আর্কাইভ  মঙ্গলবার ● ২৬ অক্টোবর ২০২১ ● ১১ কার্তিক ১৪২৮
আর্কাইভ   মঙ্গলবার ● ২৬ অক্টোবর ২০২১

‘একটি সন্ত্রাসের রাজত্ব শেষে আরেকটির উত্থান’

রবিবার, ১৫ জুন ২০১৪, বিকাল ০৭:১৫

parliamentঢাকা: নারায়ণগঞ্জ ও ফেনীর কথা উল্লেখ করে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান বলেছেন, কালশীতে ১০ জনকে পুড়িয়ে (একজন গুলিবিদ্ধ) মারার  ঘটনা একটি সন্ত্রাসের রাজত্বের অবসানের পর যেন আরেকটি রাজত্বের উত্থান। এ যেন রাজা যায়, রাজা আসে।”

রোববার দশম জাতীয় সংসদের দ্বিতীয় (বাজেট) অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

পীর ফজলুর রহমান অভিযোগ করেন, “সন্ত্রাসের রাজত্ব ও আধিপত্য বিস্তার এবং কায়েমি শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য নারায়ণগঞ্জ, ফেনীর পর মিরপুরের কালশীতে ১০ জনকে আগুনে পুড়িয়ে মারার মতো ঘটনা ঘটেছে।”

নারায়ণগঞ্জে সাতজনের অপহরণ ও হত্যার ঘটনা উল্লেখ করে পীর ফজলুর রহমান বলেন, “ওই ঘটনা পর স্বজনদের ও দেশবাসীর আতঙ্ক দূর হওয়ার আগেই ফেনীতে ঘটে আরেকটি নৃশংস ঘটনা, যে ফেনীকে আগে বলা হতো সন্ত্রাসের নগরী।”

তিনি বলেন, “ফেনীতে একজন বিশেষ ব্যক্তির রাজত্বের অবসানের পর দেশবাসী ও ফেনীবাসী মনে করেছিল, এখন হয়তো তারা নিরাপদ। কিন্তু একটি রাজত্বের অবসানের পরপরই আরেকটি রাজত্বের উত্থান ঘটে। আর নিজেদের রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করতে তারা মানুষ হত্যার মতো উন্মত্ততায় মেতে উঠেছে।”

ফজলুর রহমান বলেন, “৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে দেশের একটি সংঘবদ্ধ রাজনৈতিক গোষ্ঠীর প্রতিহিংসার শিকার হয়েছে রাজধানীবাসী। কিন্তু শুক্রবার মিরপুরের ঘটনাটি কোনো রাজনৈতিক গোষ্ঠীর প্রতিহিংসার শিকার নয়। সেখানে এমন ঘটনা ঘটার আশঙ্কা আগে থেকেই করা হচ্ছিল। কিন্তু স্থানীয় দায়িত্বশীলদের উদাসীনতার কারণে তা প্রতিরোধ হয়নি।”

ফজলুর রহমান বলেন, “আমরা দেখেছি মিরপুরে কীভাবে ঘরের মধ্যে আগুন জ্বালিয়ে দিয়ে নয়জনকে পুড়িয়ে মারা হয়েছে। আমরা যখন সংসদে আসি, তখন আমাদের বিবেককে বাইরে রেখে আসি না। আমাদের প্রশ্ন, এমন নৃশংস ঘটনার আর কত ঘটতে দেয়া হবে? আজ সংসদের মাধ্যমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে প্রশ্ন, এমন সন্ত্রাসী নৃশংস ঘটনার ব্যাপারে তাদের পদক্ষেপ কী?”

মন্তব্য করুন


Link copied