Templates by BIGtheme NET
আজ- সোমবার, ১৯ অগাস্ট, ২০১৯ :: ৪ ভাদ্র ১৪২৬ :: সময়- ১০ : ১২ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ২০৫ বর্গকিলোমিটারের জন্য মাত্র ৬ টি ফগার মেশিন

রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ২০৫ বর্গকিলোমিটারের জন্য মাত্র ৬ টি ফগার মেশিন

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশের দ্বিতীয় ২‘শ ৫বর্গ কিলোমিটার আয়তনের রংপুর সিটি কর্পোরেশনে ৬ জন ম্যান পাওয়ার দিয়ে চলছে ফগার যন্ত্র দিয়ে মশা মারার ওষুধ ছিটানোর কাজ।মশা মারার ওষুধ ছিটানোর জন্য নয়টি ফগার যন্ত্র রয়েছে। এর মধ্যে দুটি নষ্ট হয়ে গেছে। এই কম যন্ত্র ও মাত্র ৬ জন মানুষ দিয়ে এত বড় এলাকায় মশার ওষুধ ছিটাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে রংপুর সিটি কর্পোরেশনকে।

রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, রংপুর সিটির ৩৩ ওয়ার্ডে ৩৩টি ফগার যন্ত্র থাকলে পুরো নগরে মশা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হতো। গত ২ আগষ্ট ১৫ ড্রাম ঔষধের মধ্যে ছয়জন ম্যান পাওয়ার দিয়ে ১০ ড্রাম মশক নিধন ঔষধ স্প্রে করতে পেরেছি। এখন রয়েছে মাত্র ৫ ড্রাম। মশক নিধন ঔষধের জন্য ঢাকা সিটি কর্পোরেশনে চাহিদা পঠানো হয়েছে। মশা নিধনের ফগার যন্ত্র চালানোর জন্য ৯ জনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।  রংপুর সিটি কর্পোরেশনে গত ২২ জুলাই থেকে মশক নিধন কর্মসূচি শুর হয়েছে। আগামী অক্টোবর পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলবে।

সচেতন নাগরিক ও প্রবীণ সাংবাদিক আবুসাহেদ মন্টু বললেন, মশা নিধনে সিটি কর্পোরেশনকে এগিয়ে আসতে হবে। শহর পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। জনসচেতনতা বাড়াতে হবে। মশক নিধন ওষুধ ছিটিয়ে নিয়মিত স্প্রে করতে হবে। এ জন্য পর্যাপ্ত উপকরণ কর্পোরেশনের থাকতে হবে।

সিটি কর্পোরেশন ও পরিচ্ছন্ন-কর্মীরা জানায়, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের আয়তন ২০৫ বর্গকিলোমিটার। ওয়ার্ড ৩৩টি। একটি ফগার যন্ত্র দিয়ে ওষুধ ছিটালে একেকটি ওয়ার্ডে সাত-আট দিন করে লাগবে। সে হিসাবে পুরো নগরে ওষুধ ছিটানোর জন্য অন্তত ৩৩টি ফগার যন্ত্র দরকার। কিন্তু এ কর্পোরেশনে আছে মাত্র নয়টি যন্ত্র। এর মধ্যে দুটি নষ্ট। বাকি ৬টি যন্ত্র দিয়ে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন ওয়ার্ডে কোনোমতে কাজ চালানো সম্ভব বলে মনে করেন পরিচ্ছন্ন-কর্মী ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

দেখা গেছে, রংপুর নগরের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত ১২ কিলোমিটার দীর্ঘ শ্যামাসুন্দরী খালটি দীর্ঘ সময় ধরে সংস্কার না হওয়ায় ঝোপ-জঙ্গলে ভরে গেছে। সংস্কারের অভাবে পানি জমে ডোবায় পরিণত হয়ে আছে। অনেক স্থানে মানুষজন বাসাবাড়ির বর্জ্য, প্লাস্টিকের পাত্র খালের মধ্যে ফেলেছে। ফলে পুরো খাল মশার উৎপত্তিস্থল হয়ে উঠেছে।

নগরীর মুলাটোল এলাকার খালপাড়ের বাসিন্দা সম্রাট ইসলাম বলেন, এই খালই হলো মশার উৎপত্তিস্থল। অথচ এই খালের কোনো সংস্কার করা হয় না। দেশব্যাপী ডেঙ্গু জ্বর দেখা দেওয়ায় সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে মশক নিধনে ওষুধ ছিটানোর কাজ শুরু হয়েছে। এখন মশার যন্ত্রণায় দিনের বেলাও ঘরে কয়েল জ্বালিয়ে রাখতে হচ্ছে।

রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা আরও বলেন, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের আগের ফগার যন্ত্রগুলো নষ্ট ছিল। তিনি নতুন করে নয়টি যন্ত্র ক্রয় করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬টি মেশিন দিয়ে নগরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে পর্যন্ত ওষুধ ছিটানোর কাজ চলছে।  পুরো নগরে ওষুধ ছিটানোর জন্য অন্তত ৩৩টি ফগার যন্ত্র দরকার। এ ছাড়া জনসচেতনতা বাড়াতে ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের মাধ্যমে ৩৩টি ওয়ার্ডে সভা ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ অব্যাহত রয়েছে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful