Templates by BIGtheme NET
আজ- রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১২ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ৭ : ০২ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / উত্তরাঞ্চলের আলু যাচ্ছে সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়ায়

উত্তরাঞ্চলের আলু যাচ্ছে সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়ায়

স্টাফ রিপোর্টার: রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় উৎপাদিত গ্রানুলা আলু রফতানি হচ্ছে সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে। এরই মধ্যে রফতানি হয়েছে প্রায় ৭ লাখ মেট্রিক টন। চাহিদা অনুযায়ী আলু রফতানি হলে প্রায় সাড়ে ৩শ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন হবে।

রফতানিকারকরা জানান, এ অঞ্চলের মানসম্পন্ন গ্রানুলা জাতের আলু বিদেশের বিভিন্ন চিপস কোম্পানি ও প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। বিদেশের বাজারে আলু রফতানির ফলে রংপুর বিভাগের কৃষক ও ব্যবসায়ীদের মুখে হাসি ফুটেছে। রংপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড়, দিনাজপুর ও কুড়িগ্রাম জেলা থেকে প্রায় এ পর্যন্ত ৭ লাখ মেট্রিক টন গ্রানুলা জাতের আলু রফতানি করা হয়েছে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও মধ্যপ্রাচ্যের সৌদি আরবে। রফতানিকারকরা পটেটো মেস ব্যাগে ৪ কেজি, ৫ কেজি, ১০ কেজি ও ২০ কেজি করে ১শ গ্রাম থেকে ২৫০ গ্রাম ওজনের গ্রানুলা জাতের আলু প্যাকেটবন্দী করে চট্টগ্রাম নৌপথের মাধ্যমে বিদেশের বাজারে রফতানি করছে।

জানা গেছে, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও চট্টগ্রাম এর বিভিন্ন রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান এ অঞ্চলের বিভিন্ন এজেন্টের মাধ্যমে রংপুরের বালাবালী, পাগলাপীর, ধনতোলা, তপোধন, মাহিগঞ্জ, পীরগাছা, গঙ্গাচড়া, মিঠাপুকুর এলাকায় আলু সংগ্রহ ও পরিষ্কার করে প্যাকেটজাত করছে। এছাড়াও পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ, নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ, জলঢাকা, ডিমলা, দিনাজপুরের বীরগঞ্জ, চিরিরবন্দর, সেতাবগঞ্জ, কুড়িগ্রামের কাঁঠালবাড়ি এলাকাতেও একইভাবে কাজ চলছে।

রংপুরের বাঁধন এগ্রো ট্রেডিং করপোরেশনের ম্যানেজিং পার্টনার দুলাল ও আনোয়ার জানান, ১৫ দিনে তারা রংপুর থেকে ১৩৭ মেট্রিক গ্রানুলা জাতের বড় সাইজের নিখুঁত আলু ঢাকার মিয়ামি ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী সুফিয়ান আহমেদের মাধ্যমে মালয়েশিয়ায় রপ্তানি করেছেন। আরো প্রায় ৩শ মেট্রিক টনের আলু রফতানির অর্ডার তাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। সূত্রটি জানিয়েছে, প্রায় ৫০/৬০ জন ব্যবসায়ী একইভাবে গ্রানুলা জাতের আলু প্যাকেটজাত করে বিদেশের বাজারে পাঠাচ্ছেন। তাদের মতে আগামী এক মাসে আরো ১ হাজার মেট্রিক টন আলুর অর্ডার আসতে পারে।

রংপুরের মাহিগঞ্জের এজেন্ট টুলু, তারাগঞ্জের এজেন্ট রুবেল, নাল্টু, গঙ্গাচড়ার এজেন্ট বিটু, তপোধনের এজেন্ট রিপন, হাজীরহাটের এজেন্ট রাজ্জাক জানান, তারা সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে গ্রানুলা জাতের ১শ থেকে ৩শ গ্রাম ওজনের আলু কিনে তা ভালোভাবে বাছাই করে বৈদ্যুতিক পাখা ও সুতি কাপড় দিয়ে নিখুঁতভাবে পরিষ্কার করেন। এর পর পটেটো মেস ব্যাগে ৪ কেজি ওজনের প্যাকে ট্রাকে করে তারা চট্টগ্রাম পর্যন্ত পৌঁছান।

ঢাকার রিফাত এন্টারপ্রাইজ এর ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মুন্নী জানান, তিনি রংপুর অঞ্চলের বিভিন্ন আলু ব্যবসায়ীর মাধ্যমে ২০ দিনে প্রায় ৫শ মেট্রিক টন গ্রানুলা জাতের আলু ক্রয় করে মালয়েশিয়াতে রফতানি করেছেন। আগামী এক মাসে তিনি আরো প্রায় ১ হাজার মেট্রিক টন আলু রফতানি করবেন বলে জানান।

রফতানিকারকদের অভিযোগ, যে ব্যাগে করে আলু রফতানি করা হচ্ছে দেশে সেই পিপি ওভেন মেস ব্যাগের সরবরাহ একেবারে কম। তাই মাঝে মধ্যে তারা ব্যাগ সংকটের কারণে অর্ডার নিতে পারছেন না। তাই তারা এ ব্যাপারে সরকারের আশু সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

রংপুর চেম্বারের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু জানান, যেভাবে আলু বিদেশে যাচ্ছে তাতে এ অঞ্চলের আলু চাষিরা আলু চাষে আগ্রহী হয়ে উঠবে। এ জন্য সরকারকে আরো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। তাহলে কৃষকরা আরো লাভবান হবে। অর্জিত হবে বৈদেশিক মুদ্রা।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful