Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০ :: ৮ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ১১ : ২৮ পুর্বাহ্ন
Home / আলোচিত / নূর হোসেনের আইনজীবী নিয়োগে আদালতের প্রস্তাব

নূর হোসেনের আইনজীবী নিয়োগে আদালতের প্রস্তাব

ডেস্ক:  খান সুমন বৈধভাবে ভারতে এসেছেন। কলকাতা পুলিশ শুক্রবার এমন রিপোর্ট পেশ করেছেন আদালতে। নারায়ণগঞ্জের সাত হত্যাকান্ডের ঘটনায় প্রধান আসামি নূর হোসেনকে গ্রেফতারের সময় খান সুমনকেও গ্রেফতার করে কলকাতার বাগুইআটি থানার পুলিশ। ওই সময় কোন বৈধ কাগজ না পেয়ে তার বিরুদ্ধে অবৈধ প্রবেশের মামলা দায়ের করা হয়।

এদিকে, নূর হোসেন উত্তর ২৪ পরগনা জেলা দায়রা আদালতে আইনি লড়াইয়ের জন্য এখনও আইনজীবী নিয়োগ করেননি। সেক্ষেত্রে আইনি প্রক্রিয়ার কারণে আদালত আইনজীবী নিয়োগ করে নূর হোসেনকে সাহায্য করতে পারে।

উত্তর ২৪ পরগনা জেলা দায়রা আদালতের নির্দেশে নূর হোসেনদের মামলার তদন্ত কর্মকর্তা প্রভাকর নাথ শুক্রবার বিভাগীয় মূখ্য হাকিম মধুমিতা রায়ের কাছে খান সুমনের অনুপ্রবেশ বিষয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট জমা দেন।

১৪ জুন রাতে বাগুইআটি থানার পুলিশ নূর হোসেন, খান সুমন ও অহিদুজ্জামানকে দমদম বিমানবন্দর সংলগ্ন কৈখালির ইন্দ্রপ্রস্থ আবাসনের একটি ফ্লাট থেকে গ্রেফতার করে। অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

১৪ জুন গ্রেফতারের পর খান সুমন দাবি করে আসছিলেন তাকে পুলিশ ফাঁসিয়েছে। তিনি বৈধভাবে কলকাতায় বিমানে এসেছেন।

৭ জুলাই খান সুমনের আইনজীবী তারক চন্দ্র দাস আদালতকে জানান, তার মক্কেল বৈধভাবেই এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানে ঢাকা থেকে কলকাতা এসেছেন। পুলিশ তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে।

তিনি এ সময় আদালতে ভিসার আবেদনপত্রের কপি, প্লেনের টিকিট, পাসপোর্টের কপি এবং কাস্টমসের রিপোর্টের কপি জমা দেন। আদালত তদন্তকারী কর্মকর্তাকে আদালতে হাজিরা দিয়ে প্রকৃত রিপোর্ট জমা দেয়ার সমন দেন।

আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী শুক্রবার বাগুইআটি থানার তদন্ত কর্মকর্তা প্রভাকর নাথ উত্তর ২৪ পরগনা আদালতের মূখ্য বিভাগীয় হাকিম মধুমিতা রায়ের কাছে রিপোর্ট জমা দেন।

রিপোর্টে পুলিশ জানিয়েছে, খান সুমনকে গ্রেফতারের সময় কোন বৈধ কাগজ পাওয়া যায়নি। তাই তারা অবৈধ প্রবেশের মামলা দায়ের করেছেন। পরে তদন্তে জানা গেছে, বৈধভাবেই কলকাতায় এসেছেন খান সুমন।

সুমনের আইনজীবী এ সময় আদালতের কাছে জামিন আবেদন করেন। কিন্তু আদালত এ বিষয়ে সোমবার শুনানির দিন ধার্য করেন।

নূর হোসেন, খান সুমন ও অহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ভারতে অনুপ্রবেশের দায়ে ভারতীয় দন্ডবিধি ১৪, বিদেশি নাগরিক আইন (ফরেনারস অ্যাক্ট) লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়।

১৪ জুন গ্রেফতারের পরের দিন ১৫ জুন তাদের বারাসাতের উত্তর ২৪ পরগনা জেলা আদালতে তোলা হয়। আদালত প্রথমে তাদের আট দিনের পুলিশি রিমান্ডে দেন। রিমান্ড শেষে দ্বিতীয় দফায় ১৪ দিনের হাজতবাসের নির্দেশ দেন আদালত। এরপর দমদম কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয় নূর হোসেনসহ তিন আসামিকে। সোমবার হাজতবাসের মেয়াদ শেষ হলে তাদের আবারও আদালতে নেয়া হয়। আদালত আবারও ১৪ দিনের হাজতবাসের আদেশ দেন।

২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজনকে অপহরণের পর খুন করা হয়।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful