Templates by BIGtheme NET
আজ- রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১২ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ১০ : ০৫ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / সমস্যার আবর্তে পার্বতীপুর জংশন; ক্যানাডিয়ান বিল্ডিং দখলের পায়তারা

সমস্যার আবর্তে পার্বতীপুর জংশন; ক্যানাডিয়ান বিল্ডিং দখলের পায়তারা

পার্বতীপুর সংবাদদাতা: পার্বতীপুর রেলওয়ের ক্যানাডিয়ান বিল্ডিং নামের একটি বাংলো একটি প্রভাবশালী মহল দখলের পায়তারা করছে বলে আভাস পাওয়া গেছে। সেই সাথে একটি বিশেষ মহলের কারনে পার্বতীপুর রেল স্টেশনের উন্নয়ন থমকে গেছে বলেও রেলওয়ের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

রেল সূত্রে জানা গেছে, পার্বতীপুরে ১৯৮৩ সালের ২৮ অক্টোবর পার্বতীপুর রিলে ইন্টার লকিং প্রকল্প (সুইচ কেবিন) স্থাপন করা হয়। এসময় বিদেশী ইঞ্জিনিয়ারিংদের থাকার জন্য একটি বিল্ডিং নির্মাণ করা হয়। সেই সময় থেকে এই বিল্ডিংটির নাম অনেকে বলেন ক্যানাডিয়ান বিল্ডিং (ইসি/১৯)।

সুইচ কেবিনের কাজ শেষের পর থেকে ওই বাংলোতে রেলওয়ের কয়েক জন অফিসার ছিল বলে কেউ কেউ বলছেন। গত এক বছর আগে বিল্ডিংটি বিদেশী মিশনারী ল্যাম্ব হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ভাড়ায় নেন। কিছুদনি পরে ল্যাম্ব কর্তৃপক্ষ বাংলোটি পুনরায় রেল কর্তৃপক্ষের নিকট হস্তান্তর করেন। বর্তমানে বাংলোটি একজন মাস্টার রোলের এক কর্মচারী পাহারায় নিয়োজিত আছেন। অভিযোগ উঠেছে ওই বিল্ডিংটি একটি প্রভাবশালী মহল দখলে নেওয়া পায়তারা করছেন।

এছাড়া বাবুপাড়া, সাহেবপাড়া, নিউকলোনী, হলদীবাড়ী, রহমত নগর কলোনী ও পাওয়ার হাউজ কলোনী বেশ কিছু কোয়াটারসহ ও রেল এলাকার ফাঁকা জায়গাগুলো অনেকেই দখল করে নিয়ে বাসা বাড়ী নির্মাণ করেছেন। এসব অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে রেল কর্তৃপক্ষ উচ্ছেদ অভিযান দিনক্ষণ ঠিক হলেও রাজনৈতিক চাপের কারনে তা পারছেন না। তবে অবৈধ দখলদারেরা বাসা বাড়ীগুলো দখল করে আছে বলেই বাসা বাড়ীর দরজা, জানালাসহ অন্যান্য মালামাল সংরক্ষণ আছে। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি রেলওয়ের অপ্রয়োজনীয় বাসা-বাড়ী, পুকুর বা অব্যহৃত জায়গা দখলকারীদের মাঝে লিজ প্রথা চালু জন্য।

এদদিকে, পশ্চিমজোনের শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী সর্ববৃহৎ রেল জংশন স্টেশন পার্বতীপুর। প্রথম শ্রেণীর স্টেশন হলেও বিল্ডিংগুলো শত বছরের পুরনো। স্টেশনের ৩,৪ ও ৫ নম্বর ­প্লাটফরমের চেয়ে ট্রেন চলাচলের জন্য রেল লাইন উঁচু ! যা ছোট শিশুরা, বয়স্ক পুরুষ, মহিলা এমনকি গর্ভবতী মায়েরা অন্যের সাহায্য ছাড়া ট্রেনে উঠতে পারেন না। ১৯৯০ সালের পর থেকে ৫টি প্লাটফরমের জন্য মাত্র একজন রেল পুলিশ  কর্তব্য পালন করে আসছে ! নেই স্টেশনের নিরাপত্তা প্রাচী। ছিনতাইকারীরা যাত্রীদের মালামাল নিয়ে অনায়াসে চলে যেতে পারে। এখানকার কর্মকর্তারা রেল স্টেশনের উন্নয়নের জন্য প্রকল্প পাঠালেও অজ্ঞাত কারনে টেন্ডার হয়না বা টেন্ডার হলেও ঠিকাদারেরা কাজ করতে চাইছে না কেন ? রেল ঠিকাদারেরা ভয়ে কাজ করতে আগ্রহী হচ্ছেন না। স্টেশন উন্নয়নে এক শ্রেণীর লোকেরা এতে বাঁধা সৃষ্টি করছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিৎ করেছেন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful