Templates by BIGtheme NET
আজ- মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০ :: ৫ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ১২ : ৩৬ অপরাহ্ন
Home / আলোচিত / ঈদের পর আন্দোলন : খালেদা

ঈদের পর আন্দোলন : খালেদা

khaledaঈদুল ফিতরের পর সরকার পতনের আন্দোলনে নামার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘অবৈধ সরকার কখন বিদায় নেবে জনগণ এখন তা জানতে চায়। বিদেশিরাও দ্রুত নির্বাচন চায়। তাই এ সরকারকে হঠাতে ঈদের পর নতুন কর্মসূচি দেওয়া হবে।’

মঙ্গলবার রাতে বিএনপির চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে ঢাকা বিভাগীয় উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান, ভাইস-চেয়ারম্যান ও মহিলা চেয়ারম্যানদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, ‘বিএনপির ডাকে দেশের জনগণ এমনভাবে রাজপথে নেমে আসবে তখন ক্ষমতাসীন সরকার আর অস্ত্র চালাতে পারবে না। তাদের অস্ত্র স্তব্ধ হয়ে যাবে। এমনিতেই সরকাররের পায়ের নিচে মাটি নেই। জনগণ ঐক্যবদ্ধ হলে সরকার পালানোর পথ পাবে না।’

সরকারকে আবারো ‘অবৈধ’ আখ্যা দিয়ে সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এদের মধ্যে দেশ বা জনগণ নিয়ে কোনো চিন্তা-ভাবনা নেই। গণতন্ত্র আজ নির্বাসিত। জনগণ তাদের হাতে নির্যাতিত, অত্যাচারিত।’

খুন, গুম, হত্যা, নির্যাতন এখন প্রতিদিনের ঘটনা- মন্তব্য করে বিএনপি চেয়ারপারসন এর জন্য আওয়ামী লীগ এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দায়ী করেন।

তিনি বলেন, ‘জনগণের নিরাপত্তা দেওয়া প্রশাসনের দায়িত্ব হলেও তারা জনগণের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে অবৈধ সরকারের কাছে মাথা নত করে অন্যায় কাজ করছে। তারা সাধারণ ও নিরীহ জনগণকে ধরে নিয়ে গিয়ে তাদেরকে গুম করে ফেলছে, হত্যা করছে। তাদের লাশ পথে-ঘাটে-মাঠে-নদীতে পাওয়া যাচ্ছে।’

নব নির্বাচিত চেয়ারম্যানদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘ক্ষমতাসীনরা তাদের দলীয় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যানদের যেভাবে সুযোগ-সুবিধা দেয়, অন্য দলের হলে তা দেওয়া হয় না। এলাকার উন্নয়নে তাদেরকে প্রাপ্য বরাদ্দও দেওয়া হয় না।’

তিনি বলেন, ‘অবৈধ সরকারের অসহযোগিতার ফলে আপনাদের কাজ করতে সমস্যা হবে। বিষয়গুলো জনগণকে জানাতে হবে, অবৈধ সরকার আপনাদের সঙ্গে বিমাতাসুলভ আচারণ করছে।’

দেশে কোনো উন্নয়ন নেই দাবি করে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘অবৈধ’ সরকার বেছে বেছে প্রজেক্ট হাতে নিচ্ছে। যেখানে বেশি বেশি কমিশন পাওয়া যাবে, লুটপাট করার জন্য সেই সব প্রজেক্ট তারা হাতে নিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘সিলেটের স্টেডিয়াম ভেঙে পড়ে তিনজন মারা গেছে। স্টেডিয়াম বানাতে গিয়ে চুরি করেছে। এমন চুরি করেছে যে সেখানে সিমেন্ট বালু ঠিকমত দেওয়া হয়নি। যে কারণে স্টেডিয়াম ভেঙে পড়েছে। এদের কাছে দেশের এবং দেশের মানুষের জানমালের কোনো দায়িত্ব বা ভালোবাসা তাদের নেই।’

ক্ষমতা চিরস্থায়ী করতে এবং বিরোধী দলকে ধ্বংস করতে সংবিধান সংশোধন করা হয়েছে বলে এ সময় অভিযোগ করেন বিএনপি প্রধান।

কোনো স্বৈরাচারী সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারেনি মন্তব্য করে সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যতই চেষ্টা করা হোক না কেন বিদায় নিতে হব। শুধু বিদায় নয়, করুণ পরিণতি নিয়েই বিদায় নিতে হবে।’

দ্রুত নির্বাচন এখন জনগণের দাবি উল্লেখ করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘সাধারণ মানুষ দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন দেখতে চায়। মানুষ জানমালের নিরাপত্তা চায়। তারা দেশের সুষম উন্নয়ন দেখতে চায়। সেজন্য জনগণ দ্রুত নির্বাচন দাবি করছে।’
  
সভায় ঢাকা বিভাগের বিএনপি সমর্থিত নির্বাচিত ৫৯ জন চেয়ারম্যান ও ৪০ জন ভাইস চেয়ারম্যান অংশ নেন। 

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম, ব্রিগেডিয়ার জেনাজারেল (অব.) হান্নান শাহ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, বরকত উল্লাহ বুলু, মো. শাহজাহান, সালাহউদ্দিন আহমেদ প্রমুখ নেতারা এ মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন।
– See more at: http://www.risingbd.com/detailsnews.php?nssl=bf06750a29a0711a2db661a9c8f9cdd9#sthash.lHv7Samy.dpuf

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful