Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০ :: ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ :: সময়- ৪ : ৪৯ অপরাহ্ন
Home / খোলা কলাম / ভালো নেই আমরা

ভালো নেই আমরা

হাবীব ইমন
politricএকদিকে গণতন্ত্র হত্যা দিবস, অন্যদিকে গণতন্ত্র রক্ষা দিবস। এ দুই দিবসের মাঝেই কেটে যাচ্ছে দেশের মানুষের দুঃসময়। বাড়ছে রানৈতিক সংকট, জ্বলছে অস্থিরতার আগুন। অত্যন্ত জটিল ব্যাপার-স্যাপার। আমজনতা এসব কঠিন ব্যাপার বোঝে না। গণতন্ত্র জিনিসটা কী, আসলে কী সেটা মনে নেই বাস হেল্পার আসাদেরও। তবে এতটুকু জানে, গণতন্ত্রের সঙ্গে আগুনের বিশেষ একটা সম্পর্ক আছে। এই তো কয়েক ঘণ্টা আগে গণতন্ত্র করতে করতে তার বাসটা পুড়িয়ে দেওয়া হলো। বাস নেই, চাকরি নেই। টাকাও নেই। কিন্তু ঘরে দুই বোন আর মায়ের ক্ষুধার্ত মুখ আছে। চাল-ডাল নেওয়ার ব্যাপার আছে। কিন্তু ক্যামনে? এসব ভাবতে ভাবতে আসাদের প্রশ্ন, গণতন্ত্র জিনিসটা আসলে কী? কী ক্ষতি করেছিল ও গণতন্ত্রের? দরিদ্র রিকশাওয়ালা মমিন হন্যে হয়ে গণতন্ত্রকে খুঁজছে। এই গণতন্ত্রের সাগরেদরা আজকে তার রিকশা পুড়িয়ে দিয়েছে। এখন ‘গণতন্ত্র’ বাহাদুরের খোঁজে আছে রিকশাওয়ালা মমিন। একটা প্রশ্নের উত্তর তার চাই-ই, কী ক্ষতি করেছিল সে গণতন্ত্রের?
দুই.
আগামী ২ ফেব্রুয়ারি থেকে যে এসএসসি পরীক্ষা শুরুর কথা তাতে মিনহাজের অংশগ্রহণের কথা ছিল। ফেনীর মাস্টারপাড়ায় বোমাহামলার ঘটনায় জেসমিন রহমানের একমাত্র ছেলে মিনহাজুল ইসলাম অনিক আহত হয়েছে। সে এখন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আছে। ওর মাথায় আঘাত লেগেছে। চোখের ওপরের অংশ থেকে নাক পর্যন্ত ঝলসে গেছে। ডাক্তার বলেছেন, সেরে উঠতে সময় লাগবে। ‘অনিক কি পরীক্ষা দিতে পারবে?’Ñ জিজ্ঞাসা মা জেসমিন রহমানের। তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্র আসল কি আসল না, তাতে আমার কী? আমার ছেলের তো প্রাণ বাঁচে না। কেউ কাজ করতে যাবে, কেউ স্কুলে যাবে, কারও কোনো নিরাপত্তা নাই। ক্ষমতা নিয়ে কাড়াকাড়িতে আমার কী লাভ?’
তিন.
‘গণতন্ত্র রক্ষাকারী’ বা ‘গণতন্ত্র হত্যা প্রতিরোধকারী’Ñ এই দুপক্ষের ক্ষেত্রেই যে বিবেচনাটি প্রধান হওয়া উচিত ও স্বাভাবিক কারণে আকাক্সক্ষা ছিল তা হলো গণতন্ত্র। কিন্তু দুপক্ষই গণতন্ত্রের সঙ্গে সম্পৃক্ত অপরাপর সব অপরিহার্য ও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে বাদ দিয়ে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে একমাত্র ইস্যু বানিয়ে তুলছে। কিন্তু গণতন্ত্রের সমস্যা কি শুধুই ৫ জানুয়ারির ‘বিতর্কিত’ নির্বাচন?

দুটো দলই তার স্বৈরাচারী মনোভাব দেখিয়ে যাচ্ছে। বড় বুর্জোয়া দলগুলো উভয়ই বিরোধী দলে থাকাকালে ‘প্রতিযোগিতার সমান ক্ষেত্র’ তথা ষবাবষ ঢ়ষধুরহম ভরবষফ-এর কথা বলে থাকে। ক্ষমতায় থাকলে তারাই আবার প্রতিপক্ষকে তা থেকে বঞ্চিত রেখে নিজের জন্য সুবিধা করে নিতে সব রকম অপকৌশলে আশ্রয় নিয়ে থাকে। গণতন্ত্র সম্পর্কে তাদের ধারণা জমিদারতন্ত্রের মতো। এ যেন জমিদার দ্বন্দ্ব। সেই দ্বন্দ্ব নিরসনের ক্ষেত্রে তারা বিরোধী দলে থাকাবস্থায় নিজেদের সংকীর্ণ স্বার্থে গণতন্ত্রের প্রত্যাশী হয়ে ওঠে। গণতন্ত্র তাদের কাছে নীতি-আদর্শের বিষয় নয়। স্রেফ ক্ষমতায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে একটি কৌশলগত হাতিয়ার মাত্র। সেখানে আলাদাভাবে কোনো দলকে দেখার কিংবা পক্ষ নেওয়ার সুযোগ নেই। ক্ষমতায় থাকা না থাকা নিয়ে যে পাল্টাপাল্টি অবস্থান, তাতে অকালে ঝরে যাচ্ছে কয়েকটি প্রাণ। তাদের রক্তের হোলিখেলায় শিশুরাও বাদ পড়ছে না। আমরা কোনো শিশুর চোখে পানি দেখতে চাই না।
চার.
অন্ধকার নামছে। গভীর। কান্নার ভেতর আবার মিশে যাচ্ছে রক্ত। ক্রমেই বদলে যাচ্ছে মুখের রঙ। বাঁচার জন্য ছুটতে ছুটতে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছি আমরা। একলা হতেই শিরদাঁড়ার ভেতর বেড়ে উঠছে শিরশিরানি। সবুজ শ্যামল মাটিতে নেমে আসছে আরও অন্ধকার। নিজেদের প্রতি তৈরি হচ্ছে তীব্র অবিশ্বাস। সম্পর্কের ভেতর ঢুকে যাচ্ছে জটিল রাজনীতি।  চারপাশ কিছুতেই স্থির থাকতে দিচ্ছে না। ভালো নেই আমরা।
লেখক : কলামনিস্ট

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful