Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০ :: ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ :: সময়- ১২ : ০৭ পুর্বাহ্ন
Home / টপ নিউজ / নির্বাচনী সহিংসতায় চরম ক্ষতিগ্রস্ত ৪৯টি সংখ্যালঘু পরিবার: ৫ মাসেও সময় হয়নি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

নির্বাচনী সহিংসতায় চরম ক্ষতিগ্রস্ত ৪৯টি সংখ্যালঘু পরিবার: ৫ মাসেও সময় হয়নি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

elect 1কুরবান আলী, দিনাজপুর ॥ ৫ মাসেও নির্বাচনী সহিংসতায় চরম ক্ষতিগ্রস্ত সংখ্যালঘু ৪৯জন দোকান মালিক পরিবারের পাশে দাড়াননি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ও আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। নির্যাতিত পরিবারগুলো অমানবিক দুঃখ-কষ্টে দিন যাপন করছেন। পুলিশও এখন পর্যন্ত কোন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেনি।

রোববার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে চিরিরবন্দর উপজেলার ৮নং সাইতাড়া ইউনিয়নের খোচনা গ্রামের ওকড়াবাড়ী হাটের ব্যবসায়ীরা লিখিত বক্তব্যে উক্ত অভিযোগ করেন। ৫ জানুয়ারীর ১০ম সংসদ নির্বাচনে ভোট দেয়ার অপরাধে বিএনপি-জামায়াত-শিবিরের নির্বাচন বিরোধী সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে হাটের ৪৯ জন দোকান মালিক সর্বশান্ত হন। ওই দিন দুপুর ১টার পর সন্ত্রাসীরা সংখ্যালঘুদের ৪৭টি ও ২টি মুসলিমের দোকানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক লুটপাট এবং অগ্নিসংযোগ করে। সেদিনের হামলায় প্রায় ৮০ লক্ষাধিক টাকার নানা ধরনের পণ্য লুটপাট, ভাংচুর ও আগুন জ্বালিয়ে বিনষ্ট করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিকগণ অভিযোগ করেন ভোট দেয়ার অপরাধে আমাদের সর্বশান্ত করা হলেও ৫ মাসে আমাদের এমপি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী কোন খোজখবর এমনকি আমাদেরকে দেখতে পর্যন্ত আসেননি। তিনি অনেকবার আমাদের সামনে দিয়ে যাতায়াত করলেও এক মিনিটের জন্য থেমে আমাদের সাথে কথা বলেননি। উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ শুধু মৌখিকভাবে সহানুভুতি জানিয়ে তাদের দায়িত্ব শেষ করেছেন। মামলা করতে চাইলেও তারা মামলা করতে সহায়তা দেননি। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আহসানুল হক মিলন ক্ষতিগ্রস্ত ও অত্যাচারিত সংখ্যালঘু মানুষদের নিজের অসহায়ত্বের কথা উল্লেখ করে বলেছিলেন, “আমার নিজেরই নিরাপত্তা নেই, তোমাদের নিরাপত্তা দিব কোথা থেকে”।

ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরি করা হলেও ৫ মাসে জুটেনি কোন সরকারী সহায়তা। বার বার খালি তালিকাই তৈরি করা হয়। নিরাপত্তার অভাবে নির্যাতিতরা মামলা না করলেও পুলিশ বাদী হয়ে কেন ৫ মাসেও মামলা করল না তার জবাব সংখ্যালঘুরা জানেননা। পুলিশ সেদিনের ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনার সাথে জড়িত কোন সন্ত্রাসীকেই গ্রেফতার করেননি। ঘটনার কিছুদিন পর দিনাজপুর সদর আসনের এমপি হুইপ ইকবালুর রহিম ক্ষতিগ্রস্তদের দেখতে ওকড়াবাড়ী হাটে যান। তিনি সেদিন বলেছিলেন স্থানীয় এমপি’র সাথে পরামর্শ করে সহায়তা দেয়া হবে। কিন্তু সেই আশ্বাসও পূরণ হয়নি।

সংবাদ সম্মেলনে ওকড়াবাড়ী হাটের ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিক দক্ষনাথ রায়, সুরঞ্জন রায়, মনোরঞ্জন রায়, নিরোদ চন্দ্র রায়, রমেন্দ্রনাথ রায়, ভোলানাথ রায়, সুদীপ চন্দ্র রায়, মিঠুন চন্দ্র রায়, রঞ্জন কুমার রায়, ধনঞ্জয় রায়, বিনোদ চন্দ্র শীল, মিলন চন্দ্র শীল, যতীশ চন্দ্র রায়, জ্যোতি রায়, করুনা কান্ত রায়, ভবেশ চন্দ্র মহন্ত, রতন চন্দ্র রায়, গজেন্দ্র নাথ রায়, রুহিনী কান্ত রায়, মোঃ দুলাল হোসেন ও মোঃ আপন মিয়া তাদের দুঃখ-বেদনার বর্ণনা দেন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful