Templates by BIGtheme NET
আজ- রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ৫ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ১১ : ০৪ পুর্বাহ্ন
Home / দিনাজপুর / হিলিতে ‘মুক্তিযুদ্ধের সম্মুখ সমর’ উদ্বোধনে আর কত অপেক্ষা?

হিলিতে ‘মুক্তিযুদ্ধের সম্মুখ সমর’ উদ্বোধনে আর কত অপেক্ষা?

দিনাজপুরের হিলির বাসুদেবপুর বিজিবি ক্যাম্পের দক্ষিন পাশে মুক্তিযুদ্ধকালিন সময়ে ৩৪৫ জন ভারতীয় মিত্রবাহিনীর শাহাদত বরণের স্মৃতিস্বরুপ ‘সম্মুখ সমর’ (স্মৃতিস্তম্ভ) এখনো উদ্বোধন হয়নি। নির্মাণের সাত মাস পেরিয়ে গেলেও উদ্বোধনের অপেক্ষায় পড়ে আছে এই স্মৃতিস্তম্ভটি। তবে দিনাজপুর গণপূর্ত বিভাগ কর্তৃপক্ষ বলছেন, সম্মুখ যুদ্ধের ইতিহাস তৈরী ও খোদাইয়ের কাজ না হওয়ায় এখনই উদ্বোধন করা যাচ্ছে না।

স্থানিয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সুত্রে জানা গেছে, ১৯৭১ সালের ৯ ও ১০ ডিসেম্বর মিত্রবাহিনী বিজয় উল্লাস করতে করতে এই পথ দিয়ে ভারতে ফিরছিলেন। এসময় পাক হানাদার বাহিনী ও মিত্রবাহিনীর মধ্যে প্রচন্ড সম্মুখ যুদ্ধ শুরু হয়। সেই সাথে বিমান হামলাও চালানো হয়। এতে ৩৪৫ জন মিত্রবাহিনী নিহত হন এবং আহত হন অন্তত ১৪’শ মিত্রবাহিনী।

এদিকে দিনাজপুর গণপূর্ত বিভাগ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. নজিবর রহমান বলেন, সরকার ২০০৯-১০ অর্থবছরে মুক্তিযুদ্ধকালিন উল্লেখযোগ্য সম্মুখ সমরের স্থান সংরক্ষন ও উন্নয়ন শীর্যক প্রকল্পের আওতায় দেশের ১৪টি মধ্যে দিনাজপুরের হিলিতে একটি সম্মুখ সমর নির্মাণের কাজ শুরু করে। বাসুদেবপুর বিজিবি ক্যাম্পের দক্ষিন পাশে অধিগ্রহণকৃত ২০ শতক জায়গার ওপর ৪২ লাখ টাকা ব্যয়ে এই কাজ শুরু হয়ে চলতি বছরের জুলাই মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে শেষ হয়। তিনি আরও জানান, সম্মুখ সমরের নকশায় প্রথমের দিকে সীমানা প্রাচীর না থাকা এবং নকশায় কিছু পরিবর্তনের কারণে সময় ক্ষেপন হয়েছে। বর্তমানে সম্পূর্ন অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। কিন্তু সম্মুখ যুদ্ধের ইতিহাস তৈরীর কাজ এখনো শেষ হয়নি। এরপর খোদাইয়ের কাজ হলে উদ্বোধনের দিনক্ষন নির্ধারণ করা হবে। এই কারণে বিজয়ের মাসে উদ্বোধন করা গেল না।

দিনাজপুর গণপূর্ত বিভাগ কার্যালয়ের সুত্রে জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের অর্থায়ণে এবং দিনাজপুর গণপূর্ত বিভাগের বাস্তবায়নে সম্মুখ সমরের অবকাঠামো নির্মাণের কাজ করা হয়। স্থানিয় বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান ও জয়নাল আবেদীন বলেন, সারাদেশে পাক হানাদার বাহিনী যখন মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয় আসন্ন দেখে আত্মসমর্পন শুরু করে, তখন হিলির বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান নেওয়া ভারতের ৫ গারুয়াল রেজিমেন্ট এবং ২২ মারাঠা ব্রিগেডের প্রায় দুই হাজার মিত্রবাহিনী ৯ ও ১০ ডিসেম্বর বিজয় উল্লাস করতে করতে ভারতে ফিরতে থাকেন। এসময় পাক হানাদার বাহিনীর সামনে পড়লে উভয়ের মধ্যে প্রচন্ড সম্মুখ যুদ্ধ শুরু হয়। তখন মিত্রবাহিনীর ৩৪৫ জন শাহাদত বরণ করেন। এরপর ১১ ডিসেম্বর হিলি শক্রুমুক্ত হয়।

হাকিমপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলী বলেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এ বি এম তাজুল ইসলাম উদ্বোধন করবেন এই অপেক্ষায় এখনো উদ্বোধন করা হয়নি। এই কারণে গত ছয় মাস আগে সম্মুখ সমর নির্মাণের কাজ শেষ হলেও ওই অবস্থায় পড়ে আছে। এদিকে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স আলম কনষ্ট্রাকশনের মালিক লতিফুল আলম বলেন, কাজ শেষ করে স¤প্রতি দিনাজপুর গণপূর্ত বিভাগ কার্যালয়ে বিল দাখিল করা হয়েছে। তিন লাখ টাকা বিল পাবেন বলে তিনি দাবী করেন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful