Templates by BIGtheme NET
আজ- রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০২০ :: ১৭ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ৬ : ৫৫ পুর্বাহ্ন
Home / নীলফামারী / নীলফামারী নির্বাচন অফিসে বোমা হামলা ও ভাংচুর; পেট্রোল বোমা ও ককটেল উদ্ধার

নীলফামারী নির্বাচন অফিসে বোমা হামলা ও ভাংচুর; পেট্রোল বোমা ও ককটেল উদ্ধার

koktelইনজামাম-উল-হক নির্ণয়, নীলফামারী ৮ ডিসেম্বর ॥ নীলফামারী জেলা নির্বাচন অফিসে পেট্রোল বোমা বিস্ফোরন ঘটিয়ে হামলা চালিয়েছে জামায়াত শিবির ক্যাডাররা। রবিবার রাত পনে ৮টার দিকে পর পর ৪টি পেট্রোল বোমা বিস্ফোরন ঘটনায় তারা। এ সময় নির্বাচন অফিসে নিয়োজিত পাহাড়ায় থাকা ৩ জন আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্যকে হামলাকারীরা জিম্মি করে রাখে। হামলাকারীরা নির্বাচন অফিসের ব্যাপক ভাংচুর চালায়। বোমা বিস্ফোরনে গোটা জেলা শহর ভয়াবহ বিকট শব্দে কেঁপে উঠে। পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে গেলে হামলাকারীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ ৪ রাউন্ড টিয়ারশেল ও ৮ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুঁড়লে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। 

ঘটনার পর পরেই সেখানে ছুটে যায় জেলা প্রশাসক,পুলিশ সুপার । সেখান থেকে পুলিশ অবিস্ফোরিত ৪টি পেট্রোল বোমা ও ৮টি ককটেল উদ্ধার করে। এ ঘটনায় জেলা নির্বাচন অফিস সহ গোটা শহরজুড়ে পুলিশ টহল জোরদার করা হয়েছে। এ ঘটনায় শহর জুড়ে চরম উত্তেজনা ও আতংক বিরাজ করছে।

অপর দিকে সন্ধ্যা ৭টা দিকে জামায়াত শিবির ডিমলা উপজেলার খাগাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের টুনিরহাটে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতাদের উপর জঙ্গী হামলা চালিয়ে শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করেছে জামায়াত শিবির। এতে ৩০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আরিফ (৪০) ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সহিদুল ইসলাম (৫৫) কে আশংকাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। বাকীদের ডিমলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ সেখানে ১ শিবির ক্যাডার কে আটক করেছে।

জেলা সদর উপজেলা পরিষদের ক্যাম্পাস চত্বরে জেলা নির্বাচন অফিসের দ্বিতল ভবনের সামনে পাহাড়ায় নিয়োজিত ছিল ৩ জন আনসার সদস্য ছিলেন। এদের মধ্যে ফরিদুল ইসলাম ভুট্ট জানায় রাত পনে ৮টার ১৫/২০ জনের শিবির ক্যাডাররা নির্বাচন অফিসে এসে তাদের জিম্মির মাধ্যমে নির্বাচন অফিসের ভেতরে প্রবেশ করে ৫টি রুমের কাঁচের জানালা ভাংচুর করতে থাকে। এরপর ৪টি পেট্রোল বোমা বিস্ফোরন ঘটায় । ঘটনার খবরে পুলিশ ছুটে গেলে সেখানে শিবির ক্যাডারদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ ৪ রাউন্ড টিয়ালসেল, ৮ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়লে শিবির ক্যাডাররা পালিয়ে যায় বলে নীলফামারী থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই নুর আলম জানায়।

ঘটনার পর জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেন, পুলিশ সুপার জোবায়েদুর রহমান সহ অসংখ্য পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। নীলফামারী থানার ওসি আবু আককাস আহমেদ জানান নির্বাচন অফিসের সামনে থেকে অবিস্ফোরিত অবস্থায় ৪টি পেট্রোল বোমা ও ৮ টি ককটেল উদ্ধার করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার জোবায়দুর রহমান সাংবাদিকদের কোন প্রশ্নের জবাব না দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।
জেলা নির্বাচন অফিসার জাকিয়া সুলতানা জানান ঘটনার সময় অফিসে কোন কর্মকর্তা ও কর্মচারী ছিলেননা। অফিসের জরুরী কাগজপত্রের ক্ষয়ক্ষতি না হলেও অফিসের ৫টি রুমের কাঁচের জানালা ভাংচুর করে হামলাকারীরা।

অপর দিকে ডিমলা উপজেলার টুনিরহাটে জামায়াত শিবিররা সন্ধ্যা ৭টার দিকে প্রথমে লাঠি মিছিল বের করে। মিছিল শেষে তারা হাটে অবস্থিত আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করে তাদের উপর হামলা চালায়। এতে সেখানে ২৫ জন আহত হয়। খবর পেয়ে ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু রাফা মহম্মদ আরিফ ও ডিমলা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে ।এ সময় পুলিশ শিবির কর্মী তবিবুল (২৪) কে আটক করে। আহতদের মধ্যে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আরিফ (৪০) ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সহিদুল ইসলাম (৫৫) কে আশংকাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। বাকী আহতরা ডিমলা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

ডিমলা থানার ওসি আজিম উদ্দিন জানান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে এবং ১ শিবির কর্মীকে আটক করা হয়।

এদিকে নির্বাচন অফিসে বোমা ও ককটেল হামলার প্রতিবাদে শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে জেলা ছাত্রলীগ। এ সময় তারা জেলা বিএনপির যুগ্ন আহবায়ক সোহেল পারভেজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful