Templates by BIGtheme NET
আজ- রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১২ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ১১ : ১৮ অপরাহ্ন
Home / গাইবান্ধা / সাদুল্যাপুরে ঘাঘট নদী থেকে শ্যালোমেশিন দিয়ে দেদারছে অবৈধ পন্থায় বালু উত্তোলন

সাদুল্যাপুরে ঘাঘট নদী থেকে শ্যালোমেশিন দিয়ে দেদারছে অবৈধ পন্থায় বালু উত্তোলন

জিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, সাদুল্যাপুর ॥ গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ঘাঘট নদী থেকে অবৈধভাবে দীর্ঘদিন ধরে বালু তোলা হচ্ছে। কতিপয় ব্যক্তি শ্যালোমেশিন দিয়ে নদী থেকে প্রতিদিন বালু উত্তোলন করছেন। উত্তোলন করা বালু মহেন্দ্র, ট্রলি ও ট্রাক্টর যোগে অন্যত্র লাখ লাখ টাকা বিক্রি করা হচ্ছে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের উপর দিয়ে ট্রলি, মহেন্দ্র ও ট্রাক্টর চলাচলের কারণে বাঁধের বিভিন্ন অংশ ভেঙ্গে যাচ্ছে। এছাড়া অবৈধ ও অপরিকল্পিত ভাবে বালু উত্তোলনের ফলে ফসলী জমি নষ্ট ও নদী ভাঙ্গন বৃদ্ধির আশংকা রয়েছে। অথচ বালু উত্তোলন অব্যাহত থাকায় সরকার রাজস্ব হারালেও স্থানীয় প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের কোন ভূমিকা নেই।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, সাদুল্যাপুর-নলডাঙ্গা পুরাতন পাকা সড়কের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের উত্তর পার্শ্বে ঘাঘট নদীর মাঝে পৃথকভাবে দুটি শ্যালোমেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন চলছে। স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি প্রভাবশালীদের শেল্টারে বালু উত্তোলন করে ব্যবসা করে আসছেন। নদীর মাঝ খানে শ্যালোমেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করে ওই বালু পাইপের সাহায্যে দুই হাজার গজ দুরে ফেলা হচ্ছে। স্থানীয় রবিন্দ্রনাথ নামের এক ব্যক্তি পুকুর ভরাট করার দোহাই দিয়ে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে বালু উত্তোলন করছেন। এছাড়া পার্শ্বে বাণিজ্যিক ভাবে দেদারছে বালু উত্তোলন করছেন বদলাগাড়ী গ্রামের হাসেন আলী। স্থানীয় হামিন্দপুর গ্রামের এলাকাবাসী জানালেন, ওই স্থানে বালু নিতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে দিন-রাত ট্রলি, মহেন্দ্র ও ট্রাক্টর আসা যাওয়া করে। বালু সরবরাহের একমাত্র পথেই হলে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ। প্রতিদিন বাঁধের উপর দিয়ে কমপক্ষে ৫০ বার ট্রলি, মহেন্দ্র ও ট্রাক্টর আসা যাওয়া করে। প্রতি এক ট্রলি বালু ২৫০ টাকা, ট্রাক্টর ও মহেন্দ ১২৫০ টাকা বিক্রয় হচ্ছে। এ কারণে প্রায় ২ কিলোমিটার বাঁধ ভেঙ্গে গর্ত ও ধুলায় পরিণত হয়েছে। এলাকাবাসী আরও জানান, বালু উত্তোলন বন্ধ করতে না পারলে ভবিষ্যতে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ যেমন সম্পূর্ণ ভেঙ্গে যাবে অন্যদিকে প্রতি বছর বর্ষাকালে আশপাশের ফসলী জমি ও নদীর দুই তীরের ভাঙ্গন বৃদ্ধি পাবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম মওলা বলেন, এসব বালু উত্তোলনের জন্য কোন অনুমতি দেওয়া হয়নি। অবৈধ পন্থায় বালু উত্তোলন করলে সরেজমিন তদন্ত করে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful