Templates by BIGtheme NET
আজ- শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ৩ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ৫ : ৩০ অপরাহ্ন
Home / আলোচিত / দমদমা দিবসে বধ্যভূমিতে কারমাইকেল কলেজের আলোচনা সভা

দমদমা দিবসে বধ্যভূমিতে কারমাইকেল কলেজের আলোচনা সভা

ফরহাদুজ্জামান ফারুক, স্টাফ রিপোর্টার: মুক্তিযুদ্ধের সময় ঘাতক বাহিনীর হাতে নির্মমভাবে হত্যার শিকার কারমাইকেল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের স্মরণে মঙ্গলবার দুপুরে মহানগরীর দমদমা বধ্যভূমিতে দমদমা দিবসে স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়।

কারমাইকেল কলেজ আয়োজিত সভায় কলেজের সাহিত্য, সংস্কৃতি ও জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটির আহবায়ক ফজলুল হকের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর সাহানা বেগম, ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক এবিএম রমজান আলী, ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শাফিয়ার রহমান।

এসময় শিক্ষার্থীদের মধ্যে থেকে বক্তব্য রাখেন জেলা ছাত্রলীগ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নূর আলম, কলেজ ছাত্রলীগ সম্পাদক কানন, ছাত্র ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক ভুবন ভূষণ, ছাত্র-ফ্রন্টের সভাপতি আব্দুল মালেক, সাধারণ সম্পাদক রায়হান, সাংস্কৃতিক সংগঠন স্পন্দন সভাপতি মোঃ হানিফ, কানাসাস সভাপতি লিটু সরকার, বিতর্ক পরিষদ আহবায়ক মুরাদ হাসান, কাকাশিস সভাপতি ফরহাদুজ্জামান ফারুক প্রমুখ।

সভায় বক্তারা স্মৃতি বিজড়িত দমদমা বধ্যভূমিতে ভূমি-দস্যুদের অবৈধভাবে গড়ে তোলা স্থাপনা ও বালু উত্তোলন বন্ধের ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে বলেন, যারা মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশের বুদ্ধিজীবী সন্তানদের হত্যাযজ্ঞে মেতে উঠেছিলো তারাই পাকিস্তানী দোসরদের সাথে এক হয়ে কারমাইকেল কলেজের প্রগতিশীল ৬ শিক্ষকসহ বেশ কয়েকজন মেধাবী ছাত্রকে দমদমায় নিয়ে এসে হত্যা করে। বর্তমানে সেই হত্যার নেপথ্যে থাকা অপরাধীদের বিচার কার্যক্রম অব্যাহত থাকায় তারা স্বস্তি প্রকাশ করে যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে জনমত গড়ে তোলার আহবান জানান। এসময় বক্তারা বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের লোক দেখানো দমদমা বধ্যভূমি সংরক্ষণের চিত্র দেখে সমালোচনা করেন। এবং শীঘ্রই কলেজ প্রশাসনকে নিজস্ব তত্ত্বাবধানে স্মৃতি বিজড়িত দমদমা বধ্যভূমি সংরক্ষণে উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানান।

স্মরণ সভার শুরুর পূর্বে দমদমা বধ্যভূমি স্মৃতি ফলকে কলেজ প্রশাসন ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা পুষ্পমাল্য অর্পণ করে এবং শহীদ স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করে।

দমদমা দিবস সম্পর্কে বাংলা বিভাগের শিক্ষক মতিয়ার রহমান বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানী দালালদের ইন্ধনে হানাদার বাহিনীর সদস্যরা কারমাইকেল কলেজের ৬ শিক্ষকসহ বেশ কয়েকজন ছাত্রকে ৩০ এপ্রিল দমদমা ব্রীজের কাছে নিয়ে এসে নির্মমভাবে হত্যা করে। শহীদ শিক্ষকরা হলেন বাংলা বিভাগের অধ্যাপক রামকৃষ্ণ অধিকারী, উর্দু বিভাগের অধ্যাপক শাহ্ মোহাম্মদ সোলায়মান, রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক কালাচাঁদ রায়, অধ্যাপক আব্দুর রহমান, দর্শন বিভাগের অধ্যাপক সুনীলবরণ চক্রবর্তী ও গণিত বিভাগের অধ্যাপক চিত্তরঞ্জন রায়। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ও কারমাইকেল কলেজের শিক্ষকদের অবদান সবচেয়ে বেশি স্মরণীয়। তাই শহীদদের স্মরণে প্রতি বছর ৩০ এপ্রিল দমদমা দিবস পালন করে আসছে কারমাইকেল কলেজ প্রশাসন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful