Templates by BIGtheme NET
আজ- বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী, ২০২০ :: ১০ মাঘ ১৪২৬ :: সময়- ১০ : ১০ অপরাহ্ন
Home / জাতীয় / “চোখের পলকে কখন যে কী ঘটবে, কেউ জানে না”

“চোখের পলকে কখন যে কী ঘটবে, কেউ জানে না”

ডেস্ক: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের শত্রু অনেক বেশি দাবি করে নেতাকর্মীদের সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘আমরা সব সময়ই সুদিনের প্রত্যাশায় থাকি, সুদিন চলছে। কিন্তু একথা মনে রাখবেন, এই জোয়ার ভাটার দেশে চোখের পলকে কখন যে কী ঘটবে, কেউ জানে না। ১৫ আগস্টের আগে আমরা কেউ ভাবিনি, ১৪ আগস্টের রাত শেষে সুর্য উঠার আগে ইতিহাসের সবচেয়ে কলঙ্কিত হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হবে।’

সোমবার বিকালে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কৃষক লীগের আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ‘কৃষকের স্বাস্থ্যসেবা’ বিষয়ক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ, অনেক শত্রুতা আছে, অনেক ষড়যন্ত্র আছে। বাংলাদেশে শেখ হাসিনার যে উন্নয়ন এবং অর্জন এর পক্ষে যেমন জনগোষ্ঠীর সমর্থন আছে তেমনি শেখ হাসিনা উন্নয়ন অর্জনে সঙ্গে শত্রুতাও আছে। এই উন্নয়ন ও অর্জনকে নস্যাৎ করার চক্রান্ত বাংলাদেশে আছে এবং সেটা প্রতিহত করতে হলে, পরাজিত করতে হলে আমাদের শক্তিশালী সুশৃঙ্খল সংগঠন গড়ে তোলার কোনো বিকল্প নেই।’

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে কাদের বলেন, ‘কিন্তু মনে রাখবেন সংগঠন শক্তিশালী থাকলে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলা করার সাহস আমাদের থাকবে। আমরা সামর্থ্য অর্জন করতে পারবো।’

সিটি নির্বাচনে জয়ের আশা প্রকাশ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমরা ভালো প্রার্থী দিয়েছি, আমরা ক্লিন ইমেজের স্বচ্ছ প্রার্থী দিয়েছি। এই দাবি বিএনপি করতে পারবে না। আমাদের প্রার্থীদের ইমেজের কোনো সংকট নেই। আমরা বিশ্বাস করি জনগণ ক্লিন ইমেজের, স্বচ্ছ ভাবমূর্তির প্রার্থীকেই ভোট দেবে এবং আমরা জয়ের ব্যপারে আশাবাদী। আমাদের প্রার্থীরাই জয়ের চালিকাশক্তি।’

সোমবার সকালে শেরেবাংলা নগরে চন্দ্রিমা উদ্যানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ‘ভয়মুক্ত পরিবেশে ভোট হলে উত্তর ও দক্ষিণ সিটির দুই মেয়র প্রার্থীসহ দলীয় সমর্থিত কাউন্সিলররা বিজয়ী হবে।’ এর জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘স্বপ্ন দেখুন, কোনো অসুবিধা নেই। নির্বাচন ভয়মুক্ত হবে, স্বচ্ছ, অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে। এতে কোনো সন্দেহ নেই।’

কাদের বলেন, ‘বিএনপির সমস্যা হচ্ছে, তারা একটা নালিশ আর অভিযোগের দলে পরিণত হয়েছে। তারা নির্বাচনের ফল গণনার শেষ পর্যন্ত বলতে থাকে নির্বাচনে জালিয়াতি হয়েছে, কারচুপি হয়েছে, পক্ষপাতযুক্ত নির্বাচন হয়েছে। এসব অবান্তর অভিযোগ তারা সিলেট সিটি নির্বাচনেও দিয়েছে, পরে দেখা গেল তারা জিতেছে। শেষ পর্যন্ত তারা বলতে থাকবে, এটা তাদের পুরোনো অভ্যাস। তাদের অভয় দিলেও বলবে, তারা নিজেরাই ভয়ের মধ্যে থাকে।’

কৃষক লীগের বিতর্কিতদের স্থান না দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিতর্কিত কোনো লোককে কৃষক লীগের কমিটিতে স্থান দেবেন না। অনেকে কৃষক লীগের ধারেকাছেও নেই, অথচ কৃষক লীগের পরিচয় দেয়। এটা যেন ভবিষ্যতে না হয়। কৃষকের কর্মক্ষেত্রে নেই এমন ব্যক্তিদের কৃষক লীগের কমিটিতে যেন স্থান দেওয়া না হয়।’

কৃষক লীগের সভাপতি সমীর চন্দ্র চন্দের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, স্বাচিপের মহাসচিব ডা. এম এ আজিজ, কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলসুম স্মৃতি প্রমুখ।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful