Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০ :: ৮ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ৮ : ৫৯ পুর্বাহ্ন
Home / আলোচিত / ফখরুল-আশরাফের একান্তে ৪৫ মিনিটের বৈঠক

ফখরুল-আশরাফের একান্তে ৪৫ মিনিটের বৈঠক

ashraf fokrulডেস্ক: চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যে যখন মানুষ আতঙ্কিত। এমন সময় বাজলো মিলনের সুর। আর এ সুরের বাঁশি বাজালেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও প্রধান বিরোধী দল বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার রাজধানীর বনানীর ১৬ নম্বর রোডে বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য আশরাফ উদ্দিন নিজামের বাসায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যা সোয় ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত তারা প্রায় পৌনে একঘণ্টা একান্তে বৈঠক করেন।

মির্জা ফখরুলের ঘনিষ্ট সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, বৈঠকের আগে শনিবার আশরাফ ও ফখরুলের মধ্যে দুইবার ফোনে কথা হয়। তবে বৈঠকটি প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা গওহর রিজভীর বাসায় হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিষয়টি অনেকটাই জানাজানি হয়ে যায়। তাই মিডিয়ার চোখ ফাঁকি দিতে পরবর্তীতে স্থান পরিবর্তন করে নিজামের বাসায় বৈঠক করা হয়।

আরেকটি সূত্র জানিয়েছে, বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি গাড়ি চালিয়ে মির্জা ফখরুলকে সংসদ সদস্য নিজামের বাসায় নিয়ে যান। তবে বৈঠকের বিষয়টি ফখরুল অস্বীকার করেছেন।

উল্লেখ্য, গত ১৮ অক্টোবর নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর তিন দিনের মাথায় গত ২১ অক্টোবর বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দায়িত্বে থাকা ২০ উপদেষ্টার মধ্য থেকে আওয়ামী লীগ পাঁচজন ও বিএনপি পাঁচজনের নাম প্রস্তাব করে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের প্রস্তাব দেন। এই প্রস্তাব দেয়ার পরদিন ২২ অক্টোবর সকালে বিএনপির চেয়ারপারসনের দেয়া নির্বাচনকালীন সরকারের প্রস্তাব এবং তা নিয়ে আলোচনার উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদককে চিঠি দেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব।

২২ অক্টোবর মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিএনপির একটি প্রতিনিধিদল মির্জা ফখরুলের চিঠিটি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফের কাছে পৌঁছে দেয়। চিঠি পেয়ে মির্জা ফখরুলকে ফোন করেন সৈয়দ আশরাফ।

এরপর নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে আলোচনার বিরোধীদলীয় নেতাকে টেলিফোনে গণভবনে আমন্ত্রণ জানান প্রধানমন্ত্রী। শর্ত দেন ঘোষিত হরতাল প্রত্যাহার করতে হবে। কিন্তু হরতাল প্রত্যাহার না করায় আর সেইে আলোচনা হয়নি।

পরবর্তীতে নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে বড় দুই দলকে সমঝোতায় রাজি করানোর চেষ্টার অংশ হিসেবে ব্যবসায়ী নেতারা উদ্যোগ নেয়। তবে ব্যবসায়ী নেতারা দুই প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি ও আওয়ামী লীগের মহাসচিব পর্যায়ে আলোচনার প্রস্তাব করলে তাতে বিরোধী দলীয় নেতা সম্মতি দিলেও প্রধানমন্ত্রী সাড়া দেননি।

গত বৃহস্পতিবার প্রধান দুই দলের মহাসচিব পর্যায়ে বৈঠকে বসতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওইদিন বিকেলে সেনাকুঞ্জে সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় ফখরুলকে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। ওই অনুষ্ঠানে চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ মো. আবদুস শহীদের সঙ্গেও এ বিষয়ে ফখরুলের আলোচনা হয়।

এরই ধারবাহিকতায় সৈয়দ আশরাফকে ফখরুলের সঙ্গে আলোচনায় বসতে বলেন রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদও। গত ১৯ নভেম্বর খালেদা জিয়ার বৈঠকের পর রাষ্ট্রপতি সৈয়দ আশরাফকে আলোচনার কথা বলেন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful