Templates by BIGtheme NET
আজ- মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ৪ : ০৪ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / ফারাক্কার প্রভাবে পানি নেই নদীতে : সেচ প্রকল্প নিয়ে সংশয়

ফারাক্কার প্রভাবে পানি নেই নদীতে : সেচ প্রকল্প নিয়ে সংশয়

লালমনিরহাট: লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার ধরলা নদীর উপর ১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন রাবার ড্যামের কাজ চলছে প্রকৌশলীদের অনিয়ম কৌশল আর ক্ষমতাসীন দলের কয়েক নেতার অনিয়মের মধ্যে। নির্মাণ কাজের শুরুতে যেভাবে অনিয়ম হচ্ছে এতে করে কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রাবার ড্যামের কাজের মান, স্থায়িত্ব এবং সেচ প্রকল্পের ঊদ্দেশ্যে ব্যয় করা কোটি কোটি টাকা যাচ্ছে পানিতে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট কাজে অভিজ্ঞ ও সচেতন মহল।

জানা গেছে, খোদ পাটগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতিও কাজের মান নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। উপজেলার নদী তীরবর্তী কয়েকটি গ্রামের সাতশ একর জমির কৃষি আবাদ সহজীকরণ সেচের আওতায় আনার লক্ষ্যে ধরলা নদীতে ১৩০ মিটার দৈর্ঘ্য এবং ৫৪ মিটার প্রস্থ কংক্রিটের প্লাট ফর্মের ওপর তিনটি রাবার বসিয়ে ‘রাবার ড্যাম’ নির্মাণের জন্য ‘লালমনিরহাট এলজিইডি’র নিজস্ব অর্থায়নে গত বছরের ১৩ মার্চ দরপত্র আহবান করা হয়। সে অনুযায়ী ৪৩ সিডিউল বিক্রি হলেও রহস্যজনক কারণে অংশ গ্রহণ করে মাত্র ৩ জন ঠিকাদার এবং সর্বনিন্ম দরদাতা হিসেবে আদিতমারীর এইচএমএন্ডআর (জেভি) নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে ১৩ কোটি ৮২ লাখ ছাব্বিশ হাজার ১৪ টাকায় কাজটি বরাদ্দ দেয়া হয়। পরে তা বাড়িয়ে ১৩ কোটি ৯৮ লাখ নব্বই হাজার ৮৫৮ টাকা করা হয়।

পরিকল্পনানুযায়ী গত ৭ ডিসেম্বর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোতাহার হোসেন উদ্ভোধন করেন এবং উপজেলা সদরের বানিয়াপাড়া গ্রামে ধরলানদীর উপর নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। অনেকের মতে ত্রুটিপূর্ণভাবে নির্মাণাধীন রাবার ড্যাম প্রকল্পটির প্রকৃত সুফল কৃষকরা পাবেন না।

অভিযোগ উঠেছে মূল নদীর ওপরে সিমেন্টের যে প্লাট ফর্ম নির্মাণ করা হচ্ছে তাতে সিমেন্টের সাথে নি¤œমানের বালি ও কাটা পাথরের পরিবর্তে ধুলা-বালি মিশ্রিত সিঙ্গেস পাথর দিয়ে কাজ করা হচ্ছে দাপটের সঙ্গে। এছাড়াও সিমেন্টের সাথে ৩ থেকে ৫টি করে অতিরিক্ত বালু, পাথর মেশানো হচ্ছে। অপরদিকে প্লাটফর্ম নির্মাণে রডের মাঝখানে ভ্রাইব্রেটর মেশিন দিয়ে গ্যাপ পূরণ ও ভালোভাবে সিমেন্ট বসানোর নিয়ম থাকলেও তা করা হচ্ছে না।

এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের নিকট নির্মাণ শ্রমিকরা জানান, কোনো কিছু জানালে আমাদেরকে কাজে নিবেনা ঠিকাদারের লোক। সরেজমিনে প্রকল্প এলাকায় গেলে দায়িত্ব প্রাপ্ত উপ-সহকারী প্রকৌশলী (এসও) আলী আকবর মোবায়দুল ইসলাম আমজাদ হোসেনসহ কাউকে পাওয়া না গেলেও জানা গেল কাজ পরখ করছেন উপজেলা প্রকৌশলী অফিসের পিয়ন মোশারফ হোসেন। তিনি বললেন কাজ ভালই চলছে।

উপজেলা পরিষদের একটি সূত্রে জানা গেছে, গত ২১ জানুয়ারী উপজেলা পরিষদে মাসিক আইন শৃঙ্খলা কমিটির মিটিংয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম নাজু রাবার ড্যাম নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ তুলেন ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বিষয়টি দেখার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বলেন।

অন্যদিকে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ উজানে তিস্তা নদীতে ফারাক্কা বাঁধ দেয়ায় শাখা নদী ধরলায় শুকনো মৌসুমের শুরুতে-ই হাটু পর্যন্ত পানির দেখা নেই আর প্রকল্প এলাকা থেকে সীমান্তের দূরত্ব মাত্র ৫ থেকে ৬ কি. মি. হওয়ায় ওই রাবার ড্যাম নির্মাণে সিংহভাগ টাকা কৃষকদের কথা ভেবে ব্যয় করা হলেও কৃষকরা সুফল পাবে কিনা তা নিয়ে রয়েছে চরম সংশয়।

নির্মাণ কর্মে ত্রুটি প্রসঙ্গে প্রকল্পের ঠিকাদার হাকিম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘ঠিকমত-ই সিডিউল মোতাবেক কাজ হচ্ছে কোনো অনিয়ম হচ্ছেনা।’

পাটগ্রাম উপজেলা প্রকৌশলী হায়দার আলীর সাথে কথা বললে তিনি উল্টো জানান, ‘পরীক্ষা করে দেখেন কাজ ভালো হচ্ছে না খারাপ হচ্ছে।’

এ ব্যাপারে লালমনিরহাট এলজিইডির ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী ও সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী জাহিদুর রহমান মন্ডল বলেন, ‘আমরা সঠিক নিয়মে কাজ দেখছি, করছি কোনো অনিয়ম হচ্ছে না।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হায়ত মোহাম্মদ রহমতুল্ল্যাহ বলেন, রাবার ড্যাম নির্মাণে ত্রুটি হচ্ছে নাকী শুনেছি কিন্তু বিষয়টি লিখিত অভিযোগ পাইনি আর অভিযোগ না করলে আমার কোনো করার নেই।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful