Templates by BIGtheme NET
আজ- শনিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২০ :: ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ :: সময়- ১ : ৫৯ পুর্বাহ্ন
Home / আলোচিত / ডেঞ্জার জোন উত্তরাঞ্চলের ৪০ পয়েন্ট

ডেঞ্জার জোন উত্তরাঞ্চলের ৪০ পয়েন্ট

bus fire নজরুল মৃধা: অবরোধ- হরতালে উত্তরাঞ্চলের মহাসড়কগুলোর কমপক্ষে ৪০ পয়েন্ট ডেঞ্জার জোন হিসেবে চিহ্নিত রয়েছে। এসব পয়েন্টে অবরোধের নামে প্রায় প্রতিদিনই কমবেশি নাশকতার ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। নাশকতারোধে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগ এবং বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত মহাসড়কে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে ৭৪ প্লাটুন বিজিবি। এ ছাড়াও স্থানীয় পুলিশ সার্বণিক দায়িত্ব পালন করছে। তারপরও ঠেকানো যাচ্ছে না নাশকতা।
পুলিশ ও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, নাশকতার ভয়ে এসব পয়েন্ট দিয়ে চালকরা যানবাহন চালাচ্ছেন প্রাণ হাতে নিয়ে। ডেঞ্জার জোন হিসেবে চিহ্নিত পয়েন্টগুলো হচ্ছে রংপুরের মিঠাপুকুরে ৩, সদর উপজেলার হাজিরহাটসহ ২, পীরগাছার ২, গাইবান্ধার পলাশবাড়ি, গোবিন্দগঞ্জ ও সুন্দরগঞ্জ, নীলফামারীর জলঢাকা, কিশোরগঞ্জ, দিনাজপুরের রানীরবন্দর, ভুষির বন্দর, কাহারোল. ঘোড়াঘাট, লালমনিরহাটের বড়বাড়ি, বগুড়ার মাটিডালি, গোদাগাড়িসহ ৫ পয়েন্টে, সিরাজগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সেতু সড়কের ২ পয়েন্ট, রাজশাহীর মতিহার, পুটিয়ার কাঁঠালবাড়ি, খড়খড়ি বাইপাসসহ ৬ পয়েন্ট, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৪ পয়েন্ট ও জয়পুরহাটের দুটি পয়েন্ট। এসব পয়েন্টে যানবাহন পারাপার হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রহরায়।
পুলিশ সূত্র জানায়, বগুড়া ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রহরা দিয়েও নাশকতা ঠেকাতে পারছে না। এসব এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিতে কমপে ২০ বার নাশকতার ঘটনা ঘটেছে। মিঠাপুকুরে নাশকতাকারীদের পেট্রলবোমায় দগ্ধ হয়ে ৬ জন প্রাণ হারিয়েছে।
রংপুর বিজিবি সেক্টরের উত্তর-দক্ষিণ রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাহফুজুর রহমান সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, অবরোধ চলাকালীন বিজিবির সহায়তায় যৌথ অপারেশন চালানো হয় ২৪টি। হরতাল-অবরোধের নামে দুষ্কৃতকারীরা ২৬ গাড়ি পোড়ায় ও ১৮টি ভাঙচুর করে। এতে নিহত হয় ৬ জন। আর আহত হয় ৪০ জনের মতো। তিনি আরও জানান, গত ৪ জানুয়ারি থেকে ৩১ হাজার ১০২টি যাত্রীবাহী বাস, ১ লাখ ৭ হাজার ৯৪২টি পণ্যবাহী ট্রাক, ১ হাজার ৭৪২টি তেলবাহী গাড়ি, ২৯ হাজার ৪৭৭টি কাঁচামাল বোঝাই ট্রাক, ২৪ হাজার ৬৭৬টি চাল বোঝাই ট্রাক পাহারা দিয়ে ঢাকাসহ নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়া হয়।
তিনি আরও বলেন, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ১৬টি জেলার দায়িত্বপূর্ণ প্রশাসনিক এলাকাজুড়ে বিজিবির রংপুর রিজিয়ন সদস্যরা ৫টি ল্যান্ড কাস্টম পোর্ট (এলসিপি), ৪টি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট (আইসিপি) এবং ১২টি ক্যাটেল করিডোরে আমদানি ও রপ্তানিতে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে অকান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে।
রংপুরের পুলিশ সুপার আবদুর রাজ্জাক পিপিএম জানান, মিঠাপুকুরসহ যেসব পয়েন্টে নাশকতার আশঙ্কা রয়েছে, সেগুলোয় পুলিশ সার্বণিকভাবে নজরদারি করছে। রংপুরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক বলে দাবি করেন তিনি। আমাদের সময়

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful