Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১০ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ৭ : ৫২ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / পাটগ্রামে কাবিখার ৩৩টি প্রকল্পে সাইনবোর্ড নেই

পাটগ্রামে কাবিখার ৩৩টি প্রকল্পে সাইনবোর্ড নেই

নিউজ ডেস্ক: গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কর্মসূচির প্রকল্প এলাকায় সাইনবোর্ড টাঙাতে সরকারের নির্দেশনা থাকলেও লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলায় চলতি অর্থবছরে বাস্তবায়নাধীন ৩৩টি প্রকল্পের কোনোটিতেই তা করা হয়নি।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, সাইনবোর্ড টাঙানো থাকলে এলাকার মানুষ সংশ্লিষ্ট এলাকায় কী কাজ, কীভাবে, কতটুকু হচ্ছে তা জানতে পারে। কিন্তু সাধারণ মানুষকে ফাঁকি দিয়ে কাজে নয়ছয় করে বরাদ্দ আত্মসাতের জন্যই সাইনবোর্ড না টাঙানোর কৌশল নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া সাইনবোর্ড তৈরির জন্য যে বরাদ্দ রয়েছে, সেটাও হাতিয়ে নেওয়া হবে বলে তাঁরা অভিযোগ করেন।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরে এ উপজেলায় গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কারের জন্য আটটি ইউনিয়নে কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) কর্মসূচির আওতায় ৩৩টি প্রকল্পের কাজ চলছে। এর মধ্যে ১৭টি সাধারণ প্রকল্পে ১৪৬ মেট্রিক টন এবং স্থানীয় সাংসদের ১৬টি বিশেষ প্রকল্পে ১২৮ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ করা হয়েছে। অধিকাংশ প্রকল্পের কাজ ও বরাদ্দ দেওয়া ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। আর দু-একটি প্রকল্পের কাজ অবশিষ্ট রয়েছে।
গত সপ্তাহে জগৎবেড়, কুচলিবাড়ী, জোংড়া, বাউরা ও বুড়িমারী ইউনিয়নের ১২টি প্রকল্প ঘুরে কোথাও কোনো সাইনবোর্ড চোখে পড়েনি। এরপর সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ৩৩টি প্রকল্প এলাকার কোথাও কোনো সাইনবোর্ড নেই।
জোংড়া গুরুপাড়া কালীর ডাঙ্গা দুর্গামন্দির সংস্কার ও মাঠ ভরাট প্রকল্প বাস্তবায়নের সভাপতি সরেন চন্দ্র রায়ের কাছে প্রকল্প এলাকায় সাইনবোর্ড নেই কেন—জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কিছু কাজ করেছি, এখন সাইনবোর্ড লাগাব।’
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আবদুর রহিম বলেন, ‘কাজের চাল এখনো বরাদ্দ দেওয়া হয়নি, আপনি প্রকল্প এলাকায় কেমন করে সাইনবোর্ড পাবেন। বরাদ্দ দেওয়া হলে সাইনবোর্ড লাগানো হবে।’ পরে তিনি স্বীকার করেন, কিছু কাজ হয়েছে। বোরোর কারণে মাটি পাওয়া যাচ্ছে না, ফলে কাজ বন্ধ রয়েছে। আবার যখন কাজ শুরু হবে তখন সাইনবোর্ড লাগানো হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু হায়াত মো. রহমতুল্লা বলেন, ‘আমার পক্ষে সবগুলো প্রকল্প পরিদর্শনে যাওয়া সম্ভব নয়। তবে দু-তিনটি প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেছি এবং সাইনবোর্ড দেখেছি। তা ছাড়া সব প্রকল্প এলাকা পিআইও দেখভাল করছেন।’
পাটগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বলেন, ‘প্রকল্প এলাকা নির্ধারণ করে আমরা অনুমতি দিই। ইউএনও এগুলোর কাজ দেখভাল ও চালের বরাদ্দ ওঠানোর অনুমোদন দিয়ে থাকেন। তবে প্রকল্প এলাকায় অবশ্যই সাইনবোর্ড লাগাতে হবে। বিষয়টি পিআইও নিশ্চিত করবেন। তবে কোথাও কোনো অনিয়ম হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful