Templates by BIGtheme NET
আজ- বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই, ২০২০ :: ২৫ আষাঢ় ১৪২৭ :: সময়- ৩ : ৩৯ পুর্বাহ্ন
Home / পাবনা / মৃত্যুর কাছে শিশু আরাফাতের হার

মৃত্যুর কাছে শিশু আরাফাতের হার

পাবনাপাবনা : ১৫ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানল জেলার বেড়ায় অপহরণের পর উদ্ধার হওয়া আহত শিশু আরাফাত (১১)।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার বিকেল ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

আরাফাতের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার বাবা আব্দুল মাজেদ।

এদিকে, গত দু’দিনে অভিযান চালিয়ে অপহরণের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে চারজনকে আটক করেছে পুলিশ। এর মধ্যে তিনজন ঘটনার সঙ্গে নিজেদের সম্পৃক্ত করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকরোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন।

বেড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিকদার মো. মশিউর রহমান জানান, বেড়া পৌর এলাকার স্যানালপাড়া মহল্লার আব্দুল মাজেদের ছোট ছেলে আরাফাত হোসেন (১১) ২১ আগস্ট বিকেলে অপহৃত হয়। ২২ আগস্ট দুপুরে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পেছনের একটি জঙ্গল থেকে মুমূর্ষু অবস্থায় শিশু আরাফাতকে উদ্ধার করে বেড়া থানা পুলিশ। প্রথমে তাকে বেড়া হাসপাতাল, পরে সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর হাসপাতাল, এরপর বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় ওই দিন রাতেই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার বিকেলে শিশু আরাফাত মারা যায়।

ওই ঘটনায় আরাফাতের বাবা আব্দুল মাজেদ বাদী হয়ে ২৬ আগস্ট বেড়া থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। এরপর শনি ও রবিবার অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে চারজনকে আটক করে পুলিশ।

আটকরা হলেন- স্যানালপাড়ার আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে ইমরান হোসেন (১৫), জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে মনোয়ার হোসেন (১৪), আলম মোল্লার ছেলে রমজান আলী (১৪) ও হাবিবুর রহমানের ছেলে বিশু ওরফে বিশা (১৫)।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বেড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান জানান, আটকদের মধ্যে ইমরান, মনোয়ার ও রমজানকে সোমবার বিকেলে পাবনা আমলি আদালত-৩ এ হাজির করা হয়। বিচারক একেএম রওশন জাহানের কাছে তারা ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়।

তিনি আরও জানান, মূলত টাকার লোভে শিশু আরাফাতকে অপহরণ করেছিল আসামিরা। অপহরণের পর গলায় গামছা পেঁচিয়ে আরাফাতের শ্বাসরোধ করে। পরে মৃত ভেবে বেড়া হাসপাতালে পেছনের জঙ্গলে ফেলে রাখে। এরপর আরাফাতের পরিবারের কাছে ১৬ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা। পরে পুলিশ মোবাইলের কললিস্ট ধরে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিশু আরাফাতের বাবা আব্দুল মাজেদ মুঠোফোনে দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘আমার ছেলেকে তো চিরদিনের জন্য হারালাম। কিন্তু যারা অপহরণ ও হত্যার সঙ্গে জড়িত আমি তাদের ফাঁসি চাই।’

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful