Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০ :: ১৫ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ৭ : ৩৫ অপরাহ্ন
Home / ব্রেকিং নিউজ / আর্জেন্টাইন রূপকথার নায়ক ডি মারিয়া

আর্জেন্টাইন রূপকথার নায়ক ডি মারিয়া

সেই মেসি ম্যাজিকেই জয় পেয়েছে আর্জেন্টিনা। তবে তিনি গোল করতে পারেননি। করিয়েছেন। গোলহীন দীর্ঘ ১২০+ মিনিটের ম্যাচের আর্জেন্টাইন রূপকথার নায়ক ডি মারিয়া। মেসির অসাধারণ থ্রু থেকে বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে আলতো শটে গোলটি করেছেন ডি মারিয়া। ম্যাচের অন্তিম লগ্নে চরম নাটকীয়তা আবারও একবার দেখেছে ফুটবলপ্রেমীরা। ঘাম ঝরানো এই জয়ে শেষ আটে নাম লিখিয়েছে মেসিরা। নির্ধারিত সময়ে খেলা গোলশূন্য থাকার পর ম্যাচ গড়িয়েছিল অতিরিক্ত সময়ে। পেনাল্টি শ্যুটআউটের কথােই যখন সকলের ভাবনায়। ঠিক তখনই মেসি ম্যাজিক। ডি-বক্সে কয়েকজনকে কাটানোর মোহনীয় দৃশ্য। তারপর ফাঁকি দিয়ে বল বাড়িয়ে দেওয়া। তাে থেকে ১১৮ মিনিটের মাথায় জয়-পরাজয়ের ব্যবধান গড়ে দিয়েছেন কমপক্ষে ৪টি সুযোগ মিস করা ডি মারিয়া (১-০)।
মঙ্গলবার রাত ১০টায় শুরু হওয়া ম্যাচ নির্ধারিত সময়ে আর্জেন্টিনা-সুইজারল্যান্ড সমতায় থেকেই শেষ করেছে। ফলে নকআউট ম্যাচ গড়িয়েছিল অতিরিক্ত সময়ে। এর আগে দ্বিতীয়ার্ধে একের পর এক আর্জেন্টিনার আক্রমণ জাল খুঁজে পায়নি। প্রথমার্ধে কোটিভক্তদের মন ভরিয়ে দেওয়ার মতো নৈপূণ্য এখনো মেসিরা দেখাতে না পারলেও দ্বিতীয়ার্ধে দুর্দান্ত খেলেছে মেসিরা। কিন্তু সুইসদের রক্ষণব্যূহ এখনো তারা ভেদ করতে পারেনি। প্রথমার্ধে গোল করারে মতো ম্যাচে সুযোগও সৃষ্টি করতে না পারলেও দ্বিতীয়ার্ধে বেশ কয়েকটি গোলের সুযোগ তারা পেয়েছিল। তখনো দেখা যায়নি মেসি ম্যাজিকও। অথচ মেসিতেই সব খুঁজে ফিরছেন আর্জেন্টাইন কোচ আলেসান্দ্রো সাবেয়ার। সেই মেসি চমকেই জয় পেয়েছে তারা। যদিও গোলটি তিনি করেননি। করিয়েছেন প্রজ্ঞার সঙ্গে।
ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমারও ফাইনালে আর্জেন্টিনাকেই প্রতিপক্ষ হিসেবে মানছেন। এই জন্য শুভ কামনাও জানিয়েছেন। কিন্তু ঠিক মাঠে নামার আগে কিন্তু মেসিরা নিশ্চিত হতে পারেনি; তারা সুইজারল্যান্ডকে নিশ্চিত হারাতে পারবেই। কারণ আগে ‘বিগ ম্যাচ’ বনে যাওয়া ছোট-বড়র সমানে সমানে লড়াই দেখে তারা আরো বেশি সর্তক। মঙ্গলবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ম্যাচের পরতে পরতে স্নায়ুযুদ্ধ বিদ্ধমান ছিল। তবে অতিরিক্ত সময়ে সাকিরিরা যেভাবে মেসিদের চেপে ধরেছিল; তাতে অনেকেই বিপদের আশঙ্কা করা শুরু করেছিলেন।Last-gasp Di Maria saves Argentina, sinks Swiss
টগবগে আর্জেন্টাইন দলের সামনে উবুজুবু সুইস; এমনটা ভাবার অবকাশ ছিল না। তারাও দারুণ ছন্দে ছিল ম্যাচে। বিশেষ করে অতিরিক্তি সময়ে ম্যাচে ছিল টানটান উত্তেজনা। নির্ধারিত সময়ের শেষ অর্ধটা মেসিরা নিজেদের করে নিয়েছিলেন বটে। কিন্তু কোনো কিছুতেই গোলের দেখা পায়নি। বিশেষ করে ৭৮ মিনিটের মাথায় ম্যাজিকম্যান মেসির দুর্দান্ত একটি রুখে দিয়েছেন সুইস গোলরক্ষক। ঠিক তার ২ মিনিট আগেও আর্জেন্টাইন একটি সুযোগ লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়েছে। ফারনানদো জাগোর শটটি বার উচিয়ে বাইরে চলে গেছে। ৭৫ মিনিটের মেসি ম্যাজিক হতে হতেও হয়নি। ৩ জনকে কাটিয়ে বলটি আলতো পায়ে বক্সে তুলে দিয়েছেন। কিন্তু সেখানে দাঁড়ানো পালাসিও দুরন্ত হেডটি জাল খুঁজে পায়নি। ৬৭ মিনিটে পাবলো জাবালেতার দর্শণীয় ক্রস থেকে কোনো ফায়দা লুটতে পারেননি গঞ্জালো হিগুয়েন। বক্সের প্রান্ত সীমানা থেকে যে হেডটি তিনি নিয়েছেন; তা গোলের জন্য যথেষ্ট ছিল না। ঠিক তার ৩০ সেকেন্ড আগে লিওনেল মেসির একটি অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়েছে। ৬২ মিনিটেও গঞ্জালো হিগুয়েনের একটি হেড গোল গোল মনে হয়েছে; এই যা। কিন্তু জালে জড়ায়নি।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই গোলের জন্য সুইজাল্যান্ডের রক্ষকদূর্গের হামলা পড়েছে আর্জেন্টাইনরা। প্রথমার্ধে একটু ম্লান আর্জেন্টিনাকে উজ্জীতিব হয়েই ম্যাচ শুরু করেছে। ৪৭ মিনিটের মাথায়ই গোল করে এগিয়ে যেতে পারত মেসিরা। কিন্তু গঞ্জালো হিগুয়ের বাঁপ্রান্ত থেকে জোড়ালো শটটি রক্ষণভাগের এক খেলোয়াড়ের গায়ে লেগে ফিরে গিয়েছে। বলা যায় দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সুইসদের আর আক্রমণে আসার সুযোগ দেয়নি আর্জেন্টিনা। নিজেদের সীমানায় প্রহরা দিতে দিতেই তাদের সময় কেটেছে। তবে তারা শতভাগ সফলও হয়েছে। গোল করার সব ধরনের সুযোগ তারা নসাৎ করে দিয়েছে।
মেসিদের প্রথমার্ধের খেলা দেখে ভক্তরা সন্তুষ্ট হতে পারেননি। বরং খুবই সাদা-মাটা মনে হয়েছে খেলা। আর্জেন্টিনা যেভাবে আক্রমণ চালিয়েছে; শুরু থেকে ৪৫ মিনিট অবদি তা পাল্টা আক্রমণে ফিরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চালিয়েছে সুইসরা। দি মারিয়া ৪১ মিনিটের একটি গোছালো আক্রমণের আগেই সাকিরি-জোসিপের ৩৯ মিনিটের আক্রমণটি ছিল দুর্দান্ত।
ঐতিহাসিকভাবে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে সুইসরা এর আগে ৬ ম্যাচে একটিও জিততে পারেনি। হয়তো সেখানেই মেসিরা সর্তক থেকে নিশ্চিন্ত ছিলেন। কারণ আগে সুইসরা চারটে হেরেছে; দু’টো ড্র করেছে। এমনকী সর্বশেষ ফ্রেন্ডলি ম্যাচেও মেসির হ্যাটট্রিকে ভর করে ৩-১ ব্যবধানে হারিয়েছিল সুইরাজল্যান্ডকে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful