Templates by BIGtheme NET
আজ- সোমবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৯ :: ৬ কার্তিক ১৪২৬ :: সময়- ৫ : ৫৮ পুর্বাহ্ন
Home / কুড়িগ্রাম / বঙ্গসোনাহাট স্থলবন্দরের যাত্রা শুরু

বঙ্গসোনাহাট স্থলবন্দরের যাত্রা শুরু

নাগেশ্বরী, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: শুরু হল দেশের ১৮তম বঙ্গসোনাহাট স্থলবন্দরের যাত্রা। শনিবার নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান (এমপি) উদ্বোধনী ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে এর যাত্রা শুরু হয়। এ সময় স্থলবন্দরের পাশে ভুরুঙ্গামারীর বানুরকুঠিতে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গসোনাহাট শুল্ক-ষ্টেশনকে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর ঘোষণার পর ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ‘সেভেন সিষ্টার্স’ খ্যাত ৭টি রাজ্যের সাথে ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হল। মঙ্গাপীড়িত এই এলাকায় কর্মসংস্থান ও শিল্পায়নের মাধ্যমে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি আসবে। তিনি আরও বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর সোনাহাটসহ ৬টি নতুন স্থল বন্দর চালু করেছে। আরও ৬টি স্থল বন্দর চালুর অপেক্ষায় রয়েছে।
উদ্বোধনী সভায় আরও বক্তব্য রাখে, স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো. ইয়াহিয়া চৌধুরী, কুড়িগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য মো: জাফর আলী, জেলা আওয়ামীলীগ সহসভাপতি শিল্পপতি গোলাম মোস্তফা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান ও পুলিশ সুপার মো. মাহবুবুর রহমানসহ কুড়িগ্রাম, নাগেশ্বরী ও ভুরুঙ্গামারী আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ ।
মন্ত্রী আরও বলেন, স্থলবন্দরটি দ্রুত চালুর লক্ষ্যে সোনাহাট ব্রিজ ও নদী শাসনের কাজ এ বছরই শুরু হবে। স্থলবন্দর এলাকায় অধিগ্রহণকৃত জমির মালিকগণের শিক্ষিত সন্তানদের চাকুরি দিয়ে বেকারত্ব দুর করা হবে।
তিনি বলেন, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামীলীগ সরকারকে আবারো ক্ষমতায় আনুন। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের স্থলবন্দর শাখা ২৫ অক্টোবর প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে সোনাহাট শুল্ক স্টেশনকে পূর্নাঙ্গ স্থলবন্দর ঘোষণা করে। বাংলাদেশের ভূ-খণ্ডে ২৪ কি. মি. পথ অতিক্রম করলে ওই ৭টি রাজ্য থেকে ভারতের পশ্চিমাঞ্চলে স্বল্প খরচে পণ্য আনা নেয়া করা যেতে পারে। বর্তমানে ৩৫০ কি.মি. দূরত্ব অতিক্রম করে এই যোগাযোগ রা করতে হচ্ছে। এই স্থলবন্দরটি চালু হলে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের আমদানি ব্যয় হ্রাস পাবে। মাত্র ৩০ কি.মি. দূরত্বে অবস্থিত ভুটানের সাথেও বাণিজ্যের নতুন সম্ভাবনা সৃষ্টি হবে। পাশাপাশি বাংলাদেশী পণ্য রপ্তানির অবারিত সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে বন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়। পরে তিনি নাগেশ্বরী বাস স্ট্যান্ডে পথ সভায় বক্তব্য রাখেন। সেখানে তিনি বলেন, যারা ৭১ সালে দেশের স্বাধীনতা চায়নি তারা আবারো দেশের অর্থনৈতিক মুক্তির বিরোধিতা করছে। বিএনপির মদদে জামাত শিবির সারাদেশে তাণ্ডব চালাচ্ছে। এর জবাব এদেশের জনগণ দেবে আগামী নির্বাচনে ভোটের মাধ্যমে। এরপর তিনি পৌর মিলনায়তনে বণিক সমিতির সংবর্ধনায় অংশ নেন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful