Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১০ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ৮ : ১১ অপরাহ্ন
Home / কুড়িগ্রাম / কচাকাটা ভূরুঙ্গামারী রুটের যাত্রীরা নছিমন ও করিমন নামক ভটভটির কাছে জিম্মি

কচাকাটা ভূরুঙ্গামারী রুটের যাত্রীরা নছিমন ও করিমন নামক ভটভটির কাছে জিম্মি

কচাকাটা,কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের কচাকাটা হতে ভূরুঙ্গামারী রুটের যাত্রীরা আষ্টে পিষ্টে নছিমন ও করিমন নামক ভটভটির কাছে জিম্মি হয়ে আছে। প্রতিনিয়ত যাত্রীরা হয়রানি সহ দূর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে। এক সময় এই রুটে বাস চলাচল থাকলেও এক অজানা কারণে তা বন্ধ হয়ে গেছে। তথ্য সূত্রে জানা গেছে কচাকাটার মাদার গঞ্জ বাসস্ট্যান্ড হতে ভূরুঙ্গামারী বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত ৩৩ কিলোমিটার সড়ক ও জনপদের রাস্তাটি এখন নছিমন ও করিমন নামক স্যালো ইঞ্জিন চালিত ভটভটির মালিকদের নিয়ন্ত্রণে। এসব যানের না আছে রুট পারমিট না আছে বৈধতা না আছে প্রশিক্ষিত চালক। নিয়ন্ত্রণ-হীন এসকল ভটভটি চলাচলে প্রতিনিয়ত ঘটছে দূর্ঘটনা, প্রাণ হারাতে হচ্ছে অনেকের।

বাস চলাচল বন্ধঃ
২০০০ সালে এ রুটে বাস সার্ভিস চালু করে উত্তর ধরলা বাস মালিক সমিতি। নিয়মিত ১ বছর বাস চললেও অজানা কারণে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায় আর এ সুযোগটি কাজে লাগায় নছিমন করিমনের মালিকেরা।

ভটভটির সংখ্যা ও পরিচালনাঃ
ভূরুঙ্গামারী থেকে মাদারগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত মোট ৩৩ কিলোমিটার রাস্তায় ৮০ টি ভটভটি প্রতিনিয়ত যাত্রী বহন করে আসছে। এ রুট দুই খন্ডে বিভক্ত, প্রথম অংশ কচাকাটা বাসস্ট্যান্ড হতে ভূরুঙ্গামারী বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত চলাচল করে ৬৫ টি। মাদারগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড হতে কচাকাটা বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত চলাচল করে ১৫টি। প্রতিদিন পালাক্রমে দুইজন চেইন-মাষ্টারের নিয়ন্ত্রণে চলে এ সমস্ত গাড়ি । চেইন খরচ বাবদ প্রতি টিপে তাদেরকে দিতে হয় ১০ টাকা।

কারা চালক ও মালিকঃ
অধিকাংশ ভটভটির চালকরা অপ্রাপ্ত বয়স্ক এবং কোন প্রকার একাডেমিক প্রশিক্ষণ নেই তাদের। ৫ থেকে ৭ দিনের প্রশিক্ষণই তাদের সম্বল। নেই তাদের বি আর টি এর অনুমোদন বা চালকের লাইসেন্স। মালিকদের মধ্যে বেশীরভাগই হচ্ছে বাস চালক বা বাসের কন্টাকটার বাকিগুলো স্থানীয় লোকজনের। কেউ কেউ নিজেই মালিক এবং চালক।

যাত্রীর সংখ্যা ও আয়-ব্যয়:
এ রুটে প্রতিদিন প্রতিটি ভটভটি ১৫ থেকে ২০ জন যাত্রী নিয়ে একবার যাওয়া আসা করে। গড় হিসাব মোতাকে প্রায় ৩ হাজার যাত্রী চলাচল করে। প্রতিদিনের খরচ বাদে প্রতিটি ভটভটি আয় করে ৫শত টাকা থেকে ৭শত টাকা। চালক ও হেলপার পায় যথাক্রমে ২৫০ টাকা ও ১০০ টাকা বাকী টাকা চলে যায় মালিকদের পকেটে। যাত্রীদের মাদারগঞ্জ হতে ভূরুঙ্গামারী যেতে গুনতে হয় ৬০ থেকে ৭০ টাকা।

প্রস্ততকারক ও যন্ত্রাংশ:
বেশীরভাগ ভটভটি নির্মাণ হয় পাবনা ও বগুড়ায়। নামে বেনামে এসব প্রস্ততকারক প্রতিষ্ঠানগুলোর নাই কোন সরকারের অনুমতি বা মেন্ডেট। তিন চাকার এসব ভটভটির মূল চালিকা শক্তি হচ্ছে পানি সেচের যন্ত্র স্যালো মেশিন। এসব যানে ব্রেকের রয়েছে দূর্বলতা রয়েছে নিয়ন্ত্রণে জটিলতা। বসার আসন হিসেবে দুটি ব্রেঞ্চ দুই সাইটে আলগাভাবে বসানো একটু ব্রেক কষলে তা নরে উঠে। বাসের ইষ্টিয়ারিং ও মোটরবাইকের হেন্ডল ব্যাবহার করা হয় পরিচালনার ক্ষেত্রে। হেড লাইট হিসেবে ব্যাবহার করা হয় বড় টর্চ লাইটের বাল্ব কখনো কখনো ব্যাবহার করা হয় হাতে ধরা টর্চ-লাইট যা রাতের বেলা সম্পূর্ণ ঝুঁকি পূর্ণ। এসব যান যখন চলে মনে হয় ঘোড়া দৌড়াচ্ছে যাত্রীরা দুলতে দুলতে প্রাণ হাতে নিয়ে প্রতিনিয়ত চলাচল করছে।

যেভাবে মেলে রুট পারমিটঃ
একজন মালিক নতুন কেনা ভটভটি অতি সহজেই রাস্তায় নামাতে পারেনা এর জন্য পোহাতে হয় নানা ঝক্কি ঝামেলা। অঘোষিত কিছু নিয়মকানুন মেনে তারপর মেলে যাত্রী বহনের অনুমতি। এ নিয়মকানুনের মধ্যে পড়ে স্থানীয় বাস শ্রমিক ইউনিয়নে মোটা অংকের টাকা উৎকোচ হিসেবে দেয়া, থানা পুলিশ সহ নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের মন ভরানোসহ নানা কলাকৌশল। রুট পারমিট পাওয়ার পরেও মাসিক চাঁদা হিসেবে স্থানীয় থানায় দিতে হয় ১০০ থেকে ২০০ টাকা। না দিলে গাড়ীর চাকা ঘুরবেন পক্ষান্তরে থানায় নিয়ে যাওয়া হয় গাড়ীটিকে। এই সমস্ত অলিখিত নিয়মে চলছে প্রতিদিনের কর্মকাণ্ড। এতে সরকার হারাচ্ছে লাখ লাখ টাকার রাজস্ব।

যাত্রী হয়রানি, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, দূর্ঘটনা, থানা পুলিশের চাঁদা, চেইন-বাবদ চাঁদা সহ শ্রমিক নেতাদের মন-তুষ্টি সকল টাকাই পরক্ষ্য ও প্রত্যক্ষ ভাবে বহন ও মেনে নিতে হয় যাত্রী রুপি নিরীহ জনসাধারণের। প্রতিটি দিন শুরু করতে হয় তাদের অনিশ্চয়তা ও আশংকার মধ্যদিয়ে। তাই তারা চায় আগের ন্যায় বাস চালু হোক নিরসন হোক যাত্রী হয়রানী সহ বন্ধ হোক অবৈধ যান চলাচলের। বাস চলাচল বিষয়ে উত্তর ধরলা বাস মালিক সমিতির সম্পাদক প্রভাষক স্বপন কুমার সাহার সাথে কথা হলে তিনি জানান রাস্তা ভালোনা তাছাড়া পর্যাপ্ত যাত্রী না থাকায় বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে, তবে রাস্তা ভালো হওয়ার কাজ শেষ হলে পুনরায় বাস চালনার সম্ভাবনা রয়েছে বলে তিনি জানান।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful