Templates by BIGtheme NET
আজ- বৃহস্পতিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২০ :: ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ :: সময়- ৬ : ৫২ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / বিধিনিষেধমুক্ত খালেদা জিয়া

বিধিনিষেধমুক্ত খালেদা জিয়া

Khaleda_zia-1সেন্ট্রাল ডেস্ক: পক্ষকাল যাবৎ গুলশানের স্বীয় রাজনৈতিক কার্যালয়ে কার্যত অবরুদ্ধ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এখন যে কোনো স্থানে যেতে পারবেন। কোনো বিধিনিষেধ নেই। গতকাল রাতেই তার কার্যালয়ের সামনে থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বেশির ভাগ সদস্য প্রত্যাহার করার কথা। খালেদা জিয়া আজ তার প্রয়াত স্বামী সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে যেতে পারবেন; দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে ‘শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি’ও পালন করতে পারবেন।

গতকাল রাতে ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে গতকাল রাত ১২টায় খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাস বলেছেন, তারা এখনও এই মর্মে কোনো বার্তা পাননি। পেলে দলীয় চেয়ারপারসন নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।

গত ১৬ দিন গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে অবরুদ্ধ আছেন খালেদা জিয়া। ২০ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধ কর্মসূচির সহিংস পরিস্থিতির মধ্যেই গতকাল রাতে এমন নাটকীয় সিদ্ধান্ত এলো। খালেদা জিয়ার ব্যাপারে সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এমন সিদ্ধান্ত গতকাল সন্ধ্যায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর শীর্ষ পর্যায়ে অবহিত করা হলে তারা জরুরি বৈঠক করেন। এ ব্যাপারে মাঠ পর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় পুলিশ সদর দপ্তরে আইজিপির নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের এক বৈঠক হয়। সেখানে ডিএমপি কমিশনার, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি, পুলিশের গুলশান বিভাগের ডিসি ছাড়াও অন্যান্য ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে গতকাল রাতে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, প্রয়াত জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত করতে চন্দ্রিমা উদ্যানে যেতে পারেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এ ক্ষেত্রে কোনো বাধা নেই। এ জন্য আবেদনেরও প্রয়োজন নেই।

এ ব্যাপারে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘শান্তিপূর্ণভাবে খালেদা জিয়া পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে জননিরাপত্তা ও জনশৃঙ্খলার বিঘ্ন না ঘটিয়ে যে কোনো স্থানে যেতে পারেন। তাকে অবরুদ্ধ করে রাখার প্রশ্নই ওঠে না। তবে যদি কেউ জননিরাপত্তা বিঘি্নত করে ও জনশৃঙ্খলার হুমকির কারণ হয়, তাহলে তিনি যে-ই হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে দেশের প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ডিএমপি কমিশনার আরও বলেন, নগরবাসীর নিরাপত্তা রক্ষার্থে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ পর্যাপ্ত নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। পরিস্থিতির ওপর নিবিড় নজরদারি রয়েছে।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির নয়াপল্টনের কার্যালয়েও যেতে পারবেন খালেদা জিয়া।

গতকাল রাতে গুলশানের ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, খালেদা জিয়ার বাসার সামনে থেকে পুলিশ ফোর্স কমানো হবে। কার্যালয়ের গেটে কোনো তালা নেই।

আওয়ামী লীগের কয়েকজন নীতিনির্ধারক নেতা ও সরকারের পদস্থ কর্মকর্তারা বলেছেন, জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারতের পর খালেদা জিয়া নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যেতে চাইলে তাকে সে সুযোগ করে দেওয়া হবে। এ ব্যাপারে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে এক ধরনের আলোচনা হয়েছে। সরকারের দৃষ্টিভঙ্গিও ইতিবাচক।

এদিকে, খালেদা জিয়ার ব্যাপারে এ ধরনের প্রস্তুতি থাকলেও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী রাজধানীর নিরাপত্তা নিশ্ছিদ্র করতে আরও জোরদার অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতের পর গতকাল রাত থেকেই নতুন উদ্যমে মাঠে নেমেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সে অনুযায়ী গতকাল রোববার মধ্যরাত থেকে পুলিশের বিভিন্ন সংস্থা, র‌্যাব ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অন্যান্য সংস্থা জোরদার অভিযান শুরু করেছে।

গতকাল রাতে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে যান দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য শামা ওবায়েদ। এর আগে সন্ধ্যার পর জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম যুক্তরাজ্য শাখার এক প্রতিনিধি দলও কার্যালয়ে যায়। ব্যারিস্টার আনোয়ারুল ইসলাম শাহিনের নেতৃত্বে সাত সদস্যের ওই দল কার্যালয়ে প্রবেশ করলেও খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারেনি বলে জানা গেছে। রাত ৮টার দিকে তারা বের হয়ে এলেও সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। এর পর বিএনপি নেতা নিতাই রায় চৌধুরীর ছেলে ব্যারিস্টার মিথুন রায় চৌধুরীও খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এদিকে, দুপুরে সাবেক যুগ্ম সচিব বিজন কান্তি দাস খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তাকে গেট থেকেই ফিরিয়ে দেয় পুলিশ।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful