Templates by BIGtheme NET
আজ- সোমবার, ২০ মে, ২০১৯ :: ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ :: সময়- ৯ : ৪৩ অপরাহ্ন
Home / জাতীয় / একটি চুরির ঘটনা ও একজন বাবা

একটি চুরির ঘটনা ও একজন বাবা

ডেস্ক: রাজধানীর খিলগাঁওয়ে একটি সুপার শপ থেকে দুধ চুরি করে পালাচ্ছিলেন এক লোক। মুহূর্তেই ধরা পড়ে গেলেন। ‘চোর চোর’ বলে শোরগোল এবং যথারীতি উত্তম-মধ্যমও শুরু হলো। এর পর একপর্যায়ে সেই চোরকে সোপর্দ করা হলো পুলিশের কাছে। এ পর্যন্ত ঠিক আছে। কিন্তু এর পরই ঘটল কিছু নাটকীয় ঘটনা। আর এসব ঘটনার জেরে সেই চোরকেই চাকরি দিতে আগ্রহী হয়ে উঠল বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান।

এ যেন ‘বিপরীতে হিত’! আর পুরো ছক পাল্টে গেছে যার কল্যাণে তার নাম জাহিদুল ইসলাম সোহাগ। তিনি ঢাকা মহানগর পুলিশের খিলগাঁও জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (এসি)। এ গল্প পুলিশের মানবিকতারও এক অনন্য প্রকাশ। এসি জাহিদুল ইসলামের একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে মূল গল্পে আসা যাক- ‘গতকাল (শুক্রবার) রাত আনুমানিক ৮.৪৫ মিনিট।

বাকি সড়কে চেকপোস্ট ডিউটি তদারকি করছিলাম। হঠাৎ এক জায়গায় মানুষের হট্টগোল দেখতে পেলাম। ঘটনা কী তা দেখার জন্য আমার এক সাব-ইন্সপেক্টরকে পাঠালাম। কিছুক্ষণ পর বেশ কিছু লোক ২৫-৩০ বছর বয়সী একজন লোককে টেনেহিঁচড়ে আমার সামনে নিয়ে আসলো। ঘটনা জানতে চাইলাম। একজন বলল, স্যার, লোকটা চোর, চুরি করে পালাচ্ছিল।

পাশে লোকটাকে শক্ত করে ধরে রাখা এক সিকিউরিটি গার্ড আমাকে বলল, স্যার, লোকটা স্বপ্ন সুপার শপ থেকে চুরি করে পালাচ্ছিল। আমি জিজ্ঞেস করলাম, কী চুরি করেছে? সিকিউরিটি গার্ড বলল, স্যার, সে এক প্যাকেট দুধ চুরি করে পালাচ্ছিল।

আমার খটকা লাগল, আমি জিজ্ঞেস করলাম ‘দুধ’? তখন সিকিউরিটি গার্ড অতিউৎসাহ নিয়ে বলল, স্যার বাচ্চাদের ন্যান দুধের প্যাকেট। আমি লোকটার দিকে তাকালাম। আমার বয়সেরই হবে। দেখতে ভদ্রলোকই মনে হলো। তাকে জিজ্ঞেস করলাম, চুরি করলেন কেন? তিনি কেঁদে ফেললেন। তার পর বললেন, স্যার, তিন মাস হলো চাকরি নাই, বেতন নাই। ঘরে ছোট বাচ্চা, দুধ কেনার টাকা নাই। সাথে সাথে আমার ছেলের চেহারা মনে পড়ল। মনে হলো কতটা নিরুপায় হলে একজন বাবা এই কাজ করতে পারে।

ওর জায়গায় আমি থাকলেও হয়ত একই কাজ করতাম। সিকিউরিটি গার্ডকে জিজ্ঞেস করলাম, দুধের প্যাকেটের দাম কত? সে বলল, ৩৯০ টাকা স্যার। আমি তাকে ৫০০ টাকা দিয়ে বিল রাখতে বললাম এবং লোকটিকে ছেড়ে দিতে বললাম।’ তার এ স্ট্যাটাসটি ইতোমধ্যেই ভাইরাল হয়ে গেছে। এ স্ট্যাটাস দেখে অনেক প্রতিষ্ঠানই এখন সেই লোককে চাকরি দিতে চাইছে।

সর্বশেষ, যে স্বপ্নতে তিনি চুরি করেছিলেন, সেই স্বপ্নেরই একটি শাখায় তার চাকরি হচ্ছে। এমনটিই জানিয়েছেন এসি জাহিদুল। তিনি বলেন, ঘটনাটি ছোট। কিন্তু আমার কাছে খুবই স্পর্শকাতর মনে হয়েছে। মানুষ মানুষের পাশে দাঁড়াবে এটাই ধর্ম।

চারপাশে যখন একের পর এক নেতিবাচক সংবাদ আমাদের হতাশায় নিমজ্জিত করে, তখন এমন একটি সংবাদ সেই হতাশা কাটানোর দাওয়াই হয়ে আসে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেকেই এমন অনুভূতি প্রকাশ করছেন। অনেকেই এসি জাহিদুল ইসলামের মহতী এ আচরণকে স্বাগত জানিয়ে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful