Templates by BIGtheme NET
আজ- মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯ :: ৭ কার্তিক ১৪২৬ :: সময়- ৮ : ২২ অপরাহ্ন
Home / রংপুর / “এরশাদের শেষ ঠিকানা রংপুরের পল্লী নিবাসে হউক”

“এরশাদের শেষ ঠিকানা রংপুরের পল্লী নিবাসে হউক”

মমিনুল ইসলাম রিপন: সাবেক রাষ্ট্রপতি,জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শেষ ঠিকানা হউক রংপুরের পল্লী নিবাস এমনটাই আশা করছেন রংপুরের জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ। তাদের দাবি এরশাদকে রংপুরেই সমাহিত করা হউক। বাবা- মায়ের পাশে অথবা এরশাদের নিজহাতে গড়া স্বপ্নের পল্লী নিবাসে।

রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মোস্তফিজার রহমান মোস্তফা জানান, স্যারের দাফন রংপুরে করার জন্য গতসোমবার আমি সংবাদ সম্মেলন করেছি। আমাদের রাজনৈতিক পিতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ স্যার পৃথিবী থেকে চিরবিদায় নিয়েছে। এক্ষেত্রে আমাদের একমাত্র দাবি স্যারের অসিয়ত করা স্থান পল্লীনিবাসে তাকে সমাধি করতে হবে। মোস্তফা আরো বলেন, ‘এরশাদ স্যার অসুস্থ শরীর নিয়ে এ বছরের মার্চে রংপুরে এসেছিলেন। তিনি নিজেই বলেছিলেন আমার শরীর ভালো নেই। আমি যেকোনো সময় মৃত্যু বরণ করতে পারি। তোমরা আমার ডিজাইনে পল্লীনিবাসে আমার সমাধি কমপ্লেক্সে করিও। আমি মৃত্যুরপরও তোমাদের মাঝে থাকতে চাই।
জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফখর -উজ-জামান জাহাঙ্গির বলেন, আমরা চাই আমাদের নেতাকে রংপুরেই কবরস্থ করা হউক। রংপুরের মানুষ সব সময় যেন তার কবর জিয়ারত ও দোয়া কামনা করতে পারে এ জন্য আমরা চাই তাকে রংপুরের দাফন করা হউক।
পান দোকানি আব্দুল মালেক বলেন, এরশাদের বাবা মায়ের কবর রংপুরে । তাই আমরা দাবি করছি তাকে রংপুরই কবর দেয়া হউক।
গত ২৮ জুন রংপুরে আসার কথা ছিল এরশাদের। তার সফরে কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি ছিল না। বাড়ির নির্মাণ কাজ দেখতেই তিনি রংপুরে আসতেন এবং নির্মাণাধিন বাড়িতেই এবার উঠার কথা ছিল তার। কিন্তু অসুস্থতার কারণে তিনি রংপুরে আসতে পারেননি। সুস্থ্য হয়ে তার নিজ হাতে গড়া স্বপ্নের ভবন পল্লী নিবাস দেখা হলনা। দুই রাত অবস্থান শেষে ৩০ জুন এরশাদের ঢাকায় ফেরার সূচিও চূড়ান্ত হয়েছিল। শারীরিক অসুস্থতার কারণে হেলিকপ্টারে করে তার আসার কথা ছিল। কিন্তু অসুস্থতার কারণে আশা হয়নি। রংপুর শহরে অবস্থিত এরশাদের ব্যক্তিগত আবাস ‘পল্লী নিবাস’ এটি সংস্কার করে তিনতলা ভবন গড়া হচ্ছে। এতদিন বাউন্ডারির মধ্যে আলাদা আলাদা ভবন ছিলো। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ থাকতেন দ্বিতল ভবনে। আর পিএসসহ অন্যান্য স্টাফদের ছিলো একতলা ভবন। পুরাতন ভবন ভেঙে তিনতলা কমপ্লেক্স করা হচ্ছে। দ্বিতীয় তলায় এরশাদ ও ছেলে এরিখের কক্ষ তৈরি করা হয়েছে। ভবনটির দ্বিতীয় তলার কাজ শেষ, চলমান রয়েছে তৃতীয় তলার ফিনিশিংয়ের কাজ। এবার এলে সেখানেই থাকার কথা ছিল এরশাদে। সর্বশেষ এরশাদ রংপুর সফরে এসেছিলেন ৩ মার্চ। তখনও বাড়ির কাজ দেখতেই রংপুরে এসেছিলেন । রোববার সকালে সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে চির বিদায় নেন সাবেক এই রাষ্ট্রপতি। মৃত্যু কারণে এরশাদের পল্লী নিবাস দেখা হলনা। তাই রংপুরের মানুষের দাবি সাবেক এই রাষ্ট্রপতিকে পল্লী নিবাসেই দাফন করা হউক।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful