Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ৩ জুন, ২০২০ :: ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ :: সময়- ৫ : ৪৩ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / রংপুর মেডিকেলে মেশিন এলেও কিট আসেনি

রংপুর মেডিকেলে মেশিন এলেও কিট আসেনি

মমিনুল ইসলাম রিপন: রংপুর মেডিকেল কলেজে করোনা ভাইরাস সনাক্তে মেশিন এলেও এখন পর্যন্ত কিট এসে পৌছেনি। করোনাভাইরাস শনাক্তকরণে পিসিআর মেশিনের কার্যক্রম শুরু হতে আরো কয়েকদিন লাগবে। তবে মেশিন স্থাপনের কাজ চলছে। এদিকে সেনা সদস্যদের টহল ও সচেনতামূলক প্রচারণায় হোম কোয়ারাইন্টেনের সংখ্যা গত ৪ দিনে প্রায় ১০০ জনের মত কমেছে। প্রয়োজন ছাড়া মানুষজন ঘর থেকে বের হচ্ছেনা।
রংপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ জানান, করোনা বিস্তার রোধে সরকারের রোগত্ত¡, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এর পক্ষ থেকে রংপুরে একটি মেশিন দেয়া হয়েছে। পিসিআর মেশিনের মাধ্যমে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে হলে রোগীর রক্ত,ঘাম ও কফ পরীক্ষা করা হবে। কলেজের মাইক্রো বায়োলজি বিভাগের তত্ববধানে এই মেশিন পরিচালিত হবে । এজন্য দুজন ডাক্তার ও দুজন টেকনেশিয়ানকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তারা সন্দেহভাজন করোনা রোগীদের পরীক্ষা করবে।
এদিকে রংপুরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালাচ্ছেন সেনা সদস্যরা। নিম্ন আয়ের মানুষদের মধ্যে ফেস মাস্ক বিতরণ ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতকরণে উদ্বুদ্ধ করছেন তারা। সঙ্গে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানো হচ্ছে। শনিবার দুপুরে রংপুর নগরীর প্রধান প্রধান সড়কসহ নগরীর বিভিন্ন এলাকাতে টহল দিয়েছে সেনা সদস্যরা। এসময় রাস্তায় ঘোরাফেরা করা লোকজনকে ঘরে থাকতে উদ্বুদ্ধ করা হয়।
অপরদিকে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফার তত্বাবধায়নে কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। সরকারী ছুটির দিন শুক্রবারও তারা মাঠে কাজ করেছে। গত ১৯ মার্চ থেকে শুরু হয়েছে নগরীর ৩৩ টি ওয়ার্ডে করোনা প্রতিরোধে সমন্বিত কার্যক্রম। কার্যক্রম পরিচালনার জন্য জেলা প্রশাসন, সেনাবাহিনী, পুলিশ ও র‌্যাবের সাথে সমন্বয় করে সিটি কর্পোরেশনের ১৫০ জন জনবল সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মাঠে কাজ করছে। নগরীর বিভিন্ন সড়ক ও পয়েন্ট ২ টি লেগ ও ৭৫ টি হ্যান্ড স্প্রে মেশিন দিয়ে ছিটানো হচ্ছে জীবানু নাশক। ২টি পানিবাহী গাড়ি প্রতিদিন একাধিকবার নগরীর প্রধান সড়কে পানি ছিটাচ্ছে।
রংপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ নুরুন্নবী লাইজু জানান, হাসপাতালে করোনা পরীক্ষায় যে মেশিন আনা হয়েছে এর কার্যক্রম শুরু হতে আরো ৩ থেকে ৪ দিন লাগতে পারে। এর মধ্যে করোনা পরীক্ষার কিটও এসে পড়বে। আমরা যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি।
রংপুর সিভিল সার্জন ডা. হিরন্ব কুমার রায় জানান, সচেনতামূলক কার্যক্রমে হোম কোয়ারেন্টাইনের সংখ্যা কমেছে। আগে ছিল ২৫০ জনের ওপর। তা কমে এসেছে ১৪৭ জনে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful