Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০ :: ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ :: সময়- ৬ : ০৫ পুর্বাহ্ন
Home / টপ নিউজ / মীর কাসেমের ফাঁসি কার্যকর

মীর কাসেমের ফাঁসি কার্যকর

 jjjjjjjjjjjjjjjjjডেস্ক:একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে দোষী সাব্যস্ত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

আজ শনিবার রাত ১০টা ৩০ মিনিটে ঢাকার অদূরে গাজীপুরের কাশিমপুর-২ কারাগারে ফাঁসির রশিতে ঝুলিয়ে মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। জেলার নাশির আহমেদ মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ফাঁসি কার্যকরে দায়িত্বে ছিলেন চার জল্লাদ। এরা হলেন- শাহজাহান, রিপন, দীন ইসলাম ও শাহীন। ফাঁসির আগে জল্লাদ শাহজাহানের নেতৃত্বে মঞ্চ ঘিরে শনিবার সন্ধ্যার পর দুই দফা মহড়া হয়।

 ষষ্ঠ যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসি

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিদের মধ্যে ষষ্ঠ ব্যক্তি হিসেবে মীর কাসেমের শাস্তি কার্যকর করা হলো। এর আগে পাঁচ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়। তাদের মধ্যে চার জনই জামায়াতের শীর্ষ নেতা। এর আগে যে পাঁচ জনের দণ্ড কার্যকর করা হয়েছে, তাদের সবাইকে ফাঁসিতে ঝোলানো হয়েছে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে। কাশিমপুর কারাগারে কোনো যুদ্ধাপরাধীর এই প্রথম মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হলো।

কর্মকর্তাদের কারাগারে প্রবেশ

রাত সাড়ে ৯টায় কারাগারে প্রবেশ করেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এসএসম আলম ও সিভিল সার্জন ডা. আলী হায়দার খান। পরে সিভিল সার্জন কারাগারের চিকিৎসককে নিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষী করতে মীর কাসেম আলীর সেলে যান। তার আগে মীর কাসেম আলীকে গোসল করিয়েছেন ইমাম বেলাল উদ্দিন। এর আগে দুপুর ২টার দিকে কারাগারে প্রবেশ করেন অতিরিক্ত আইজি (প্রিজন্স) কর্নেল ইকবাল কবীর, বিকেল ৪টায় প্রবেশ করেন ঢাকা বিভাগের ডিআইজি (প্রিজন্স) গোলাম হায়দার। সন্ধ্যা ৭টার দিকে কারাগারে যান আইজি (প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন।

স্বজনদের সাক্ষাৎ

আজ বিকেল ৩টা ৩৫ মিনিটে মীর কাসেম আলীর সঙ্গে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে শেষ দেখা করেন তাঁর পরিবারের সদস্যরা। পরিবারের ৪০ থেকে ৪৫ জন সদস্য কারাগারে প্রবেশ করে। বিভিন্ন প্রক্রিয়া শেষে পরিবারের সদস্যরা সোয়া ৪টায় দেখা করার সুযোগ পান। সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় পরিবারের সদস্যরা কারাগার থেকে বেরিয়ে আসেন। সাক্ষাৎ শেষে বেরিয়ে মীর কাসেমের স্ত্রী খন্দকার আয়েশা খাতুন সাংবাদিকদের বলেন, তিনি (মীর কাসেম) মৃত্যুকে ভয় করেন না। মীর কাসেম শেষ মুহূর্তে আইনজীবী ছেলের সঙ্গে দেখা না হওয়ায় আক্ষেপ করেন। প্রায় তিন ঘণ্টা সাক্ষাতের পর কারাগারের বাইরে এসে কাসেমপত্নী সাংবাদিকদের আরও বলেন, যারা ফাঁসি দিচ্ছে তারা জয়ী হবে না। এই মৃত্যু ইসলামের জন্য মৃত্যু। এই মৃত্যু শহীদের শামিল। এর আগে মীর কাসেমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে তাঁর পরিবারের সদস্যদের ডাকে কারা কর্তৃপক্ষ।

কারাগার এলাকায় সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি

মীর কাসেম আলীর ফাঁসি কার্যকর ঘিরে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার এলাকায় সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। কারাফটক ও এর আশপাশের এলাকায় ৪ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া কারাগার এলাকাসহ গাজীপুরে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। আজ শনিবার সন্ধ্যায় গাজীপুরজুড়ে টহল দিতে শুরু করেছেন ৪ প্লাটুন বিজিবি সদস্য। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রাহেনুল ইসলাম বলেন, পুলিশ-র‌্যাবের পাশাপাশি ৪ প্লাটুন বিজিবি স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে রাখা হয়েছে। এছাড়া গাজীপুরে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful