Templates by BIGtheme NET
আজ- সোমবার, ১৯ অগাস্ট, ২০১৯ :: ৪ ভাদ্র ১৪২৬ :: সময়- ৩ : ০২ পুর্বাহ্ন
Home / ক্যাম্পাস / “দেশপ্রেম জাগ্রত করার একমাত্র উপায় হচ্ছে মানসম্মত শিক্ষা”

“দেশপ্রেম জাগ্রত করার একমাত্র উপায় হচ্ছে মানসম্মত শিক্ষা”

RU-Convacation-রাবি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নবম সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, শুধু অর্থনৈতিক উন্নয়ন নয়, বরং বুদ্ধিবৃত্তিক উন্নয়ন, অসাম্প্রদায়িক জীবনবোধ, সর্বোপরি গভীর দেশপ্রেম জাগ্রত করার একমাত্র উপায় হচ্ছে মানসম্মত শিক্ষা। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে শিক্ষার পাশাপাশি সৃজনশীল কর্মকান্ড ও চিন্তার স্বাধীনতা বিকাশে অবদান রাখতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেডিয়াম মাঠে রবিবার দুপুরে নবম সমাবর্তনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি বলেন, শিক্ষার সঙ্গে গবেষণা ওতপ্রোতভাবে জড়িত। কারণ গবেষণার মাধ্যমে সৃষ্টি হয় নতুন জ্ঞানের, যা সমাজের চাহিদা পূরণে ভূমিকা রাখে।

সমাবর্তনে গ্রাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে আচার্য বলেন, আজকের এই সমাবর্তন একদিকে যেমন তোমাদের অর্জনকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দিচ্ছে, তেমনি দায়িত্বও অর্পণ করছে। সে দায়িত্ব নিজের পরিবারের প্রতি, সমাজের প্রতি, সর্বোপরি দেশ ও জাতির প্রতি। মনে রাখবে, তোমাদের এ পর্যায়ে নিয়ে আসতে সমাজের মেহনতি মানুষের অবদান রয়েছে। তাদের কাছে তোমরা ঋণী।

তিনি আরও বলেন, মনে রাখবে সাফল্যের শিখরে পৌছতে অধ্যবসায়, পরিশ্রম ও কাজের প্রতি ভালোবাসার বিকল্প নেই। থাকতে হবে সততা ও নিষ্ঠা। তাহলেই তোমরা জীবনে সাফল্য অর্জন করতে পারবে।

রাষ্ট্রপতি সমাবর্তনে আরও বলেন, উচ্চশিক্ষার মান নিয়ে যাতে কেউ প্রশ্ন তুলতে না পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। সম্মিলিত প্রচেষ্টা, নিরন্তর শিক্ষা ও গবেষণাসহ জ্ঞানের আদান-প্রদানের মাধ্যমে দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে উঠুক জ্ঞান চর্চা ও বিকাশের শ্রেষ্ঠ পাদপীঠ-এ প্রত্যাশা করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নবম সমাবর্তন বক্তা হিসেবে দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া’র উপাচার্য অধ্যাপক তালাত আহমেদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্য সবকিছুর চেয়ে শিক্ষার্থীরাই প্রধান। বড় বড় দালান-কোঠার চেয়ে শিক্ষার্থীদের উৎকর্ষতার মাধ্যমেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পরিচিত হয়। তাই তোমাদের যে পরিবেশ শিক্ষা দেওয়া হয়েছে পেশাগত একাগ্রতা, দক্ষতা ও ব্যক্তিগত শক্তিমত্তার মাধ্যমেই তার সীমা অতিক্রম করতে পারবে। তোমাদের মধ্যে যে সুপ্তসম্ভাবনা রয়েছে তা অনুধাবন করার চেষ্টা করতে হবে। মনে রাখতে হবে নিজেদের, পিতামাতা, প্রতিষ্ঠান ও বৃহত্তর সমাজের প্রতি তোমাদের দায়বদ্ধতা রয়েছে।

এর আগে দুপুর ২টা ২৫ মিনিটে রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদের নেৃতত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবাস বাংলাদেশ মাঠ থেকে সমাবর্তন র‌্যালিটি বিশ্ববিদ্যালয় স্টেডিয়ামে অবস্থিত সমাবর্তন প্যান্ডেলে পৌঁছায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এন্তাজুল হকের সঞ্চালনায় সমাবর্তনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন। এরপর বিভিন্ন অনুষদের ডিন, পিএইচডি, এমফিল এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রিপ্রাপ্তদের আচার্যের নিকট উপস্থাপন করেন। আচার্যের ডিগ্রি প্রদানের পর বক্তব্য দেন সমাবর্তন বক্তা অধ্যাপক তালাত আহমেদ। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য রাখেন।

এবারের সমাবর্তনে ২০০৬ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯টি অনুষদ ও ৫টি ইনস্টিটিউট থেকে পিএইচডি, এমফিল, স্নাতকোত্তর এবং এমবিবিএস, বিডিএস ও ডিভিএম ডিগ্রি অর্জনকারী ৪ হাজার ৭৭১ জন গ্রাজুয়েটকে ডিগ্রি প্রদান করা হয়।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful