আর্কাইভ  রবিবার ● ৫ ডিসেম্বর ২০২১ ● ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
আর্কাইভ   রবিবার ● ৫ ডিসেম্বর ২০২১

পঞ্চগড়ে ১০ম শ্রেণীর ছাত্রী অপহরণ

বৃহস্পতিবার, ১৭ জুলাই ২০১৪, বিকাল ০৭:১৬

সে জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলর ভজনপুর দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্রী এবং একই উপজেলার কাওরগছ গ্রামের তমিরুল ইসলাম (গমির উদ্দিন) এর কন্যা তাসলিমা বেগম (১৫)।

এলাকাবাসি ও পরিবার সুত্রে জানা য়ায়, তাসলিমা বেগমকে বিদ্যালয়ে যাওয়া আসার সময় একই গ্রামের হারুন প্রায় সময় কৃ-ইঙ্গিত করিত । তাসলিমার পিতা মেয়ের কথা শুনে হারুনকে বকাবাদ্ধ করে এ ঘটনার সূত্র ধরে গত রবিবার ১৩-৭-১৪ সকাল ৬ টায় হারুন ও বক্কর তাসলিমা বেগমকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী এন্দাজুল ও হাসিবুল জানায়, তাসলিমাকে অপহরণ করে গিতালগছ গ্রামে নিয়ে যাওয়া যায়। এর পর খবর পেয়ে পরিবারে লোকজন গিতালগছ গ্রামের মোশারফ হোসেনের বাড়ীতে গেলে বাড়ীর লোকজন তাদের হুমকি ধুমকি দিয়ে বাড়ী থেকে বের করে দেয়।

ঘটনার পর থেকে তাসলিমার পরিবার মেয়েকে অনেক খুজাখুজি করে না পেয়ে তেঁতুলিয়া থানায় অভিযোগ করে এবং পঞ্চগড় জেলা জর্জকোর্টে ৬ জনকে আসামী করে ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধীত/০৩) এর ৭/৩০ ধারায় বিশেষ আইনে মামলা দায়ের করেন। “মামলা নং- ৭৭-১৪”।

আসামীরা হলেন, (১) হারুন পিতাঃ সেরাজুল ইসলাম, সাং- কাওরগছ (২) বক্কর, পিতাঃ মোশারফ হোসেন, সাং- গিতালগছ, (৩) আনিছুর রহমান, পিতাঃ নোমত, সাং- গোলাব্দিগছ, (৪) আবু বক্কর সিদ্দিক, পিতাঃ মৃত- সাবদুল সাং- কাওরগছ, (৫) আলম, পিতাঃ আসির উদ্দীন, সাং- কালিয়ামনি, (৬) মোশারফ হোসেন, পিতাঃ আসির উদ্দীন, সাং- গিতালগছ সকলের উপজেলা তেঁতুলিয়া, জেলা পঞ্চগড়।

মামলা হয়েছে দেখে অপহরণ কারির পরিবার অপহরিতা তাসলিমার বাড়ী ঘর ভাংচুর করে। এদিকে মোবাইল ফোনে ০১৭৯১৬৪৮৬৬০ এই নাম্বার হতে বার বার মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অপহরণ এর পর থেকে তাসলিমার মা রহিমা খাতুন মেয়ের শোক এ অসুস্থ হয়ে বিছানায় পরে রয়েছেন।

অনেক খুজাখুজী করে থানায় মামলা দায়ের করেও গত ৫ দিনেও তাসলিমাকে না পেয়ে পরিবারে আশঙ্কা মনের দৃঢ় বিশ্বাস তাসলিমাকে যে কোন গোপন আস্থানায় আটক করে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন বা যে কোন মূহুর্তে ভারতে পাঁচার করে দিতে পারে।

পরিবারের দাবি যে কোন মূল্যে মেয়েকে ফিরে পেতে আইন প্রযোগ কারি বাহিনীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

মন্তব্য করুন


Link copied