Templates by BIGtheme NET
আজ- রবিবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২০ :: ১০ কার্তিক ১৪২৭ :: সময়- ১১ : ২৮ অপরাহ্ন
Home / নীলফামারী / নীলফামারীতে পৃথক অগ্নিকান্ডে ৩৩ পরিবারের ৮১ টি ঘর ভষ্মিভুত ১ শিশুর মৃত্যু

নীলফামারীতে পৃথক অগ্নিকান্ডে ৩৩ পরিবারের ৮১ টি ঘর ভষ্মিভুত ১ শিশুর মৃত্যু

2.Photo Nilphamari 06.08.2013 (1)ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী ৬ আগষ্ট॥ জেলা সদর ও ডোমার উপজেলার পল্লীতে পৃথক অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ৩৩টি পরিবারের ৮১টি ঘর,ধান চাল পাট,হলুদ আসবাবপত্র ভস্মিভুত হয়েছে। এ ছাড়া অগ্নিদ্বগ্ধ হয়ে ১ শিশু ৬টি গরু ও ৫টি ছাগল মারা গেছে। দুটি অগ্নিকান্ডে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান প্রায় ১ কোটি টাকা বলে ধারনা করা হচ্ছে। সোমবার রাতে এই পৃথক অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।
সোমবার রাত ৯টার দিকে জেলা সদরের সোনারায় ইউনিয়নের বড়–য়া বেড়াকুঠির বখশিপাড়া গ্রামে অগ্নিকান্ডে
অগ্নিদ্বগ্ধ হয়ে রিফাত হোসেন(৫) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে । পাশাপাশি অগ্নিকান্ডে ১৫টি পরিবারের প্রায় ৪৫টি ঘর, আসবাবপত্র, ধান চালসহ প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অগ্নিকান্ডে ৩টি গরু ও ৫টি ছাগল অগ্নিদ্বগ্ধ হয়ে মারা যায়।
প্রত্যক্ষদর্শী ও ফায়ার সার্ভিস সুত্র জানায়, সেখানকার দিনমজুর আব্দুল আলিমের বাড়ীর রান্না ঘরের চুলার আগুন থেকে অগ্নিকান্ডের সুত্রপাত হলে মুহুর্ত্বের মধ্যে তা আশপাশ ছড়িয়ে পড়ে। অগ্নিকান্ডে আব্দুল আলিম সহ ১৫টি পরিবারের শোয়ার, রান্না এবং গোয়ালসহ ৪৫টি ঘর এবং রক্ষিত মালামাল ভষ্মিভুত হয়।
সোনারায় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান শাহ মানু জানান, দিনমজুর আব্দুল অলিমের দুই শিশুপুত্র অগ্নিকান্ডে রিফাত হোসেন(৫) ও নাঈম(৩) অগ্নিদ্বগ্ধ হয়। তাদের প্রথমে সৈয়দপুর ১শ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নেয়ার পর সেখান থেকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হলে মঙ্গলবার ভোর রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিশু রাফাত মারা যায়। এ ছাড়া অগ্নিকান্ডে ৩টি গরু ও ৫টি ছাগল অগ্নিদ্বগ্ধ হয় বলে জানান তিনি।খবর পেয়ে সৈয়দপুর ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে উপস্থিত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সৈয়দুপর ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ওয়াদুদ হোসেন জানান, সেখানকার আব্দুল আলিমের বাড়ির রান্না ঘরের চুলার আগুন থেকে অগ্নিকান্ডের সুত্রপাত হলে ওই ঘটনা ঘটে।
অপর দিকে এতই দিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে ডোমার উপজেলার গোমনাতী ইউনিয়নের মধুপাড়া গ্রামে আব্দুল মান্নানের বাড়ির রান্না ঘর থেকে আগুনের সুত্রপাত হয়। ফলে গ্রামের ১৮টি পরিবারের ৩৬টি ঘর,ঘরে রক্ষিত আসবাবপত্র, নগদ ৫লাখ টাকা,৩শত মন ধান, ৫০ মন চাল,২০মন শুকনা মরিচ,২০মন পাট ও ৩০ মন হলুদ পুড়ে ছাই হয়। এ সময় অগ্নিদ্বগ্ধ হয়ে ৩টা গরু মারা যায়।
গ্রামবাসীর অভিযোগ ডোমার ফায়ার সার্ভিস কে খবর দেয়া হলে তারা ঘটনার ২ ঘন্টা এলে গ্রামবাসীর রোষানলে পড়ে পালিয়ে চলে আসে। গ্রামের মজনু মিয়ার অভিযোগ আগুনে সব পুড়ে ছাই হয়ে যাবার ২ ঘন্টা পর ফায়ার সার্ভিস আসলে তাদের তাড়িয়ে দেয়া হয়। ওরা সময় মতো আসলে এতো ক্ষতি হতোনা বলে তার দাবি।
গোমনাতী ইউপি চেয়ারম্যান ইউনুছ আলী সরকার ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন এখানে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান প্রায় ৬০ লাখ টাকা হবে। মঙ্গলবার এলাকার সংসদ সদস্য জাফর ইকবাল সিদ্দিকী ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করে প্রাথমিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থদের মাছে শুকনা খাবার হিসাবে চিড়া গুড় ও ৩০টি করে শাগী ও লুঙ্গি বিতরন করেন। ডোমার ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ফসির উদ্দিন বলেন আমরা রাত সাড়ে ১২ টায় খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। কিন্তু এলাকাবাসী আমাদের আগুন নেভাতে না দিয়ে তাড়িয়ে দেয়।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful