Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট, ২০১৯ :: ৮ ভাদ্র ১৪২৬ :: সময়- ১২ : ৫৬ পুর্বাহ্ন
Home / খোলা কলাম / নষ্ট রাজনীতি, কষ্টের জীবন

নষ্ট রাজনীতি, কষ্টের জীবন

এ হুসাইন মিন্টু
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

“আই স্পিড অন ইউর গ্রেইভ” এই নামে হলিউডে একাধিক মুভি তৈরী হয়েছে। ধর্ষকের কি ধরনের শাস্তি হতে পারে, এই মুভিগুলোতে পরিচালক অত্যান্ত নিখোঁত ভাবে তা তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। আমাদের দেশের কিছু ঘটনার পর, পত্রিকায় কিছু কিছু খবর পড়ার পর আমার বার বার ঐ ছবিগুলোর কথা মনে পড়ে। কেন যেন মনে হয় ঐসব ছবিগুলোর মতো কিছু কিছু অন্যায়ের বিরল শাস্তির ব্যবস্থা করতে পারলে অনেক ভালো হত। সমাজে অপরাধ ও মানুষের ভেতরে অপরাধ প্রবনতা অনেকটা হ্রাস পেত । যেমন, আজ যে দুই সন্ত্রাসিকে প্রায় শতাধিক বোমা ও বিপুল পরিমানে গান পাউডারসহ মোহাম্মদপুর থেকে ব়্যাব আটক করেছে তাদের শাস্তিটা এমন হতে পারে- এই দুইজনের হাতে বা পায়ে বোমা বেধে এমন ভাবে ব্লাস্ট করা, যাতে এরা বোমার আঘাতে বিকলাঙ্গ হয়ে যায় কিন্তু জীবিত থাকে। তারপর এরা তাদের বাকী জীবন যখন পঙ্গুত্বের গ্লানি বয়ে বেড়াবে, তখন ঠিকই অনুধাবন করতে পারবে একটি বোমার আঘাত মানুষের জীবনকে কতখানি অকেজু ও অসহ্য করতে পারে, বোমার আঘাতে আহত হয়ে বেঁচে থাকাটা কতখানি কষ্টকর, বোমার আঘাতে নিহতের স্বজনের কান্নার রোল কতখানি ভারী হয়, বোমার আঘাতে নিহত হওয়া পরিবারের কর্তাব্যক্তির রেখে যাওয়া পরিবারটির কি হাল হতে পারে, বোমাবাজি কত বড় অপরাধ। একই ধরনের শাস্তি ভিন্ন রূপে ধর্ষক ও হত্যাকারীর ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হতে পারে ।

রাজনৈতিক সহিংসতার নামে সারা দেশে যে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালানো হয়েছে তাতে গত একমাসে নিহতের সংখ্যা শতাধিক! আর পুরো এক বছরের তালিকাটা অনেক লম্বা! পুলিশ আহত হয়েছেন প্রায় তিন শতাধিক! সব মিলিয়ে এই হানাহানিতে সারা দেশে কত আহত হয়েছে তা রীরিমতো জরিপের ব্যাপার! গত একমাসে অগ্নি সংযোগ ও ভাঙচুর চালানো হয়েছে প্রায় চারশত গাড়ীতে! আর গত বারো মাসের ধ্বংসযজ্ঞের দিকে তাকালে শরীর শিউরে ওঠে, মনে প্রশ্ন জাগে এত ধ্বংসলীলার পরও আমরা টিকে আছি কিভাবে?

অথচ এসবের আদৌ কোনো প্রয়োজন ছিল বলে মনে হয় না। আমরা সবাই যদি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতাম, আমাদের হৃদয়ে যদি দেশ প্রেম থাকত, আমরা যদি এই দেশটাকে আপন ভাবতাম, নিজেকে এই মাটির অংশ ভাবতে পারাতম, তাহলে এসব হত বলে আমার মনে হয় না। কতিপয় গোষ্ঠীর নিছক স্বার্থ চরিতার্থেই এসব অপরাধ সংঘটিত করা হয়েছে ! জীবন্ত মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে! সাধারণ মানুষের জানমালের বর্ণনাতীত ক্ষতি সাধন করা হয়েছে ! দিনের পর দিন লাগাতার হরতাল অবরোধ দিয়ে মানুষকে গৃহবন্ধী হতে বাধ্য করা হচ্ছে! জনজীবনকে অতিষ্ঠ করে তুলছে! কিন্তু আমরা সাধারণ মানুষের অপরাধ কি? আমরা কেন পদে পদে মৃত্ত্যু ভয় নিযে পথ চলবো? কেন আমাদের সাধারণ জীবনকে বিপন্ন করে তুলা হচ্ছে? কেন আমাদের মাথার উপর বোমা নিক্ষেপ করা হচ্ছে? আমরা আমাদের চির শত্রু স্বাধীনতা বিরোধী একাত্তরের ঘাকত দালালদের বিচার চাই, এটাই কি আমাদের অপরাধ? আমরা কাজ করে খেতে চাই, এটাই কি আমাদের অপরাধ? সুস্থ ও সুন্দর সমাজে বাস করতে চাই, এটাই কি আমাদের অপরাধ? আমরা ক্ষমতার টানাটানিতে অংশগ্রহণ করি না, এটাই কি আমাদের অপরাধ?

আমাদের সমাজে প্রতিদিন এত বর্বরতা হচ্ছে, চারপাশ থেকে এত বিভত্সতার খবর আসছে যে, এখন নিজেকে সভ্য জাতির ( আমি এখানে মনুষ্য জাতির কথা বলছি) একজন ভাবতে ঘৃণা লাগে, মাঝে মাঝে সভ্যতাকে দুর্বলতা মনে হয়। মানুষ হয়ে, বাঙালী হয়ে জন্ম নেওয়াকে দু্র্ভাগ্যের নামান্তর মনে হয়। অনেক সময় মনে হয়, সভ্যতা দিয়ে বর্বরতাকে রোখা বা দমন করা আর বোধ হয় সম্ভবপর নয়। এত নষ্টদের ভীড়ে ভালো হয়ে বাঁচা মানে শির নিচু করে বেঁচে থাকা, মৃত্ত্যু ভয়ে মরে মরে অনেক দিন বেঁচে থাকার চেয়ে নষ্ট হয়ে কয়েক দিন বেঁচে থাকি! বর্বরতার জবাব বর্বরতা দিয়ে দিতে ইচ্ছা জাগে। আমাদের রাজনৈতিকদের মনে রাখা উচিত সবারই একটা ধৈর্যের সীমা আছে। বাঙালীরা মাথা নিচু করে বাঁচতে জানে না, অন্তত বাঙালীদের অতীত ইতিহাস সেই সাক্ষ্য দেয় না। এ দেশের আপামর জনতা যদি রাস্তায় নেমে আসে তখন কিন্তু ক্ষমতালোভীরা পালানোর পথ খোঁজে পাবে না। ভুলে গেলে চলবে না, জনগণের কাধের উপর ভর দিয়ে সাত বছর আগে সামরিক শক্তি যে এক এগারো নিয়ে এসে ছিল, এ দেশের জনগণ কিন্তু তাকেও স্বাগত জানিয়ে ছিল।
Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful