Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০ :: ৮ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ১১ : ১৭ পুর্বাহ্ন
Home / টপ নিউজ / রংপুর বিএনপির পাল্টাপাল্টি শোডাউন; গাড়ীতে আগুন

রংপুর বিএনপির পাল্টাপাল্টি শোডাউন; গাড়ীতে আগুন

rangpur bnpস্টাফ রিপোর্টার: পুরে বিএনপির নতুন কমিটিকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপ মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে। একদিকে নতুন কমিটি নগরীর গ্র্যান্ড হোটেল মোড়স্থ দলীয় কার্যালয় থেকে আনন্দ র‌্যালি বের করে। অপরদিকে নতুন কমিটির পদবঞ্চিত গ্রুপ প্রেস ক্লাব চত্বরে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে।

দীর্ঘদিন পর কমিটি অনুমোদন করায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ধন্যবাদ জানিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে রংপুর মহানগরীতে শোডাউন করেছেন রংপুর নবগঠিত জেলা ও মহানগর কমিটির হাজার হাজার নেতাকর্মী।

অন্যদিকে প্রেসক্লাবের সামনে কমিটি বাতিলের দাবিতে অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছে একাংশের নেতাকর্মীরা। এ সময় প্রেসক্লাব এলাকায় অটো থেকে রডের বস্তা ও একটি ককটেল উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বেলা দুইটা থেকে রংপুর মহানগরীর গ্রান্ড হোটেল মোড়ে বিএনপি কার্যালয়ে জড়ো হতে থাকে মহানগরী ও জেলার বিভিন্ন এলাকার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা।  গ্রান্ড হোটেল মোড় এলাকা কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। এরইমধ্যে অর্ধশতাধিক পুলিশ গ্রান্ড হোটেল মোড়ের উত্তরপাশে অবস্থান নিয়ে জাহাজ কোম্পানি মোড়ের দিকে যাওয়ার পথ বন্ধ করে দেয়।

নবগঠিত জেলা ও মহানগর কমিটির শীর্ষ নেতৃবৃন্দের নেতৃত্বে আসরের নামাজের পর বিশাল শোডাউন কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে শাপলা চত্বরের দিকে যায়। পরে সেখানেই বক্তব্য রাখেন মহানগর কমিটির সভাপতি মোজাফফর হোসেন, জেলা সভাপতি এমদাদুল হক ভরসা, মহানগর কমিটির সেক্রেটারি সামসুজ্জামান সামু, জেলা কমিটির সেক্রেটারি সাইফুল ইসলাম, মহানগর কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আনিছুর রহমান লাকু, জেলার কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রাঙ্গা।

এ সময় বক্তারা বলেন, খালেদা জিয়া, তারেক রহমান ও মির্জা ফখরুল ইসলামের নির্দেশে এখন থেকে নব গঠিত জেলা ও মহানগর কমিটির নেতারা সকল স্তরের কর্মী, সমর্থক এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের নিয়ে বর্তমান অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্র রক্ষায় রংপুরে দেশের মধ্যে সবচেয়ে বড় আন্দোলন গেড়ে তুলবে। পাশাপাশি আগামী যেকোনো নির্বাচনে বিপুল ভোটের মাধ্যমে বিজয়ী হয়ে এই অঞ্চলকে উন্নয়নের মূল শ্রোতধারায় নিয়ে যাবে।

যারা কমিটির বিরোধিতা করছেন তাদেরকে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপির স্বার্থে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান বক্তারা ।

অন্যদিকে নবগঠিত জেলা ও মহানগর কমিটি বাতিলের দাবিতে বিকেল তিনটা থেকে রংপুর প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করে স্থানীয় বিএনপির একাংশের নেতাকর্মীরা। অবস্থান ধর্মঘট চলাকালীন সময় প্রেসক্লাবের দক্ষিণ পাশে নিউক্রস রোড থেকে দাড়িয়ে থাকা অটো থেকে বস্তাবন্দি রড উদ্ধার করে।

এ সময় সেখানে বক্তব্য রাখেন নব গঠিত জেলা বিএনপির সহ সভাপতি(সাবেক আহবায়ক কমিটির প্রথম যুগ্ম আহবায়ক) মমতাজ শিরিন ভরসা, মহানগর কমিটির প্রথম যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু (সাবেক যুগ্ম আহবায়ক), মহানগর কমিটির যুগ্ম সম্পাদক রইচ আহমেদ ( জেলা যুবদল সভাপতি), জেলা কমিটির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাহফুজ উন নবী ডন (ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি), জেলা কমিটির কৃষি বিষয়ক সম্পাদক হাজী আবু তাহের ( কৃষক দলের সভাপতি rangpur bnp 2), মহানগর কমিটির কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফজলুর রহমান বাদল, যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সামসুল হক ঝন্টু, মহানগর কমিটির স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম (স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক, জেলা কমিটির স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মতিউর রহমান বাবু (স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক) জেলা বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক জহির আলম নয়ন (জেলা ছাত্রদল সভাপতি), মহানগর কমিটির বৃত্তিমুলক প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এনামুল হক মাজেদি. জেলা ছাত্রদল সেক্রেটারি মনিরুজ্জামান হিজবুল প্রমুখ।

এ সময় বক্তারা বলেন, বিএনপির রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু টাকার বিনিময়ে দালালি করে অযোগ্য, অথর্ব, তৃণমূল নেতাকর্মীর সমর্থন বঞ্চিত টেন্ডারবাজদের দিয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারা  আন্দোলন সংগ্রাম ছিল না। তারা সুবিধাভোগী নেতাকর্মী। তাদের নামে কোনো মামলা নেই।

দুলুকে রংপুরের কোথাও স্থান দেয়া হবে না। যেখানেই পাওয়া যাবে, তাকে প্রতিহত করা হবে। এ সময় বক্তারা বলেন, অবিলম্বে কমিটি বাতিল করা না হলে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকেও রংপুরে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হবে।

দুইপক্ষের কর্মসূচি নিয়ে সকাল থেকেই উত্তেজনা দেখা যায় নগরীতে। নগরীর বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে বিপুল পুলিশ মোতায়েন করা হয়। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে মিছিল শেষে ফেরার পথে চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের অফিসের পাশে চাউল আমোদ রোডের মহানগর কমিটির সভাপতি মোজাফফর হোসেনের ভাতিজা কামালের টয়োটা জীপে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধ গ্রুপের নেতাকর্মীরা। এ সময় দুইজন আহত হন। পরে ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিভিয়ে ফেলে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও প্রেসক্লাবের নিউক্রস গলি থেকে একটি তাজা ককটেল উদ্ধার করে পুলিশ।

কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল কাদের জিলানী জানান, গাড়িতে আগুন দেয়ার ঘটনা ছাড়া কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। পুলিশ সতর্ক নজরদারীতে আছে। কেউ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি করতে চাইলে তা কঠোরভাবে মোকাবেলা করা হবে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful