Templates by BIGtheme NET
আজ- শনিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২০ :: ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ :: সময়- ৮ : ৪২ পুর্বাহ্ন
Home / দিনাজপুর / মানবরূপী জ্বিন : ফু দিলেই টাকা, কথা বললেই মামলা

মানবরূপী জ্বিন : ফু দিলেই টাকা, কথা বললেই মামলা

Jinএসএন আকাশ: দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার এক মানবরূপী জ্বীনরাণীর আর্বিভাব ঘটেছে। দীর্ঘদিন ধরে তার কার্যক্রমে গ্রামবাসী ভয়ে আতঙ্কে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। দু’চরিত্রের অভিনেত্রী ছালেমা বেগম দীর্ঘদিন ধরে জ্বীনের তৎবির করে এলাকাবাসীর হারানো জিনিসপত্র বের করে দিয়ে আসছে। এতদিন ধরে তার তৈরী সংঘবন্ধ দলের মাধ্যমে কাজগুলো করতো। বিশাইনাথপুর (দামপাড়া) গ্রাম ছাড়াও পার্শ্ববর্তী গ্রামের লোকজনদের বাড়ীতে সে সহ তার লোকজন রাতের অন্ধকারে স্বর্ণ অলঙ্কার সহ পারিবারিক আসবাপপত্র চুরি করতো। পরবর্তীকালে ঘটনাটি নাটকীয়তায় রূপ দিয়ে নিজ উদ্দেগ্যে চুরি করা মালামাল জ্বীনদ্বারা বের করে বাড়ীর গৃস্থের কাছে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিতো। সেই সাথে সে দাদন ব্যবসার সংগে জড়িত। সাধারণ গ্রামবাসীকে আর্থিক সমস্যায় ফেলে তাকে আবার সুদে টাকা ধার দিয়ে সময় সাপেক্ষে তার সহায়সম্বল লুটে নেয়। এব্যাপারে গ্রামবাসী ভয়ে কেউ কোন প্রতিবাদ করতো না, কারণ জ্বীনে আঁছরের প্রভাব ফেলবে বলে। জ্বীনরাণী ছালেমার প্রধান শক্তি তার স্বামী মাহ্ফুজার রহমান। সে গ্রামবাসীকে দেখার জন্য দিনে ভ্যান চালায় আর রাতে চুরির কাজ গুলো করে। এমতাবস্তায় ঘটনাগুলো গ্রামবাসীদের কাছে হাতেনাথে ধরা পড়লে জ্বীনরাণীর প্রতরনার ব্যবসা বন্ধ হওয়ায় প্রতিহিংসাপরায়ন হয়ে সচেতন গ্রামবাসীর অর্থশালী ব্যক্তিদের নামে বিভিন্ন মামলা দিয়ে অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতি ও হেও প্রতিপন্ন করছে।

ঘটনাটি বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় ভিন্নভাবে প্রকাশিত হলে বিশাইনাথপুর (দামপাড়া) গ্রামে সরেজমিনে গেলে গ্রামবাসীরা প্রতারক ছালেমা বেগমের প্রতারনার চাঞ্চল্যকর কাহিনী তুলে ধরেন। তারা জানায়, ছালেমা বেগম দীর্ঘদিন যাবত গ্রামের মানুষজনের বাড়ির জিনিসপত্র নিজেই চুরি করে পরে জ্বীন চালানের নাটক করে উদ্ধার করে দিয়ে লোকজনের কাছে টাকা আদায় করতো। সম্প্রতি তার এধরনের প্রতারনা ধরা পড়লে তার আপন ভাসুড় আব্দুল কাফি তাকে পেয়ারা গাছে সারারাত বেঁধে রাখে। সামাজিকভাবে সে এই সাজা পেলে ক্রোধে আক্রোশে ফুঁসে ফেপে ওঠে গ্রামবাসীকে মামলায় জড়ানোর জন্য গত ৩মে রাত ৩টার দিকে নিজের মাথার চুল নিজেই আংশিক কেটে ও মাথায় সামান্য জখম করে হৈহুল্লোর ও চিৎকার করে গ্রামবাসীকে জাগিয়ে তুলে এবং পরদিন ঘোড়াঘাট থানায় কয়েকজনের নামে নারী নির্যাতনের একটি মামলা দায়ের করে। গ্রামবাসীরা আরো বলেন, সেই রাতে ঘটনাস্থলে যাদের জড়িয়ে অভিযোগ করেছে সেই সময় তারা কেউই সেখানে উপস্থিত ছিলনা। শুধু মাত্র তার স্বামী সহ তার পরিবারে লোকজনেরাই উপস্থিত ছিল। তাহলে কি করে স্বামীসহ সবার উপস্থিতে জ্বীনরাণী ছালেমার মাথার চুল কাটলো ?

এব্যপারে ঘোড়াঘাট থানার ওসির সংগে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ছালেমা বেগম নিজে বাদি হয়ে ৩-৪ জনের নামসহ অজ্ঞাতনামা দিয়ে নারী নির্যাতনের একটি মামলা দয়ের করেছে। ঘটনাটির তদন্ত চলছে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful