Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০ :: ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ :: সময়- ৫ : ৫৭ পুর্বাহ্ন
Home / আলোচিত / আরিফের রোমহর্ষক জবানবন্দি শুনলে মানুষ কাঁদবেন

আরিফের রোমহর্ষক জবানবন্দি শুনলে মানুষ কাঁদবেন

7 murder‘নারায়ণগঞ্জের সেভেন মার্ডারের ঘটনায় আদালতে দায় স্বীকার করে আরিফ হোসেনের বক্তব্য সাধারণ মানুষ শুনলে কেঁদে দেবে’ মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। 

তিনি বলেছেন, নূর হোসেন ও গডফাদারদের যোগসাজশে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটেছে। এ হত্যাকাণ্ডে র‌্যাবের তিনজনসহ আরো অনেকে জড়িত রয়েছেন। তাদের মধ্যে আরিফ হোসেন ইতোমধ্যে বুধবার সকালে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তার জবানবন্দিতে সাতজনকে হত্যার পুরো বিবরণ উঠে এসেছে যে বক্তব্য মানুষ শুনলে কেঁদে দেবেন, আতকে উঠবেন।

বুধবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইশতিয়াক আহমেদ এর আদালতে সেভেন মার্ডারের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত চাকরিচ্যুত র‌্যাব-১১ এর সাবেক কমান্ডার অবসরে পাঠানো সেনাবাহিনীর লে. কর্নেল তারেক সাঈদের চতুর্থ দফার রিমান্ড শুনানির সময়ে সাখাওয়াত হোসেন এসব কথা বলেন। 

সাতদিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে বিচারক ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ আদালতে রিমান্ডের পক্ষে সাখাওয়াত হোসেনসহ ২০-২৫ জন আইনজীবী অংশ নেন। আদালতে রিমান্ডের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন তারা।

সাখাওয়াত আদালতে আরো বলেন, তারেক সাঈদের নার্ভ অনেক শক্ত। এ কারণে তাকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে চাচ্ছেন না। সেজন্যই তাকে আরো রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।

আদালতে কোর্ট পুলিশের এসআই আশরাফুজ্জামান বলেন, নূর হোসেনের কাছ থেকে আর্থিক লেনদেনের কারণে ৭ জনকে হত্যা করা হয়েছে, যার সঙ্গে র‌্যাবের লোকজন সম্পৃক্ত। অ্যাডভোকেট চন্দন সরকার ঘটনার ভিডিও ধারণ করায় তাকেও হত্যা করা হয়েছে। এ কারণেই তারেক সাঈদকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।

সেভেন মার্ডারের ঘটনার পর দায়ের করা দু’টি মামলার মধ্যে অ্যাডভোকেট চন্দন সরকার ও তার গাড়িচালক ইব্রাহিমকে অপহরণ ও পরে হত্যা মামলায় চন্দন সরকারের মেয়ে জামাতা বিজয় পালের দায়ের করা মামলায় ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে তারেক সাঈদকে বুধবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইশতিয়াক আহমেদের আদালতে পাঠানো হয়। 

তারেক সাঈদ ও আরিফ হোসেনকে এর আগে সেভেন মার্ডারের ঘটনায় ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে প্রথম দফায় ৫ দিন ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ ৫ জনকে খুনের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে দ্বিতীয় দফায় ৮ দিন, তৃতীয় দফায় ৫ দিন জিজ্ঞাসাবাদ করে তদন্ত কমিটি। 

এর আগে সকালে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন মেজর আরিফ হোসেন।

বিকেল কঠোর নিরাপত্তায় তারেক সাঈদকে আদালতে আনা হয়। তখন তারেক সাঈদের সঙ্গে আরিফ হোসেনও ছিলেন। শুনানি শেষে তারেক সাঈদের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর শেষে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তদন্তকারী টিম তাকে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ লাইনে নিয়ে যায়। আর আরিফ হোসেনকে নেওয়া হয় কারাগারে।

সেভেন মার্ডারের ঘটনায় হাইকোর্টের নির্দেশে গত ১৬ মে দিনগত রাতে ঢাকার সেনানিবাস থেকে আরিফ হোসেন ও তারেক সাঈদকে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ। পরে ১৭ মে তাদের দুইজনকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে পাঠানো হয়। সেদিন শুনানি শেষে আদালত ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ২২ মে প্যানেল মেয়র নজরুলসহ ৫ জনকে হত্যার ঘটনার মামলায় তাদের দুইজনকে গ্রেফতার দেখিয়ে আবারো ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন করা হলে আদালত ৮ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করে। সবশেষ গত ৩০ মে আবারো এ দুইজনকে ৫ দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ। নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশলাইনেই এ ১৮ দিন তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। 

২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, তার বন্ধু মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম, লিটন, গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম, আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার এবং তার ব্যক্তিগত গাড়িচালক ইব্রাহিম অপহৃত হন। পরদিন ২৮ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন নজরুল ইসলামের স্ত্রী। ৩০ এপ্রিল বিকেলে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ৬ জন এবং ১ মে সকালে একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত সবারই হাত-পা বাঁধা ছিল। পেটে ছিল আঘাতের চিহ্ন। প্রতিটি লাশ ইটভর্তি দু’টি করে বস্তায় বেঁধে ডুবিয়ে দেওয়া হয়।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful