Templates by BIGtheme NET
আজ- বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২০ :: ৭ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ৬ : ৫৫ পুর্বাহ্ন
Home / আলোচিত / নির্বাচন পেছানোর অনুরোধ

নির্বাচন পেছানোর অনুরোধ

sk_7380ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে নির্বাচন পেছানোর অনুরোধ জানিয়েছেন জাতিসংঘের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো। জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নির্বাচন পেছানোর এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের। তারা যদি চান এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।

শনিবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তারানকোর বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী সাংবাদিকদের এসব কথা জানান।

গওহর রেজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী তারানকোকে বলেছেন,‘যা কিছু করার সংবিধান অনুযায়ীই করা হবে। আমরা চাই সব দল নির্বাচনে আসুক। কিন্তু সবকিছুই সংবিধানের মধ্যে থেকেই করতে হবে। এর বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই।’

এসময় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী সব সময় সংলাপের জন্য আন্তরিক। তিনি সব সময়ই চান সব দল নির্বাচনে অংশ নেবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী তারানকোকে জানিয়েছেন মহাজোট সরকারের সময় ছয় হাজারের বেশি নির্বাচন হয়েছে। এতে ৬৪ হাজারের বেশি প্রতিনিধি যাদের মধ্যে বিরোধী দলের লোকজনই বেশি ছিল। এসব নির্বাচনকে প্রভাবিত করার জন্য বিরোধীদল কোনো অভিযোগ তোলেনি।

এর আগে ঢাকায় সফররত অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো শনিবার বিকাল ৩টা ৫৫ মিনিটে গণভবনে যান।  শনিবার দুপুরে হোটেল সোনারগাঁয়ে আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে  বৈঠক করেন জাতিসংঘের এ দূত।

বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ সাংবাদিকদের জানান, সব দলের অংশগ্রহণে বাংলাদেশে নির্বাচন দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘের মতানুযায়ীই নির্বাচন অনুষ্ঠানের চেষ্টা করা হবে বলেও জানান আশরাফ।

শনিবার সন্ধ্যায় বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকে বসেন তারানকোর। শুক্রবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনের উদ্দেশে ঢাকা পৌঁছেন জাতিসংঘের এ দূত।

শুক্রবার রাতে ঢাকায় আসা তারানকো সকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে বৈঠক করে নিজের কর্মসূচি শুরু করেন। মন্ত্রী ও সচিবের সঙ্গে বৈঠকে জাতিসংঘ মহাসচিবের দূত সবার অংশগ্রহণে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের ওপর জোর দেন বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

সাত মাস আগে জাতিসংঘ মহাসচিবের দূত হিসেবে এসে সংলাপের তাগিদ দিয়ে যান তারানকো। তবে তারপর নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা এবং বিরোধী দলের টানা অবরোধে দূরত্ব আরো বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে আবার এলেন তিনি।
নির্বাচনকে ঘিরে রাজপথে সংঘাত-সহিংসতার মধ্যে তার এই সফরকে দেখা হচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে মধ্যস্ততার শেষ উদ্যোগ হিসেবে।
গত মে মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে আলোচনা করে বান কি-মুনের দুটি চিঠিও তাদের হাতে তুলে দিয়েছিলেন জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব।
এরপরে পরিস্থিতির কোনো উন্নতি না হওয়ায় প্রধান দুই নেত্রীকে চিঠি লেখেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন, যাতে সঙ্কট সমাধানে সংলাপের আহ্বান জানানো হয়।
Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful