Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০ :: ১৫ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ৮ : ১৩ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / দৈহিক মিলনের ভিডিও ফুটেজ বাজারে; সর্বত্রই ক্ষোভসহ নিন্দার ঝড়

দৈহিক মিলনের ভিডিও ফুটেজ বাজারে; সর্বত্রই ক্ষোভসহ নিন্দার ঝড়

Rep 3নিয়াজ আহম্মেদ সিপন,কালীগঞ্জ প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের ইউএসডিও এর কমিউনিটি মোবালাইজার পদে চাকুরীরত এক যুবতির সাথে একাধিক দৈহিক মিলনের আপত্তিকর অশ্লীল ভিডিও ফুটেজ বাজারে ছেড়েছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জিএস ফারুক। ওই প্রভাবশালী ছাত্রলীগ নেতা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার আরও একাধিক মেয়েকে ফাঁদে ফেলে তাদের সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলে। স্কুল-কলেজগামী একাধিক মেয়েকে ফুঁসলিয়ে গোপনে বিয়ে করলেও ফারুক তাদের স্ত্রী মর্যাদা না দিয়ে প্রতারণা করার বিষয়টি ফাঁস হয়ে যাওয়ায় সর্বত্রই ক্ষোভসহ নিন্দার ঝড় বইছে। এদিকে কালীগঞ্জ থানা বিএনপি সহ অন্যান্য সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এর তীব্র নিন্দা এবং ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন।

জানা গেছে, কালীগঞ্জ উপজেলার মদাতি ইউনিয়নের মৌজা শাখাতি গ্রামের মতিউর রহমান ওরফে বাবু মাষ্টারের পুত্র ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ফারুক হোসেন (৪৭) নব্বই দশকে করিম উদ্দিন পাবলিক ডিগ্রি কলেজ ছাত্র সংসদের জিএস ছিলেন। প্রভাবশালী সাবেক এ ছাত্রলীগ নেতা প্রায় দু’বছর আগে দলগ্রাম ইউনিয়নের পাটোয়ারিটারির এক স্কুলগামী সুন্দরি মেয়েকে ফুঁসলিয়ে তার সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। ওই মেয়েটির কাছে ফারুক স্ত্রী (প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা) এবং তিন সন্তান থাকার বিষয়টি গোপন করেন। মেয়েটির সাথে সম্পর্ক স্থাপনের পর একাধিকবার অবৈধ মেলামেশা করে তা ভিডিও ধারণ করে তাকে জিম্মি করে। এক পর্যায়ে বিষয়টি মেয়েটির দরিদ্র বাবা-মা জানতে পারলে নিজেদের সম্মান রক্ষার্থে এবং ফারুকের ভয়ে তার সাথে বিয়ে দেন। বিয়ের দু’বছর পার হয়ে গেলেও মেয়েটিকে স্ত্রীর মর্যাদা দিয়ে বাড়িতে তোলেনি ফারুক। সম্প্রতি লম্পট ফারুক উপজেলার চন্দ্রপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের ইউএসডিও এর কমিউনিটি মোবালাইজার পদে চাকুরীরত এক যুবতির সাথে অবৈধ সম্পর্কের একাধিক আপত্তিকর ভিডিও বাজারে ছড়িয়ে পড়লে ফারুকের দ্বিতীয় স্ত্রী হতাশ হয়ে পড়েন। তিনি মানসিক দিক দিয়ে ভেঙ্গে পড়েন এবং তার বাবা-মা তাকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন। মেয়েটির সাথে ফারুক বিষয়ে কথা বললে নির্বাক হয়ে যান এবং তার দু’চোখ বেয়ে পানি ঝরতে থাকে।
উল্লেখ্য, লম্পট ফারুক উপজেলার চন্দ্রপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের ইউএসডিও এর কমিউনিটি মোবালাইজার পদে চাকুরীরত এক যুবতির সাথে একাধিকবার দৈহিক মিলনের আপত্তিকর অশ্লীল ভিডিও ফুটেজ বাজারে ছেড়ে এলাকায় হৈচৈ ফেলেছে। ওই অশ্লীল ভিডিও ফুটেজগুলো মোবাইলের মাধ্যমে স্কুল-কলেজগামী ছেলেমেয়েদের হাতে পৌঁছালে বিষয়টি মিডিয়া কর্মীসহ স্থানীয় প্রশাসনের দৃষ্টিতে আসে। অবশেষে মেয়েকে রক্ষা করতে ঘটনার মূল হোতা ফারুক সহ ৫ জনকে আসামী করে ‘নারী নির্যাতন ও পর্ণোগ্রাফি’ আইনে বাদী হয়ে গত মঙ্গলবার রাতে কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন ওই যুবতির বাবা।
কিন্তু ঘটনাটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে ঘটনার মুল হোতা ফারুক ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যায়। এমনকি ক্ষমতাসীন দলের নেতারা তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন।
কালীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম ও উপজেলা যুবদলের সভাপতি এটিএম ঈশা শাহীন সহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এর তীব্র নিন্দা এবং ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন। তারা অবিলম্বে ঘটনার মূল হোতা ফারুককে গ্রেফতারের দাবি করেন।
এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ থানার ওসি আমিরুজ্জামান বলেন, আসামীদের গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চলছে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful