Templates by BIGtheme NET
আজ- বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০১৯ :: ৬ আষাঢ় ১৪২৬ :: সময়- ৫ : ০৪ পুর্বাহ্ন
Home / ঠাঁকুরগাও / ঠাকুরগাঁওয়ের একমাত্র শিশু পার্কের বেহাল অবস্থা

ঠাকুরগাঁওয়ের একমাত্র শিশু পার্কের বেহাল অবস্থা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও শহরের প্রাণকেন্দ্র আশ্রমপাড়া এলাকায় জেলার একমাত্র সরকারি শিশু পার্কের শহীদ মিনারটি ভাঙ্গা গাছের ভাড়ে ভেঙ্গে পড়ে আছে প্রায় ১ মাস থেকে।

একে তো জরাজীর্ন ভঙ্গুর শিশু পার্কের প্রতিটি রাইটস অপরদিকে সংস্কার করা নতুন শহীদ মিনারটি ভেঙ্গে পড়ে আছে। কিন্তু গত ১ মাস ভেঙ্গে পড়ে থাকা শহীদ মিনারটি সংস্কার করার তো কোন উদ্যোগ নেই এমনকি ভাঙ্গা গাছটি সরিয়ে নেওয়ার ও কেও নেই। শুধু চলছে নামে মাত্র দপ্তরে দপ্তরে চিঠি চালাচালি।

ঠাকুরগাঁও পৌরসভা কতৃপক্ষ বলছে, গাছটি টেন্ডারের মাধ্যমে সরানোর জন্য লিখিত ভাবে বন বিভাগকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করতে বলা হয়েছে। কিন্তু অপরদিকে বন বিভাগ বলছে এই রকম কোন চিঠি এখনো পায়নি তারা। এই ভাবে একে অপরের উপর দোষ চাপিয়ে দিয়ে কোন প্রকার সমাধানের উদ্যেগ গ্রহন করা হচ্ছে না।

গত ১৬ এপ্রিল রাতে কালবৈশাখী ঝড়ে শহীদ মিনারের পেছনের শতবর্ষী একটি আমগাছ ভেঙ্গে পড়ে শহীদ মিনারের উপর। আমগাছ শহীদ মিনারের উপর পড়ায় শহীদ মিনারটিও ভেঙ্গে যায়। ঘটনার ১ মাস অতিবাহীত হলেও এখনো সরানো হয়নি ভেঙ্গে পড়া আমগাছ, মেরামত হয়নি শহীদ মিনারটি।

স্থানীয়দের দাবী কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে ভেঙ্গে পড়া আমগাছটি সেখানেই পড়ে রয়েছে। ফলে শিশুরা বঞ্চিত হচ্ছে খেলাধুলা থেকে। আর এভাবে ভেঙ্গে পড়ে থাকা শহীদ মিনার দেখে আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম শহীদ মিনারের প্রতি এই অবহেলা থেকে একটি খারাপ শিক্ষা পাবে।
ঠাকুরগাঁও আশ্রম পাড়া এলাকার বাসিন্দা জয়দেব রায় বলেন, বাঙ্গালী জাতীর বাংলা ভাষার জন্য যারা জীবন দিয়েছে তাদের স্বরণে নির্মিত এই শহীদ মিনার এইভাবে অবহেলায় পড়ে রয়েছে। বাংলা ভাষার সাথে এই শহীদ মিনার অতপ্রতভাবে জড়িত। সেখানে শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত একটি শহীদ মিনার এতদিন ধরে ভেঙ্গে পড়ে আছে সেটা দেখার কেও নেই। শহীদ মিনারটির উপর ভেঙ্গে পড়ে আছে যে আম গাছটি সেটার উপর ছোট শিশুরা খেলতে গিয়ে দূর্ঘটার শিকারও হচ্ছে। অন্তত শিশুদের কথা চিন্তা করেও পৌর কর্তৃপক্ষের উচিৎ ছিলো ভাঙ্গা গাছটি সড়ানো।
স্থানীয় এলাকাবাসী রমজান আলী বলেন, গাছটি দ্রুত সড়িয়ে শহীদ মিনারটি আবারো সংস্কারের জন্য জরুরী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এলাকাবাসী একত্রিত হয়ে ইতোপূর্বে পৌর মেয়র বরাবরে একটি লিখিত দিয়েছি। তাৎক্ষনিক পৌর মেয়র জানান গাছ কাটার অনুমতি তাদের নেই। এটা বন বিভাগের সম্পত্তি। তাই পৌরসভা কতৃপক্ষ কোন প্রদক্ষেপ গ্রহন করতে পারছে না।
তিনি আরও বলেন, আশ্রম পাড়া শিশু পার্ক এলাকায় আরো কিছু ঝুঁিকপূণ্য গাছ আছে যেগুলো হালকা বাতাস হলেই ভেঙ্গে পড়ে বড় ধরণের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।
এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও পৌরসভার মেয়র মির্জা ফয়সাল আমিন বলেন, ইতোমধ্যে পৌরসভা থেকে বন বিভাগককে লিখিত ভাবে অবহিত করা হয়েছে। তাদের অনুমতি পেলে দ্রæত সময়ে টেন্ডারের মাধ্যমে গাছ বিক্রয় করে শহীদ মিনারের কাজ করা হবে।
ঠাকুরগাঁও বন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহন শাহ আকন্দের কাছে গাছ কাটার লিখিত সম্পর্কে হানতে চাইলে তিনি বলেন, আশ্রমপাড়া শিশু পার্কের গাছের বিষয়ে কোন চিঠি পায়নি। চিঠি পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
স্থানীয়দের দাবী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেন দ্রুত সময়ে সকল প্রকার দাপ্তরিক কাজ শেষ করে শহীদ মিনারটিকে পূনরায় সংস্কার করে। এতে শিশু পার্কের সৌন্দর্য ফিরিয়ে আসবে ও শিশুদের খেলার উপযোগী হবে আবার শিশু পার্কটি।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful