Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১৫ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ১ : ০৩ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / পার্বতীপুর কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় কোটি টাকার মালামাল চুরি

পার্বতীপুর কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় কোটি টাকার মালামাল চুরি

পার্বতীপুর, দিনাজপুর।। পার্বতীপুরে অবস্থিত বাংলাদেশের রেলওয়ে’র ইঞ্জিন মেরামতের একমাত্র কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানার (কেলোকা) মুল ভবনের ভিতরে সুরক্ষিত ল্যাবরেটরি রুম থেকে বিপুল পরিমান সাপোর্ট ব্রাস বিয়ারিং,বোরিং চিপস,পিতল ও তামার তার রহস্য জনক ভাবে চুরি হয়। দীর্ঘ ১০ মাসেও সরকারের মালামাল চুরির রহস্য উদঘাটনে পুলিশ ব্যর্থ হয়েছে। কেলোকার প্রধান নির্বাহী মোহাম্মাদ হাসান মনসুর মামলাটি তদন্তের জন্য ক্রিমিনাল ইনভেষ্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি)কে হস্তান্তরের আবেদন করলেও আজও কোন সুরাহা হয়নি।

গত ২৭ মার্চ’১২ দিবাগত রাতে পার্বতীপুরের কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানার মুল ভবনের ৪০টি গেটের শতাধিক তালা সুরক্ষিত ছাড়াও কোনো গ্রিল না কেটেই এবং সার্বক্ষনিক নিরাপত্তাবাহিনী পাহারারত অবস্থায় প্রায় কোটি টাকার মুল্যবান মালামাল চুরির ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে রেলাঙ্গনে ও প্রশাসনে মধ্যে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। সে সময়ে দফায় দফায় পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, দিনাজপুর সিআইডি ও রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর কর্মকর্তাগন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পার্বতীপুর মডেল থানা পুলিশ এক মাস পর গত ৩ মে’১২ বৃহস্পতিবার রাতে রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর (আরএনবি) হাবিলদার রেহান উদ্দিনের ও মেসিনারিজ সেকসনের নওরেশ আলীকে গ্রেফতার করে দিনাজপুর জেল হাজতে প্রেরন করে। কয়েক দিন জেল হাজত থেকে জামিনে ছাড়া পেয়ে বহাল তবিয়তে চাকুরি করছে।

সরকারের একটি গুরুপ্তপূর্ন কারখানা থেকে প্রায় কোটি টাকার মালামাল চুরির ১০ মাস অতিবাহিত হলেও পুলিশ মালামাল উদ্ধার সহ দোষি ব্যক্তিদের আটক করতে ব্যর্থ হয়। এ নিয়ে কেলোকার প্রধান নির্বাহী মোহাম্মাদ হাসান মনসুর গত ১০ নভেম্বর ১২ প্রনি/কেলোকা/তদন্ত/০৭ স্বারকে রেল ও পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করলেও আজও কোন সুরাহা হয়নি। তিনি আরো উল্লেখ করেন, কারখানার চাবি ও সীলগালা অক্ষত থাকা অবস্থায় কিভাবে এ দুঃসাহসিক চুরি সংঘটিত হয়। চুরি যাওয়া মালামাল উদ্ধার সহ দোষি ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি না পেলে ভবিষ্যতে আবারও এ ধরনের ঘটনা পুনরাবৃত্তি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে উল্লেখ করে মামলাটি তদন্তের জন্য ত্রি“মিনাল ইনভেষ্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি)তে হস্তান্তরের জন্য অনুরোধ করেন।

উল্লেখ্য, পার্বতীপুর কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানার (কেলোকা) ২৮ মার্চ’১২ সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে ল্যাবরেটরি রুমের একটি তালা ভাঙ্গা অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে ল্যাবরেটরি রুমের ভিতরে প্রবেশ করে দেখা যায় সেখানে রক্ষিত ৪৫ বস্তা (প্রতিবস্তা ৫০ কেজি)পিতলের স্ক্যাপ চিপসসহ বিপুল পরিমান বৈদ্যুতিক রাবার ইনসুলেশন কপার ক্যাবল, সাপোর্ট ব্রাস বিয়ারিং,বোরিং চিপস চুরি হয়।

প্রধান নির্বাহী চুরি যাওয়া মালামালের আনুমানিক মূল্য অর্ধ কোটি টাকা হবে বলে জানালেও কেলোকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী বলেন, প্রায় কোটি টাকার মালামাল চুরি হয়েছে। ল্যাবরেটরি রুমের ইনচার্জ সিনিয়র সাব এ্যাসিটেন্ট ইঞ্জিনিয়ার (এসএসএই) নজরুল ইসলাম বলেন, গত ২১ মার্চ থেকে চুরি যাওয়া মালামালগুলো সেখানে রক্ষিত ছিল।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful