Templates by BIGtheme NET
আজ- মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২০ :: ১২ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ৯ : ৪৪ অপরাহ্ন
Home / আলোচিত / বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন বৈধ

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন বৈধ

High-court cortডেস্ক: জাতীয় সংসদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ১৫৩ জন সংসদ সদস্য নির্বাচিত ঘোষণাসংক্রান্ত রিট ও এ বিষয়ে জারি করা রুল খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি খোরশেদ আলম সরকারের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। ফলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচনের বিষয়টি বৈধ রয়ে গেল।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হাসান এম এস আজিম ও রেদোয়ান আহমেদ রানজীব। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা।

এর আগে ১৫৩ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতরা কেন অবৈধ নয় মর্মে হাইকোর্টের দেওয়া রুলের ওপর অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে ছয়জন তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন। এর মধ্যে ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, বদিউল আলম মজুমদার এ নির্বাচনকে অসাংবিধানিক ও বেআইনি বলে তাদের মতামত পেশ করেছেন।

অপরদিকে আজমালুল হোসেন কিউসি ও রোকনউদ্দিন মাহমুদ ও মাহমুদুল ইসলাম নির্বাচনকে আইনগতভাবে সঠিক বলে উল্লেখ করেন। তবে এ নির্বাচন নীতিগতভাবে বৈধ ছিল না বলে আদালতে আখ্যা দেন মাহমুদুল ইসলাম।

অপর অ্যামিকাস কিউরি ব্যারিস্টার আমির-উল ইসলাম তার বক্তব্য আদালতে উপস্থাপন করেননি। তার বক্তব্য পেশ বাদ রেখেই অন্যদের বক্তব্য শুনে আজ রায়ের জন্য দিন ধার্য করেন হাইকোর্টের এ বেঞ্চ।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় একক প্রার্থী নির্বাচিত করার গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ১৯ ধারা কেন সংবিধানপরিপন্থী ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট ।

এ রিটের প্রাথমিক শুনানি শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মোহাম্মদ খুরশিদ আলম সরকারের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রুল জারির আদেশ দেন। রুলে ১০ দিনের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, আইনসচিব, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশন সচিবকে জবাব দিতে বলা হয়েছিল।

২০১৩ সালের ১৭ ডিসেম্বর জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার আবদুস সালাম সুপ্রিম কোর্টে রিট আবেদনটি করেন। পরে ওই রিটের ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হয় ১৬ ফেব্রুয়ারি। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী হাসান এম এস আজিম। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আল আমীন সরকার।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful