Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০ :: ১৩ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ১১ : ১৯ অপরাহ্ন
Home / আলোচিত / রংপুরে জেডিসি পরীক্ষায় জেএসসির বৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্রীর অংশ গ্রহন নিয়ে তোলপাড়

রংপুরে জেডিসি পরীক্ষায় জেএসসির বৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্রীর অংশ গ্রহন নিয়ে তোলপাড়

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ফরহাদুজ্জামান ফারুক, স্টাফ রিপোর্টার: রংপুরের পীরগঞ্জে জেএসসিতে বৃত্তিপ্রাপ্ত (৮ম শ্রেনীতে) এক ছাত্রী এবার জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। এ ছাড়াও ৯ম শ্রেনীর আরও ৭জন নিয়মিত শিক্ষার্থী জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নেয়া নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় চলছে।

জানা গেছে, পীরগঞ্জের ৫৩টি মাদরাসার জেডিসি পরীক্ষার্থীরা ওই কেন্দ্রে পরীক্ষা দেয়। ওই কেন্দ্রে মন্ডলের বাজার দাখিল মাদরাসার ২১ জন জেডিসি পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৮জন ৯ম শ্রেনীর নিয়মিত শিক্ষার্থী। এর মধ্যে উপজেলার পানবাজার ডিএম উচ্চ বিদ্যালয়ের জেএসসিতে বৃত্তিপ্রাপ্ত এক ছাত্রীসহ ৯ম শ্রেনীর ৫ জন এবং মাদারগঞ্জ সিনিয়র মাদরাসার ৯ম শ্রেনীর ৩ জন বলে অভিযোগ উঠে।

এর ফলে পরীক্ষা তদারকির দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তা- উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা- হারুন অর রশীদ ও উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার কাইয়ুম শরীফ উম্মে সৈয়দা ঐশী নামে এক পরীক্ষার্থীনীর কাছে জানতে পারেন সে পানবাজার ডিএম উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর নিয়মিত ছাত্রী এবং সে গত বছর জেএসসিতে বৃত্তি পেয়েছে।

চলতি জেডিসি পরীক্ষায় ওই পরীক্ষার্থীর রোল নং- ২১৪৮০০, রেজিঃ নং- ১৩১৮৫৯৯০৭৫, সেশন ২০১৩ইং। সে মন্ডলের বাজার দাখিল মাদরাসা থেকে (কোড নং- ১২৭৯০২) জেডিসি পরীক্ষাতে নিয়মিত ছাত্রী হিসেবে অংশ নেয়। দায়িত্বরত কর্মকর্তারা বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রফিকুল হককে জানালে তিনি এসিল্যান্ড রাশেদুল ইসলামকে সাথে নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষক জানান- শুধু একটি মাদরাসায় নয়, পাশের হার বাড়াতে এবং সরকারী অংশের বেতনভাতা ঠিক রাখতেই একাধিক মাদরাসায় এ ধরনের কৌশলের আশ্রয় নেয়া হয়ে থাকে। ওই মাদরাসার সুপার আফজাল হোসেন বিষয়টি না লেখার অনুরোধ করেন।

এ ব্যাপারে কেন্দ্র সচিব অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম বলেন- আমরা সঠিক রেজিষ্ট্রেশন পেয়েই পরীক্ষা দিতে দিয়েছি। পরীক্ষার শেষ দিনে অভিযোগটি পাওয়ায় এই মুহুর্তে ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হচ্ছে না। তদারকি কর্মকর্তা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা- হারুন অর রশীদ ও উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার কাইয়ুম শরীফ বলেন- বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানানো হয়েছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহতাব হোসেন বলেন- অভিযোগ পেয়েছি, ইউএনও স্যারও বলেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার রফিকুল হক বলেন- বিষয়টির ব্যাপারে তদন্ত চলছে। তদন্ত প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful