চেস্টা অব্যাহত রাখলেও শনিবার পর্যন্ত সুমনের সন্ধ্যান করতে কেউ পারেনি।
নীলফামারী দমকল বাহিনীর স্টেশন ইনচার্জ এনামুল হক বলেন, আমরা রংপুর হতে ডুবুরি ইউনিট এনে দুইদিন ধরে গোটা দিঘির ২৫ ফিট তলদেশে অনুসন্ধ্যান চালিয়ে তলিয়ে যাওয়া সুমনের সন্ধ্যান পাইনি। ফলে উদ্ধার অভিযান বন্ধ রাখা হয়।
নীলফামারী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মমিনুল ইসলাম বলেন, ফায়ার সার্ভিস তিনদিন ধরে চেষ্টা চালিয়ে দিঘিতে তলিয়ে যাওয়া সুমনকে উদ্ধার করতে পারেনি। সেখানে পুলিশ মোতায়েন রেখে স্থানীয়ভাবে জাল ও বড় বড় বরশী ফেলে সুমনকে উদ্ধারের চেস্টা করা হচ্ছে। শনিবার দুপুরের বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়া শুরু হওয়ায় সেটিও স্থগিত হয়ে যায়। তবে আবহাওয়া ভাল থাকলে পুনরায় স্থানীয়ভাবে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করা হবে।
এদিকে একমাত্র ছেলে সুমন দিঘির জলে নিখোঁজ হওয়ায় বাবা ও মা সন্তানের লাশের অপেক্ষা করছে। তারা প্রতিদিন ওই দিঘিতে এসে ছেলেকে উদ্ধারের চেষ্টা প্রত্যক্ষ করছে। সুমনের বাবা কান্না বিজরিত কন্ঠে বলেন আমার ছেলেকে জীবিত পাবোনা জানি। আপনারা তার লাশটি এনে দেন। তবে সুমনের মামাত ভাই রেবতী রায় (৩০) জানান, আমরা গনকের মাধ্যমে দিঘি এলাকায় বাটি চালা দিয়েছি। গণক বলেছে সুমন দিঘির মাঝখানেই পড়ে আছে। তার মরদেহ ভেসে উঠতে আরো বেশ কিছুদিন সময় লাগবে।
এদিকে তিন দিন ব্যাপী বারুনী স্লান উৎসব শেষে হলেও সনাতন ধর্মের লোকজন এখনও বিন্নাবতীর দিঘি এলাকা ত্যাগ করেনি। তারা জানায় নিখোঁজ সুমনের সন্ধ্যান পাওয়া গেলে মানুষজন ফিরে যাবে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful